যেমন হল ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের মাঝমাঠ

টম ক্লেভারলি, অ্যান্ডরসন, ইঞ্জুরি ফেরত ড্যারান ফ্লেচার থেকে মরগান স্নাইডারলিন, বাস্তিয়ান শোয়াইনস্টাইগার, অ্যান্ডার হেরেইরা, মারওয়ান ফেলাইনি সাথে মাইকেল ক্যারিক স্যার অ্যালেক্স ফারগুসনের শেষ মৌসুম থেকে আজাকের লুই ভ্যান গালের ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের মাঝমাঠকে ঠিক চেনা যায় না। টম ক্লেভারলির সাথে মাইকেল ক্যারিককে নিয়ে প্রিমিয়ার লিগ সব ম্যানেজার জেতাতে পারেননা। ক্লেভারলি ইউনাইটেড বয়সভিত্তিক দল থেকে উঠে আসা খেলোয়াড়। মাইকেল ক্যারিকের পাসিং এবং মানসিক দক্ষতা নিয়ে প্রশ্ন করার কোন প্রশ্ন নেই। তবুও ডেভিড ময়েসের এক বছর দলের মাঝমাঠের অসহায় অবস্থা বার বার চোখে পড়েছে। ফেলাইলিকে বড় অঙ্ক দিয়ে দলে এসে খুব একটা জুত করতে পারেননি। তারপর দলের হালে লুই ভ্যান গাল। গত মৌসুমে শেষ চারে নিজেদের জায়গা পাকাপাকি করার পড় ভ্যান গাল দলের মাঝমাঠকে আরও শক্তিশালী করেছেন। দলে এনেছেন বাস্তিয়ান শোয়ানস্টাইগার এবং মরগান স্নাইডারলিনদের। প্রশ্ন হল এরা দুই জন কিভাবে দলের ভুমিকা রাখতে পারেন।
প্রথমে আশা যাক মরগান স্নাইডারলিনের কথায়। সাউথহ্যামটনের অধিনায়ক হিসাবে অসাধারন মৌসুম পার করেছিলেন তিনি। ডিফেন্সিভ মিডফিল্ড পজিশনে নিজের সেরা খেলোয়াড়ি দেওয়ার সাথে সাথে তিনি নিজকে প্রিমিয়ার লিগের এমনকি ইউরোপের সেরা হিসাবে প্রমাণ করে দেখিয়েছেন। ইউনাইটেডের মাঝমাঠে তিনিই হতে পারেন সেরা ট্রান্সফার। প্রি সিজনের খেলাগুলোতে তার পারফর্ম ছিল দেখার মতন। সামনে তিনি মাইকেল ক্যারিকের জায়গাটা নিজের করে নেবেন। এরপর আসা যাক বাস্তিয়ান শোয়াইনস্টাইগারের দিকে। সম্প্রতি পেপ গারদিওালা বায়ার্ন থেকে শোয়াইনিকে বিদায় করে বলেছেন বাস্তিয়ান নাকি গত দুই বছর ধরে ফিট নন। বায়ার্নকে স্প্যানিশ ভাষাভাষীর অভয়াস্রম করা পেপের কথা কতটা সত্য মিথ্যা জানা যায় না তবে এই সময় বাস্তিয়ান ক্লাব এবং জাতীয় দলের হয়ে চ্যাম্পিয়ান্স লিগ এবং বিশ্বকাপ জিতেছেন। বা পায়ের ইঞ্জুরিটা তাকে ভুগিয়েছে বেশ তবে তার মাপের খেলোয়াড় ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের খেলার মান বাড়াবে বই কমাবে নাহ। অন্য দিকে লুই ভ্যান গালের সাথে আগে কাজ করার অভিজ্ঞতা দলের জন্যই ভাল হবে।
এছাড়া হেরাইরা,মাটা, ফেলাইলিকে নিয়ে গড়া এই মাঝমাঠ সময়ের অন্যতম সেরা হিসাবে বিবেচনা করা যায়। আদনান ইয়ানুজায় কিনবা জেসে লিনগার্ডরা দলের মাঝমাঠকে দিয়েছে তরুণ উদ্দীপনা। ব্রাজিলিয়ান পেরেইরা সম্প্রতি সবার নজর কেড়েছেন। অনূর্ধ্ব ২১ দলের হয়ে তার প্লে-মেকার ভুমিকা ছিল দেখার মতন।তাই নতুন খেলোয়াড়দের নিয়ে কোচ লুই ভ্যান গাল নতুন কিছুই করবেন বলে আশা করা যায়।

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

4 × four =