গর্জে উঠবে আমাদের টাইগাররা আবার

কায়েস ক্যাচ মিস করলো! বাংলাদেশ ম্যাচ হারলো! আসেন এইবার ধোলাই করি কায়েসকে। ওকে দল থেকে বাদ দেবার দাবী জানাই। ভুলে যাই প্রথম ওয়ানডে তে শুরুতে ওর একক চেষ্টাতেই আমরা জয়েও এতো কাছে গিয়েছিলাম। ভুলে যাই পায়ে টান খেয়েও কায়েস আশা ছাড়ে নি, লড়াই করে গিয়েছিল শেষ পর্যন্ত। চলুন ভুলে যাই সব।

আজকে মিরপুর ১ থেকে লেগুনাতে বাসায় আসার পথে শুনলাম একজন বলছে, “সাকিব আর মুশফিককে কিছুদিন দলের বাইরে রাখা উচিত। ওরা খেলা পারে না!” আমার তড়িৎ জবাব, “দলের সবচেয়ে সিনিয়র প্লেয়ারদেরকে বসিয়ে রেখে আপনি ম্যাচ জিততে চান? আপনার অবজারভেসন খুব ভালো দেখা যাচ্ছে!’ এরপর ওই লোক আর কিছু বলল না, যদি আমি আশা করেছিলাম সে তার বক্তব্যের সমর্থনে আরো কিছু বলবে আর আমি তাকে আরো একটু ভালো করে ধুব, কিন্তু হল না।

বড় ম্যাচে শুধু ভালো খেললেই হয় না, ভাগ্যের সহায়তাও লাগে। আমাদের টাইগাররা আজ সেটা পায়নি। কিন্তু শেষ পর্যন্ত লড়াই করা, এইতো বড় দলের লক্ষণ।

অনেকদিন পর দেখলাম মুশফিককে আগের মত দায়িত্ব নিয়ে খেলতে। ভালো লাগলো যে সে তার ভুল থেকে শিখেছে। অথচ এই মুশফিককে আমরা চাইছিলাম বসিয়ে দেয়া হোক। সত্যি সেলুকাস!

আজ দলে ২টা সাব্বির রহমান দেখলাম। দ্বিতীয়জন হল মোসাদ্দেক। বাংলাদেশ ক্রিকেটের ভবিষ্যৎ কান্ডারি!

২০১৫ ওয়ার্ল্ড কাপের পর ইংল্যান্ড দলে বিরাট পরিবর্তন এসেছে, ওরা এখন খেলছে ভয়-ডরহীন ক্রিকেট। গত এক বছরে ওরা ১৫ বার ৩০০ এর উপর রান করেছে, যার মাঝে ২ বার ছিল ৪০০+ স্কোর। সেই দল প্রথম ম্যাচ করলো ৩১০, দ্বিতীয় ম্যাচে ২০২, আর আজকের ম্যাচে ২৭৮ রান চেজ করতেই ওদের গলদঘর্ম অবস্থা। এইতো আমাদের প্রাপ্তি। আমরা এখন মাঠ ও মাঠের বাইরে সব যায়গাতেই চ্যালেঞ্জ করি, গলা উঁচু করে কথা বলি। এইতো আমার বিশ্বচ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশ!

তবে এখানেই শেষ হয়। দারুন অভিজ্ঞতার এই সিরিজে আমাদের সামনে এনে দিয়েছে নিজেদের ভুলগুলো শোধরাবার সুযোগ। আমরা ফিরে পেলাম আমাদের পুরোনো মুশফিক আর নাসিরকে, আবিস্কার করলাম মোসাদ্দেককে। আমাদের জয়রথ এখানেই এসে থেমে যাবে না, গর্জে উঠবে আমাদের টাইগাররা আবার।

#BANvsENG
#RiseOfTheTigers

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

seven − four =