চাইনিজদের অধীনে প্রথম দলবদল মিলানের : বাজিমাতের ইঙ্গিত

ইতালির অন্যতম সফল ক্লাব এসি মিলানের মালিকানা আনুষ্ঠানিকভাবে হস্তান্তরিত হয়েছে চাইনিজদের হাতে কিছুদিন আগে। এরই মাধ্যমে সমাপ্তি ঘটেছে ক্লাবটির ইতিহাসে সফলতম প্রেসিডেন্ট সিলভিও বার্লুসকোনি পরিচালিত যুগের। চাইনিজ মালিকানার কাছে বিক্রি হওয়া এসি মিলানের মূল্য প্রায় এক বিলিয়ন ইউরো (৮৫০ মিলিয়ন), এমনটাই জানিয়েছেন সদ্য নিযুক্ত সিইও মার্কো ফ্যাসোনে।

তা যাই হোক না কেন, নতুন মালিকের অধীনে নবরূপে আবারো ইউরোপিয়ান পরাশক্তি হিসেবে নিজেদের প্রতিষ্ঠিত করবে তারা, এমনটাই আশা মিলান ভক্তদের। গত বেশ কয়েকটা দলবদলের বাজারে সেরকম সুপারস্টার কোন খেলোয়াড় না আনতে পারা মিলান তাই এবার নতুন মালিকের নতুন টাকার ঝনঝনানিতে আগেভাগেই নেমে পড়েছে দলবদলের বাজারে নিজেদের পছন্দের খেলোয়াড়টিকে বাগিয়ে নেওয়ার জন্য। এবং সে কাজে তারা এখন পর্যন্ত সফল, সেটা বলাই যায়!

নিজেদেরকে নতুনভাবে গড়ে তোলার দিকে নজর দিয়েছে তারা। ডিফেন্স ঢেলে সাজানোর জন্য স্প্যানিশ ক্লাব ভিয়ারিয়াল থেকে আর্জেন্টাইন সেন্ট্রাল ডিফেন্ডার মাতেও মুসাচ্চিওকে নিয়ে আসছে তারা। ভিয়ারিয়ালের হয়ে এই মৌসুমে ২৯ ম্যাচ খেলা এই ডিফেন্ডারের সাথে চার বছরের চুক্তি করতে যাচ্ছে মিলান, ট্রান্সফার ফি ১৮ মিলিয়ন ইউরো। ডিফেন্সে আটালান্টার আন্দ্রেয়া কন্তিকে আনার ব্যাপারেও আগ্রহ আছে মিলানের।

মাতেও মুসাচ্চিও

লেফটব্যাক হিসেবে বহুবছর ধরে মিলানে খেলা, পরবর্তী পাওলো মালদিনি নামে এককালে খ্যাত লেফটব্যাক মাত্তিয়া ডি শিলিও আর মিলানে থাকছেন না, জুভেন্টাস হতে পারে তার লক্ষ্য। তার জায়গায় মিলান লেফটব্যাক হিসেবে জার্মান ক্লাব ভলফসবুর্গ থেকে সুইস লেফটব্যাক রিকার্ডো রড্রিগেজকে নিয়ে আসছে। চার বছরের চুক্তিতে মোটামুটি ১৫ মিলিয়ন ইউরোর বিনিময়ে মিলানে নাম লেখাচ্ছেন এই কার্যকরী লেফটব্যাক। এই মৌসুম শেষ হলেই চুক্তির বাকী আনুষ্ঠানিকতাটুকু মিলান আর ভলফসবুর্গ সারবে বলে শোনা যাচ্ছে।

রিকার্ডো রড্রিগেজ

এদিকে সেন্ট্রাল মিডফিল্ডার হিসেবে এই মৌসুমের চমক আটালান্টা থেকে আইভোরিয়ান সেন্ট্রাল মিডফিল্ডার ফ্র্যাঙ্ক কেসি কে আনছে মিলান। ৫ বছরের চুক্তিতে ২৮ মিলিয়ন ইউরোর বিনিময়ে প্রতি বছরে ২.৫ মিলিয়ন ইউরোর পারিশ্রমিকের লোভ দেখিয়ে এএস রোমা আর চেলসির নাকের ডগা থেকে কেসিকে ছিনিয়ে আনছে তারা। ভলফসবুর্গের ব্রাজিলিয়ান সেন্ট্রাল মিডফিল্ডার লুইজ গুস্তাভোর দিকেও নজর আছে মিলানের, চেলসির স্প্যানিশ তারকা সেস ফ্যাব্রিগাসের দিকেও হাত বাড়াতে পারে তারা।

নতুন খেলোয়াড় আনার পাশাপাশি ক্লাবের যারা নিয়মিত ভালো পারফর্মার, তাদেরকেও নতুন চুক্তি দিয়ে পুরষ্কৃত করার চিন্তা করছে ক্লাবটি। যেমন তাদের সুপারস্টার ইতালিয়ান গোলরক্ষক জিয়ানলুইজি ডনারুমা। বাৎসরিক ৩-৩.৫ মিলিয়ন ইউরো পারিশ্রমিক দিয়ে পাঁচ বছরের চুক্তির অধীনে ডনারুমাকে আনতে চাইছে তারা, যিনি কিনা জুভেন্টাস, ম্যানচেস্টার সিটি, ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ও রিয়াল মাদ্রিদের মত ক্লাবের টার্গেট। জিয়ানলুইজি ডনারুমার এজেন্ট (যিনি কিনা মারিও বালোতেলি, জলাতান ইব্রাহিমোভিচের মত খেলোয়াড়েরও এজেন্ট) ইব্রাহিমোভিচের সাথে আমেরিকা থাকার কারণে এখনই ডনারুমার চুক্তি নবায়নের বিষয়টা শুরু করতে পারেনি মিলান।

ফ্র্যাঙ্ক কেসি

স্ট্রাইকার হিসেবে রিয়াল মাদ্রিদের স্প্যানিশ স্ট্রাইকার আলভারো মোরাতার দিকে নজর মিলানের। যদিও চেলসির মত ক্লাবের সাথে এখানে টেক্কা দিতে হবে তাদের, তবুও তারা আশাবাদী। বরুশিয়া ডর্টমুন্ডের গ্যাবনিজ স্ট্রাইকা পিয়েরে এমেরিক আউবামেয়াংকেও পছন্দ মিলান কোচ ভিনসেঞ্জো মন্টেলার, যদিও চাইনিজ সুপার লিগের ক্লাব তিয়ানজিং কুয়ানজিয়ান এরই মধ্যে বাৎসরিক ৫০ মিলিয়ন ইউরোর বিশাল পারিশ্রমিক দিয়ে আউবামেয়াংকে চিনে নিয়ে যাওয়ার পাঁয়তারা করছে!

দলবদলের বাজার ঠিকমত শুরুই হল না, কিন্তু এরই মধ্যে ফ্র্যাঙ্ক কেসি, রিকার্ডো রড্রিগেজ ও মাতেও মুসাচ্চিও প্রায় মিলানে এসে গেছেন, চাইনিজদের অধীনে মিলান তারমানে প্রথম দলবদলের বাজারে বাজিমাতই করছে বলা যায়!

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

14 + thirteen =