কোলিবালি/মাকসিমোভিচ – কে আসছেন চেলসির ডিফেন্সে?

একজন স্ট্রাইকারকে পাওয়ার জন্য হন্য হয়ে ছুটছে ওয়েস্টব্রম। লিভারপুলের বেলজিয়ান স্ট্রাইকার ক্রিস্টিয়ান বেনটেকেকে পাওয়ার জন্য মোট ৩০ মিলিয়ন পাউন্ডের একটা প্রস্তাব রেখেছে তারা, ২৩ মিলিয়ন পাউন্ড মূল ট্রান্সফার ফি আর বাকী ৭ মিলিয়ন বিভিন্ন অন্যান্য ফি বাবদ, কিন্তু লিভারপুল সেই প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেছে, তাঁরা ৩২.৫ মিলিয়ন পাউন্ডের এক পয়সাও কম নিতে রাজী না। এদিকে দ্বিতীয় পছন্দ হিসেবে স্পোর্টিং লিসবনের আলজেরিয়ান স্ট্রাইকার ইসলাম স্লিমানিকেও পছন্দ করে রেখেছে ওয়েস্টব্রম, লিসবনের হয়ে ১০৭ ম্যাচ খেলে মোট ৫৬ গোল করা স্লিমানির পেছনে আপাতত ২১ মিলিয়ন পাউন্ড পর্যন্ত খরচ করতে ইচ্ছুক তারা। এদিকে কোন স্ট্রাইকার না আসলে ওয়েস্টব্রম ছেড়ে কোথাও যেতেও পারছেন না তরুণ ইংলিশ স্ট্রাইকার সাইদো বেরাহিনো, ক্রিস্টাল প্যালেস কিংবা স্টোক সিটির আগ্রহ থাকা সত্বেও। এদিকে লেস্টার সিটির ঘানাইয়ান উইংব্যাক জেফ শ্লাপের পিছেও লেগে আছে ওয়েস্টব্রম।

গার্দিওলার পছন্দের তালিকায় না থাকার কারণে এই দলবদলের বাজারেই ম্যানচেস্টার সিটি ছাড়ছেন ইংলিশ গোলরক্ষক জ্যো হার্ট। তাঁকে পাওয়ার ব্যাপারে আপাতত আগ্রহ দেখিয়েছে স্প্যানিশ ক্লাব সেভিয়া ও ইংলিশ ক্লাব এভারটন। হার্টের জায়গায় বার্সেলোনা থেকে ১৭ মিলিয়ন পাউন্ডের বিনিময়ে আনা হচ্ছে চিলিয়ান গোলরক্ষক ক্লদিও ব্রাভো কে। গোলরক্ষক পজিশন নিয়ে মোটামুটি চিন্তায় আছে চেলসিও। কোচ আন্তোনিও কন্তে দলে আনতে চান এসি মিলানের স্প্যানিশ গোলরক্ষক ডিয়েগো লোপেজকে। শুধু গোলবারের পেছনেই না, কন্তের দুশ্চিন্তা দলের ডিফেন্স নিয়েও। একটা সেন্টারব্যাক পাওয়ার জন্য অনেকদিন ধরেই চেষ্টা করে যাচ্ছেন তিনি, আর এক্ষেত্রে তাঁর পছন্দ নাপোলির ফরাসী সেন্টারব্যাক কালিদু কোলিবালিকে, যাকে পাওয়ার জন্য ৪৩ মিলিয়ন পাউন্ড পর্যন্ত খরচ করতে রাজী চেলসি। কোলিবালি ছাড়াও আন্তোনিও কন্তে চাচ্ছেন তোরিনোর সার্বিয়ান সেন্টারব্যাক নিকোলা মাকসিমোভিচকে। মাকসিমোভিচের পেছনে চেলসি ছাড়াও আগ্রহী হয়েছে ওয়েস্ট হ্যাম ইউনাইটেড।

এদিকে ক্লাবের ডিফেন্ডারদের ক্রমাগত ইনজুরি ও ভালো ডিফেন্সিভ মিডফিল্ডার না থাকার কারণে ও আপাতত নতুন অন্য কোন ডিফেন্সিভ মিডফিল্ডার ক্লাবে না আসার কারণে ব্রাজিলিয়ান মিডফিল্ডার লুকাস লেইভাকে ক্লাব ছাড়তে দিচ্ছেন না লিভারপুল কোচ ইয়ুর্গেন ক্লপ।

এদিকে নতুন চাইনিজ মালিকদের টাকায় নিজেদের ঢেলে সাজাতে চাইছে এসি মিলান, কোচ ভিনসেঞ্জো মন্টেলার অধীনে। ম্যানচেস্টার সিটির ব্রাজিলিয়ান ডিফেন্সিভ মিডফিল্ডার ফার্নান্দো, বোলোনিয়ার গিনিয়ান মিডফিল্ডার আমাদু দিয়াওয়ারাকে দলে টানার ব্যাপারে আগ্রহী তাঁরা। আর বেসিকতাস থেকে দুই বছরের চুক্তিতে ৭.৫ মিলিয়ন ইউরোর বিনিময়ে আর্জেন্টাইন মিডফিল্ডার হোসে সোসার মিলানে যোগ দেওয়া ত একরকম নিশ্চিতই বলা চলে।

বসে নেই মিলানের অন্যান্য সিরি আ এর শত্রুরাও। আন্তোনিও কানদ্রেভার একজন রিপ্লেসমেন্ট পাওয়ার জন্য হন্য হয়ে আছে লাজিও, তাদের পছন্দ মোনাকোর মরোক্কান উইঙ্গার নাবিল দিরার, আর অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদের অ্যালেসসিও সার্সির মধ্যে যেকোন একজন। নাপোলি শক্তিশালী করতে চাচ্ছে ডিফেন্স, দলে আনতে চাচ্ছে জুভেন্টাসের উরুগুইয়ান ফুলব্যাক মার্টিন ক্যাসেরেস ও জেনিতের ইতালিয়ান ফুলব্যাক ডমেনিকো ক্রিসিতোকে। পল পগবার জায়গায় একজন সেন্ট্রাল মিডফিল্ডার আনার জন্য অনেক তৎপর জুভেন্টাস, তাদের পছন্দ প্যারিস সেইন্ট জার্মেইয়ের ফরাসী মিডফিল্ডার ব্লেইজ মাতুইদি, ইন্টার মিলানের ক্রোয়েশিয়ান মিডফিল্ডার মার্সেলো ব্রোজোভিচ ও লাজিওর আর্জেন্টাইন মিডফিল্ডার লুকাস বিলিয়া। মাতুইদির পেছনে ২৪ মিলিয়ন ইউরো পর্যন্ত খরচ করতে রাজী জুভ রা। সেন্ট্রাল মিডফিল্ড ছাড়াও উইং পজিশানেও শক্তিশালী হতে চায় জুভেন্টাস, দলে রেখে দিতে চায় গত মৌসুমে চেলসি থেকে ধারে খেলে যাওয়া কলম্বিয়ান উইংব্যাক হুয়ান কুয়াড্রাডোকে। ৩-৪ মিলিয়ন ইউরোর বিনিময়ে আবারো কুয়াড্রাডোকে চেলসি থেকে ধারে পেতে চায় তাঁরা। আর ইন্টার মিলান দলে পেতে যাচ্ছে পর্তুগিজ মিডফিল্ডার হোয়াও মারিওকে।

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

one × 2 =