ওয়েস্টব্রমের সাথে হার এবং ৫টি উপসংহার

নিজেদের মাঠ ওল্ড ট্রাফোর্ডে টানা দুই সিজন ধরে ওয়েস্ট ব্রমের সাথে হেরে বসলো ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। “ডেভিড ময়েস থেকে লুই ভ্যান গাল” কিন্তু কেন ইউনাইটেডের ব্যাগিস ফাড়া আর কাটল না। গত সিজন থেকে এবার পরিস্থিতি ভিন্ন ছিল কিন্তু চ্যাম্পিয়ন্স লিগে নিজের ফিরিয়ে আনতে হলে ডাচ জাদুকর লুই ভ্যান গালকে নিজের দল নিয়ে আরও ভাবতে হবে। এখানে ৫টি বিষয় আলোচনা করা হল যেগুলো গত ম্যাচে হারের কারণ হতে পারে।
 ফুটবলে পজিশন সব কিছুই নয়। চেলসির সাথে হারের পর লুই ভ্যান গাল দলের পারফর্মেন্সকে মৌসুমের সেরা বলেছিলেন। তবে ফুটবল খেলায় বল দখলের পরিসংখ্যান যে তেমন কাজে লাগে না সেটা ম্যানচেষ্টার ইউনাইটেডের গত ম্যাচ দেখেই বোঝা গেল। ৮০ শতাংশের কাছাকাছি বল নিয়ন্ত্রণ রেখেও গোল না দিতে পারা কিংবা নিজেদের মাঝে পাশাপাশি পাস প্রতিপক্ষকে কেবল সময় নষ্ট করতে সাহায্য করেছে। ম্যাচে সেটা কোন ভূমিকা রাখেনি। অন্যদিকে ফল নির্ভর খেলে চেলসি প্রিমিয়ার লিগ শিরোপা ঘরে তুলেছে।
 ভ্যান পার্সি দলের মিডফিল্ডার নন কিংবা ফেলাইনি নন স্ট্রাইকার।“লং বল” তত্ত কিন্তু আসলে তেমন কাজে লাগছে না। ম্যচ শেষে গ্যারি নেভিল চোখে অঙ্গুল তুলে দেখিয়েছেন দলের সব খেলোয়াড়কে নিজেদের স্বভাবসুলভ পজিশনে খেলছিলেন না। গুরুত্তপুর্ণ ম্যচে নিজ পজিশনে খেলোয়াড়দের না খেলানোয় ভ্যান গালের সমালোচনা করেন ক্লাস অফ ৯২’র এই সদস্য।তবে এই ব্যাপারটা গত ম্যচে প্রথম ছিল না। দলের পিচ ম্যাপ দেখে বলা যায় গত ম্যাচে মারওয়ান ফেলাইনি রবিন ভ্যান পারসির থেকে সামনে খেলেছেন, বিশেষ করে দ্বিতীয় ভাবে। হুয়ান মাতা, ওয়েন রুনি প্রত্যেকেই নিজদের সেরা পজিশনে না খেলে অন্য পজিশনে খেলছেন। দলকে ভোগাবার জন্য যা যথেষ্ট।
 মাইকেল ক্যারিক !!!! ম্যানচেষ্টার ইউনাইটেডের সবচেয় গুরুত্বপূর্ণ খেলোয়াড় এখন, গোলকিপার ডি গেয়ার থেকেও। “মাঠের ম্যানেজার ক্যারিক”, মন্তব্যটা ম্যান ইউ কোচ ভ্যান গালের। দুই সেন্টার ব্যাকের সামনে দাঁড়িয়ে খেলা নিয়ন্ত্রণ করার কাজটা ভালই করতে জানেন ক্যারিক। তার অনুপস্থিতি দলকে ভালই ভোগাচ্ছে। তবে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের মতন দলের একজন খেলোয়াড়দের উপর এত বেশী নির্ভর করাটা তাদের দলের সক্ষমতা নিয়ে প্রশ্ন তুলতে বাধ্য করে। তাছাড়া আন্ডার হেরেইরা লা লিগার ডিফেন্সিভ মিডফিল্ডার হতে পারেন তবে প্রিমিয়ার লিগের নন । এই বিসয়ে তেমন কোন প্রশ্ন আর নেই। এছারা ৩৪ বছরের ক্যারিকের উপর নির্ভরশীলতা কমানো ইউনাইটেডের জন্য খুব বেশী প্রয়োজন। ইকায় গুন্দগানডের দলে না ভেড়ানো গেলে বেন পিয়ারসন কিংবা ফসু মেনসাহদের মূল দলে না খেলানোর কোন কারণ নেই। অন্তত একাডেমীর খেলোয়াড় না খেলালে একডেমি রাখার কি দরকার ????
 রিয়াল মাদ্রিদ থেকে নিয়ে আসা আর্জেন্টাইন সুপারস্টার অ্যাঞ্জেল ডি মারিয়া প্রিমিয়ার লিগে নিজেকে মানিয়ে নিতে পাড়ছেন না কোনভাবেই – কথাটার সাথে মোটামটি এখন অনেকই একমত হবেন তবে ইনজুরিটে পাড়ার আগে ডি মারিয়া নিজের জাত চিনিইয়েছিলেন প্রিমিয়ার লিগে। তাছাড়া ভিন্ন ভিন্ন পজিশনে খেলে নিজের আসল এক্স ফ্যাক্টরটা দাঁড়িয়ে ফেলছেন বলে অনেকে ধারণা করছেন। ডাইমন্ড ফরমেটে ডি মারিয়া কতটা আসহায় সেটা আর বলে দিতে হয় না। তাছাড়া ৩-৫-২ ফর্মেসনে রুনি বা ভ্যান পার্সির অথবা ফ্যালকাওকে নিয়ে স্ট্রাইকার পজিশনে বিশ্বকাপে রোবেনের ডামি হতে পারছেন না ভ্যান গালের ডি মারিয়া। ম্যানেজার লুই ভ্যান গালকে দ্রুত ব্যাবস্থা নিতে হবে যেন ডি মারিয়া নিজেকে মানিয়ে নিতে পারেন। ৫৭ মিলিয়ন কিন্তু অনেক বড় দর!!!
 রাদামেল ফ্যালকাওয়ের দিন ফুরিয়ে এসেছে উত্তর ব্রিটেনে,এই বিষয়ে কোন সন্দেহ নেই। জেমেস উইলসন, উইল কিন’ডের মতন খেলোয়াড়রা যেমন নিজেদের জাত চেনাচ্ছেন অনূর্ধ্ব-২১ দলে অন্যদিকে হ্যাভিয়ার হার্নান্দেজ অথবা অ্যাঞ্জেলো হ্যানরিকেজ’রা লোনে অন্য দলের গোল খরা মেটাচ্ছেন। ভ্যান পার্সি কিংবা রাদামেল ফ্যালকাওদের তাই নিজেদের আকাশ ছোঁয়া বেতনের যথার্থতা প্রমান করার সময় এখনই।
চ্যাম্পিয়ন লিগে খেলার জন্য আবার “ইঁদুর দৌড়” ফেরে এসেছে তাই ম্যানচেষ্টার ইউনাইটেডের সময় এসেছে নিজেদের সেরা খেলা দেখানোর। অন্তত সামনের ৩ ম্যচে কিছু করে দেখাতে হলে নিজেদের সেরা খেলা দেখাতে হবে রেড ডেভিলদের west brom

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

four × three =