ওয়েস্টহ্যাম ও তাঁদের পোড়া স্ট্রাইকার-ভাগ্য

ওয়েস্টহ্যামের বর্তমান মালিকপক্ষ লণ্ডনী ক্লাবটার দায়িত্ব নিয়েছিলেন ২০১০ সালের দিকে। ডেভিড সুলিভা ও ডেভিড গোল্ডের আমলে এই সাত বছরে প্রিমিয়ার লিগ থেকে একবার অবনমিত হয়েছে হ্যামার্সরা, একবার উন্নীত হয়েছে। দলে এসেছেন অনেক খেলোয়াড়, কেউ হিট করেছেন, কেউ করেছেন ফ্লপ। ভ্যালন বেহরামি, রবি কিন, অ্যালেসান্দ্রো দিয়ামান্তি, ইয়োসি বেনাইয়ুন, অ্যালিউ দিয়ারা, জ্যো কোল, স্টুয়ার্ট ডাউনিং, অ্যান্ডি ক্যারল, মার্কো বরিয়েল্লো, আন্তোনিও নচেরিনো, অ্যালেক্সান্দার সং, দিমিত্রি পায়েত, বেনি ম্যাকার্থিদের মত বিভিন্ন লিগের ভালো ভালো পারফর্মাররা ওয়েস্টহ্যামে এসে খেলে গেছেন কিংবা খেলছেন। কিন্তু অন্যান্য পজিশানে ওয়েস্টহ্যাম ভালো পারফর্মার পেলেও এই সাত বছরে একটা ভালো স্ট্রাইকার পাওয়াটা যেন সোনার হরিণ হয়ে গিয়েছে ওয়েস্ট হ্যামের জন্য। এই সাত বছরে মোটমাট ৩৩ টা স্ট্রাইকারকে হয় ধারে নাহয় পুরোপুরি কিনে দলে নিয়ে এসেছে তারা, কিন্তু তাঁদের মধ্যে বলতে গেলে কেউই একেবারে সফল যে হয়েছেন সেটা বলা যাবেনা। গোল্ড-সুলিভান যুগের ৩৩ তম স্ট্রাইকার হিসেবে গতকাল বেয়ার লেভারক্যুজেন থেকে ১৬ মিলিয়ন পাউন্ডের বিনিময়ে দলে এসেছেন ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের সাবেক মেক্সিকান স্ট্রাইকার হ্যাভিয়ের চিচারিতো হার্নান্দেজ। তাঁর আগের ৩২ জনের ওয়েস্টহ্যাম ভাগ্যে কি হয়েছিল? দেখে নেওয়া যাক!

  • বেনি ম্যাকার্থি – দক্ষিণ আফ্রিকান এই স্ট্রাইকার ব্ল্যাকবার্ন রোভার্সের হয়ে নজর কাড়ার পর ২.২ মিলিয়ন পাউন্ডের চুক্তিতে যোগ দেন ওয়েস্টহ্যামে। সাবেক এই পোর্তো স্ট্রাইকার ১৪ ম্যাচ খেলে গোল করতে পারেননি একটিও। ম্যাচপ্রতি গোল ০.০০।
  • মিডো – মিশরীয় এই স্ট্রাইকার মিডলসব্রো থেকে ধারে ওয়েস্টহ্যাম যোগ দিয়ে ৯ ম্যাচে গোল করতে পারেননি একটিও। খেলেছেন রোমা ও টটেনহ্যামের হয়েও। ম্যাচপ্রতি গোল ০.০০।
  • পল ম্যাককালাম – ডালউইচ হ্যামলেট থেকে ৬৪,০০০ পাউন্ডে দলে আসা এই স্ট্রাইকার ম্যাচই খেলতে পারেননি কোন। ম্যাচপ্রতি গোলও তাই ০.০০।
  • ব্রায়ান মন্টিনিগ্রো – দেপোর্তিভো মালদোনাদো থেকে ধারে আসা এই স্ট্রাইকার এক ম্যাচ খেলে থেকেছেন গোলশূণ্য। ম্যাচপ্রতি গোল ০.০০।
