রেলিগেটেড হয়েও রেলিগেটেড নন যারা – ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ

ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে ২০১৬-১৭ মৌসুমে এবার অবনমিত হয়েছে হাল সিটি, মিডলসব্রো আর স্যান্ডারল্যান্ড। প্রথম বিভাগ থেকে অবনমিত হলেও এই তিন ক্লাবেরই বেশ কিছু খেলোয়াড় আছেন, যারা দুর্দান্ত পারফরম্যান্স দেখিয়ে শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত রেলিগেশানের লড়াইয়ে টিকিয়ে রেখেছিলেন নিজ নিজ ক্লাবকে। শেষ পর্যন্ত তাদের ক্লাব রেলিগেটেড হলেও, সেসব খেলোয়াড়দের প্রচেষ্টা কিন্তু একেবারেই বৃথা যায়নি। বিভিন্ন ক্লাবের নজরে পড়েছেন তারা, এমনও হতে পারে প্রথম বিভাগের যেকোন ক্লাব সামনের মৌসুমেই কিনে নিতে পারে তাদের, ফলে তাদের আর দ্বিতীয় বিভাগে খেলাও লাগবেনা! কারা তারা? ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ থেকে এই মৌসুমে অবনমিত তিন ক্লাবের রত্নদের নিয়েই আজকের এই আয়োজন…

  • ভিক্টর ভালদেস 

অবনমিত ক্লাবগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বড় সুপারস্টার হয়ত তিনিই। মাত্র গত মৌসুমেই ফ্রি ট্রান্সফারে মিডলসব্রোতে যোগ দেওয়া এই বিশ্বজয়ী গোলরক্ষককে সামনের মৌসুমের জন্য ম্যানচেস্টার সিটিতে পেতে চাচ্ছেন সাবেক গুরু পেপ গার্দিওলা। এই মৌসুমে ম্যানচেস্টার সিটির কোন গোলরক্ষকের পারফরম্যান্সেই সন্তুষ্ট নন পেপ গার্দিওলা (ক্লদিও ব্রাভো, উইলি ক্যাবায়েরো, জ্যো হার্ট), দেখা যাক, কোথাকার জল কোথায় গড়ায়!

  • বেন গিবসন

অবনমিত মিডলসব্রো এর আরেক রত্ন এই সেন্ট্রাল ডিফেন্ডার, এর মধ্যেই যার সাথে চেলসির কিংবদন্তী অধিনায়ক জন টেরির তুলনা হওয়া শুরু হয়ে গিয়েছে। ইংলিশ এই সেন্টারব্যাকের প্রতি আগ্রহী চেলসি ও আর্সেনালের মত ক্লাব। ইংল্যান্ডের জাতীয় দলের স্কোয়াডেও এর মধ্যে ডাক পেয়েছেন তিনি।

  • মার্টেন ডে রুন

গত মৌসুমেই ইতালিয়ান ক্লাব আটালান্টা থেকে মিডলসব্রোতে ১২ মিলিয়ন পাউন্ডের বিনিময়ে যোগ দিয়েছিলেন এই ডাচ মিডফিল্ডার। প্রচন্ড পরিশ্রমী এই খেলোয়াড় এর মধ্যেই কুড়িয়েছেন হোসে মরিনহোর মত কোচের প্রশংসাও। এভারটনের কোচ রোনাল্ড ক্যোম্যান তাকে দলে আনার ব্যাপারে আগ্রহী বলে শোনা যাচ্ছে।

  • হ্যারি ম্যাগুইরে

হাল সিটির শক্তিশালী তরুণ এই ইংলিশ সেন্টারব্যাকের ভবিষ্যৎ যথেষ্ট উজ্জ্বল, টটেনহ্যাম হটস্পার, লেস্টার সিটি, নিউক্যাসল ইউনাইটেড ও লিভারপুলসহ বেশ কিছু প্রিমিয়ার লিগ ক্লাবের আগ্রহ কুড়িয়েছেন এরই মধ্যে।

