এগিয়ে কিন্তু মেয়েরাই!

ওয়ানডে ক্রিকেটের প্রথম ডাবল সেঞ্চুরিয়ান কে?

শচিন টেন্ডুলকার। ঝটপট উত্তর। সমস্যা হলো, উত্তরটি টেকনিক্যালি ভুল!

শচিনের এক যুগেরও বেশি আগে ১৫৫ বলে ২২৯ রানের অপরাজিত ইনিংস খেলেছেন অস্ট্রেলিয়ান ওপেনার বেলিন্ডা ক্লার্ক। সেই ১৯৯৭ সালের ডিসেম্বরে। বিশ্বকাপে, ডেনমার্কের বিপক্ষে মুম্বাইয়ে। পার্থক্য বলতে, শচিন করেছেন ছেলেদের ক্রিকেটে। ক্লার্ক মেয়েদের ক্রিকেট। এই তো। কিন্তু ওয়ানডে ক্রিকেটই তো!

আজকে প্রশ্ন করা যায়, ওয়ানডেতে উদ্বোধনী জুটিতেই ট্রিপল সেঞ্চুরি করেছে কোন জুটি?

জানা থাকলে নিমিষেই বলবেন। জানা না থাকলে দেখে-টেখে বলবেন, প্রশ্নই ভুল! ওয়ানডেতে তিনশ রানের ওপেনিং জুটিই তো নেই। জয়াসুরিয়া-থারাঙ্গার ২৮৬ রানের জুটিই সর্বোচ্চে…!

আবারও টেকনিক্যালি ভুল…!

আজকেই ৩২০ রানের উদ্বোধনী জুটি গড়েছেন ভারতের দিপ্তি শর্মা ও পুনম রাউত। দক্ষিণ আফ্রিকায়, চার দেশীয় টুর্নামেন্টে, আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে। ডাবল সেঞ্চুরির মত ক্রিকেটের এই জায়গাটিতেও ছেলেদের ছাড়িয়ে গেল মেয়েরা।

১৬০ বলে ১৮৮ রান করেছেন দিপ্তি। ক্লার্কের সেই ২২৯ রানের পর মেয়েদের ওয়ানডেতে এই প্রথম ডাবল সেঞ্চুরির এত কাছে গেল আর কেউ। ডাবলের হাতছানি ছিল, ৪৬তম ওভারে আউট হয়েছেন। ১২৬ বলে সেঞ্চুরি স্পর্শ করেছিলেন। পরের ৩৪ বলে করেছেন ৮৮ রান! বয়স মাত্র ১৯।

ইনিংসে ২৭টি চার মেরেছেন দিপ্তি। যেটিও রেকর্ড। ক্লার্কের ২২ চার ছিল আগের রেকর্ড। ছেলেদের ওয়ানডেতেও দিপ্তির ২৭ চারের চেয়ে বেশি আছে কেবল একজনের। রোহিত শর্মার ৩৩ বাউন্ডারি।

দিপ্তির আউটেই ভেঙেছে জুটি। ওই ওভারেই ১০৯ রান করে রিটায়ার্ড হার্ট পুনম রাউত। দুজনেরই প্রথম ওয়ানডে সেঞ্চুরি।

৩৫৮ রান তুলে ভারত ম্যাচ জিতেছে ২৪৯ রানে। জয়-পরাজয়ের ব্যবধানে আঁতকে উঠতে পারেন। তবে মেয়েদের ক্রিকেটে এমন ব্যবধান নতুন নয়। নিউ জিল্যান্ডের কাছে ৪০৮ রানে হেরেছিল পাকিস্তানের মেয়েরা, অস্ট্রেলিয়ার কাছে ৩৭৪ রানে।

ওয়ানডেতে মেয়েরা চারশ রানও তুলেছে ছেলেদের অনেক আগে। সেই ১৯৯৭ সালেই।

(আমাদের মেয়েরা ওয়ানডে খেলেছে ৩০টি। সর্বোচ্চ ইনিংস সালমা খাতুন ও রুমানা আহমেদের ৭৫। ওয়ানডেতে আমাদের সবচেয়ে বেশি রান (৬৪৯) ও উইকেট (৩৪), সর্বোচ্চ ইনিংস (৭৫) ও সেরা বোলিং (৪/২০), সবই রুমানার….)

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

thirteen − seven =