  • শন ম্যাগুইরে – ওয়াটারফোর্ড ইউনাইটেড থেকে ওয়েস্ট হ্যামে আসা এই স্ট্রাইকার খেলতে পারেননি একটা ম্যাচও। ম্যাচপ্রতি গোল ০.০০।
  • ওয়েলিংটন পলিস্তা – ব্রাজিলিয়ান এই স্ট্রাইকার ক্রুইজেইরো থেকে খামোকাই ধারে এসেছিলেন, খেলতে পারেননি একটা ম্যাচেও, ম্যাচপ্রতি গোল ০.০০।
  • মারুয়ান শামাখ – মরোক্কান এই স্ট্রাইকার আর্সেনাল থেকে ধারে এসে ৩ ম্যাচ খেলে থেকেছেন গোলশূণ্য, ম্যাচপ্রতি গোল ০.০০।
  • ড্যানি হোয়াইটহেড – স্টকপোর্ট কাউন্টি থেকে দলে আসা এই স্ট্রাইকার ১ ম্যাচ খেলে থেকেছেন গোলশূণ্য। ম্যাচপ্রতি গোল ০.০০।
  • ম্লাদেন পেত্রিচ – সুইস লিগ ও জার্মান বুন্দেসলিগায় বাসেল, ডর্টমুন্ড, হ্যামবুর্গের হয়ে গোলের বন্যা ছোটানো এই স্ট্রাইকার ফ্রি তে ওয়েস্টহ্যামে এসে ৪ ম্যাচ খেলে গোল করা ভুলে গিয়েছিলেন, ম্যাচপ্রতি গোল ০.০০।
  • মার্কো বরিয়েল্লো – রোমা থেকে ধারে এসে এই ইতালিয়ান স্ট্রাইকার ২ ম্যাচ খেলে গোলের খাতা খুলতে পারেননি। ম্যাচপ্রতি গোল ০.০০।
  • জানাই গর্ডন – পিটারবরো থেকে দলে আসা এই স্ট্রাইকার এক ম্যাচও খেলতে পারেননি। ম্যাচপ্রতি গোল ০.০০।
  • সিমিওনে জাজা – জুভেন্টাস থেকে ধারে এসে ১১ ম্যাচ খেলে গোল করতে পারেননি একটিও। ম্যাচপ্রতি গোল ০.০০। বিশাল ফ্লপ।
  • জোনাথান ক্যালেরি – ব্রাজিলিয়ান ক্লাব সাও পাওলো থেকে ধারে আসা এই আর্জেন্টাইন স্ট্রাইকার ৯ ম্যাচ খেলে থেকেছেন গোলশূণ্য। ম্যাচপ্রতি গোল ০.০০।
  • আন্তোনিও মার্টিনেজ – ২.৪ মিলিয়ন পাউন্ডে দলে আসা এই স্ট্রাইকার খেলতে পারেননি একটা ম্যাচেও। ম্যাচপ্রতি গোল ০.০০।
  • অ্যাশলি ফ্লেচার – ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড থেকে ফ্রি তে আসা এই স্ট্রাইকার ১৬ ম্যাচ খেলে করেছেন এক গোল। ম্যাচপ্রতি গোল ০.০৬২৫।
  • রবি কিন – কিংবদন্তী এই আইরিশ স্ট্রাইকার লস অ্যাঞ্জেলস গ্যালাক্সি থেকে ধারে এসে ১০ ম্যাচ খেলে গোল করেছিলেন ২টি, ম্যাচপ্রতি গোল ০.২০।
  • জন ক্যারিউ – রোমা, অ্যাস্টন ভিলা, ফেনারবাচের হয়ে খেলা এই নরওয়েজিয়ান স্ট্রাইকার ২১ ম্যাচ খেলে করেছিলেন দুটি গোল। ম্যাচপ্রতি গোল ০.০১।