  • অ্যান্ড্রু রবার্টসন

হাল সিটির এই ভুলে যাওয়া মৌসুমের যে দুই একজন ভালো পারফর্মার ছিলেন তাদের মধ্যে লেফটব্যাক অ্যান্ড্রু রবার্টসন ছিলেন অন্যতম। নিজেদের লেফটব্যাক সমস্যার সমাধানকল্পে এরই মধ্যে রবার্টসনকে দলে নেওয়ার ব্যাপারে ছক কষতে শুরু করেছে লিভারপুল।

  • কামিল গ্রসিচকি

পোল্যান্ডের এই উইঙ্গার হাল সিটির হয়ে যখন চুক্তি সই করলেন, চোখ কপালে উঠে গেছিল অনেকেরই, কারণ তিনি গত ইউরোতে পোল্যান্ডের অন্যতম সেরা পারফর্মার ছিলেন। কিন্তু যত যাই হোক, হাল সিটিকে অবনমনের হাত থেকে বাঁচাতে পারেননি তিনি। প্রিমিয়ার লিগ বা অন্য কোন শীর্ষ লিগের কোন ক্লাবের গুরুত্বপূর্ণ অংশ হতে পারেন তিনি।

  • জার্মেইন ডেফো

পুরো স্যান্ডারল্যান্ড দলের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ খেলোয়াড় ছিলেন ইংলিশ স্ট্রাইকার জার্মেইন ডেফো। এই মৌসুমে ৩৬ ম্যাচে ১৬ গোল করে এখনো বুঝিয়ে যাচ্ছেন বয়স কেবলই সংখ্যা মাত্র। তার চুক্তিতে একটা শর্ত ছিল, স্যান্ডারল্যান্ড অবনমিত হলেই ফ্রি তে ক্লাব ছাড়তে পারবেন তিনি। তাই বলাই যাচ্ছে ক্লাব ছাড়তে ডেফোর কোন সমস্যা নেই। আর তার জন্য আগ্রহী বোর্নমাথ, ওয়েস্টহ্যাম, নিউক্যাসল ইউনাইটেডের মত ক্লাবগুলো।

  • জর্ডান পিকফোর্ড

এই ইংলিশ গোলরক্ষকের পারফরম্যান্স নজর কেড়েছে আর্সেনালের মত ক্লাবের, অনেকের মতেই ইংল্যান্ডের নাম্বার ওয়ান হিসেবে খুব শীঘ্রই জ্যো হার্টের স্থলাভিষিক্ত হতে যাচ্ছেন তিনি।

  • দিদিয়ের এনডং

গ্যাবনিজ এই সেন্ট্রাল মিডফিল্ডারের উপর চোখ পড়তে পারে যেকোন শীর্ষ লিগেরই মাঝসারির দলগুলোর। মাত্র গত মৌসুমেই রেকর্ড ১৩.৬ মিলিয়ন পাউন্ডের বিনিময়ে স্যান্দারল্যান্ডে যোগ দেওয়া এই ভদ্রলোক ফর্মে থাকলে লিগের অন্যতম ভয়ংকর ডিফেন্সিভ মিডফিল্ডার হতে পারেন।

  • লামিন কোনে

আইভোরিয়ান এই সেন্টারহাফ গত মৌসুমেই একবার স্যান্ডাল্যান্ডকে অবনমনের হাত থেকে বাঁচিয়েছিলেন, কিন্তু এবার আর পারলেন না। গতবার অসাধারণ সেসব পারফরম্যান্সের পর এভারটনের মত ক্লাব চেয়েছিল তাকে, তিনি নিজেও ছাড়তে চেয়েছিলেন ক্লাব, কিন্তু স্যান্ডারল্যান্ড ছাড়েনি তাকে। এবার না ছেড়ে উপায়ও নেই!

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

six + fourteen =