  • নিকিচা ইয়েলাভিচ – হাল সিটি থেকে থেকে ২.৮ মিলিয়ন পাউন্ডে দলে আসা এই ক্রোয়েশিয়ান স্ট্রাইকার ১৫ ম্যাচ খেলে গোল করেছেন ২টি, ম্যাচপ্রতি গোল ০.১৩।
  • ইম্যানুয়েল এমেনিকে – ১৬ ম্যাচ খেলেছেন ধারে আসা এই নাইজেরিয়ান স্ট্রাইকার, গোল করেছেন দুটি। ম্যাচপ্রতি গোল ০.১২৫।
  • নিকি মেনার্ড – ব্রিস্টল সিটি থেকে ১.৭ পাউন্ডে দলে আসা এই ইংলিশ স্ট্রাইকার ১৭ ম্যাচ খেলে গোল করেছেন ৩টি। ম্যাচপ্রতি গোল ০.১৮।
  • ইলান – ব্রাজিলিয়ান এই স্ট্রাইকার ১১ ম্যাচে ৪ গোল করেন, ম্যাচপ্রতি গোল ০.৩৬।
  • ফ্রেডি পিকিওনে – ৬২ ম্যাচে ১১ গোল করা এই ফরাসী স্ট্রাইকারের ম্যাচপ্রতি গোল ০.১৭।
  • ভিক্টর ওবিন্না – নাইজেরিয়ান এই স্ট্রাইকার ওয়েস্টহ্যামে ধারে এসে ৩২ ম্যাচ খেলে করেছেন ৮ গোল, ম্যাচপ্রতি গোল ০.২৫।
  • দেম্বা বা – নাইজেরিয়ান এই স্ট্রাইকার ১৩ ম্যাচে করেছেন ৭ গোল, ওয়েস্টহ্যামের অন্যতম সফল স্ট্রাইকার এই সময়ে, ম্যাচপ্রতি গোল ০.৫৪।
  • স্যাম বালদক – ২৪ ম্যাচ খেলে ৫ গোল করা এই স্ট্রাইকার ওয়েস্টহ্যামে যোগ দিয়েছিলেন ২.৪ মিলিয়ন পাউন্ড এর বিনিময়ে। ম্যাচপ্রতি গোল ০.২১।
  • মোদিবো মাইগা – ৪৫ ম্যাচ খেলে মাত্র ৮ গোল করতে পারা এই স্ট্রাইকারকে আনা হয়েছিল ৪.৫ মিলিয়ন পাউন্ডের বিনিময়ে। ম্যাচপ্রতি গোল ০.১৮।
  • মাউরো জারাতে – এই আর্জেন্টাইন স্ট্রাইকার ২৯ ম্যাচ খেলে করেছেন ৭ গোল, পরে চলে গেছেন ফিওরেন্টিনাতে। ম্যাচপ্রতি গোল ০.২৪।
  • এনার ভ্যালেন্সিয়া – ইকুয়েডরের হয়ে ২০১৪ বিশ্বকাপে নজরকাড়া পারফরম্যান্সের সুবাদে যোগ দিয়েছিলেন ওয়েস্টহ্যামে, ৬৮ ম্যাচে করেছেন মাত্র দশটা গোল। ম্যাচপ্রতি গোল ০.১৪৭।
  • দিয়াফ্রা সাখো – মেতজ থেকে ৩.৫ মিলিয়ন পাউন্ডের বিনিময়ে দলে আসা এই স্ট্রাইকার ৫২ ম্যাচ গোল করেছেন ২০টি। সফলই বলা চলে কোনরকমে। ম্যাচপ্রতি গোল ০.৩৮।
  • কার্লটন কোল – ওয়েস্টহ্যামের হয়ে দ্বিতীয় দফায় ৫৭ ম্যাচে ১০ গোল করেছিলেন এই ইংলিশ স্ট্রাইকার, ম্যাচপ্রতি গোল ০.১৭৫।
  • অ্যান্ডি ক্যারল – ওয়েস্টহ্যামের হয়ে মোটমাট এখনও পর্যন্ত ৯৬ ম্যাচ খেলা এই ইংলিশ স্ট্রাইকার গোল করেছেন তিরিশটার মত। ম্যাচপ্রতি গোল ০.৩১৩।
  • হাভিয়ের চিচারিতো হার্নান্দেজ – ?

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

four × 4 =