কি ভাবছেন এখন স্টেইন?

আচ্ছা যে দলটা একবছর আগেও ক্লোজ ম্যাচ গুলোও হেরে যাচ্ছিলো, টানা ব্যার্থটার বৃত্ত থেকে বের হতে পারছিলো না কিছুতেই … সেই দলটাই বিশ্বকাপ থেকে হঠাৎ এরকম বদলে খুনে মেজাজের হয়ে গেলো কিভাবে বলতে পারেন?
.
কারণ হঠাৎ আমি বাংলাদেশ দলের ক্যাপ্টেন হয়ে গেলাম বলে !
দাঁড়ান, দাঁড়ান আগেই আমাকে পাগল হিসেবে পাবনায় পাঠানোর জন্য দৌড়ানি দিয়েন না !
.
মাশরাফি ক্যাপটেনসি পাওয়ার আগে বেশ কিছু ক্লোজ ম্যাচ আমরা হেরে যাচ্ছিলাম … ব্যাটিং বোলিং এর ব্যার্থতার চেয়ে সবচেয়ে বেশি যেটা আমাদের ভুগাচ্ছিলো সেটা হলো মুশফিকের কপিবুক “অনফিল্ড ডিসিসন”
.
বোলিং চেঞ্জ গুলো এরকম হচ্ছিলো, টাইট করে চেপে ধরা ম্যাচ ছুটে যাচ্ছিলো হাত থেকে … টিভির সামনে বসে আমরা আমজনতা যেটা বুঝতে পারছি, মুশফিক ঠিক তার উলটো ডিসিশন গুলো নিতো … এরকম কোন এক ম্যাচে হাস্যকর কপিবুক ক্যাপটেন্সির কারণে হেরে যাবার পর রাগের মাথায় কঠোর সমালোচনা করে মুশফিকের অফিসিয়াল পেইজ থেকে ব্যানও খাইসিলাম :'(
.
কিন্তু এখন যেন আমিই দল চালাই!! … ঠিক যেই মুহুর্তে আমার মাথায় যে ডিসিশন গুলা আসে, মাশরাফি ভাই যেন আমার মনের কথাগুলো বুঝতে পারেন … কয়েক উইকেট ফেলে দেয়ার পর কোন লুজ তো দেন ই না , উলটো বোলিং চেঞ্জ করে স্ট্রাইক বোলারদের নিয়ে আসেন … আর মাশরাফি ভাইয়ের বোলিং চেঞ্জ মানেই উইকেট!!
.
ফাইজলামি বাদ দিয়ে সিরিয়াসলি বলি, মাশরাফি ভাইয়ের ক্যাপটেনসিই বাংলাদেশ ওয়ানডে ক্রিকেটের মোড় ঘুড়িয়ে দিয়েছে … উনি উনার ইঞ্জুরি ঝরঝর শরীর নিয়ে যেভাবে লাফিয়ে ঝাঁপিয়ে বল গুলো ধরেন, এভাবে দলের নতুন পুরাতন সবার সাথে বড় ভাইয়ের মত শাসন-আদর করেন- এটাই পুরো দলটাকে চেঞ্জ করে দিয়েছে!!
.
আরো দুইটা ভাইটাল ফ্যাক্ট হলো- মুস্তাফিজ আর সৌম্য!! মুস্তাফিজ কোন ফ্লুক না , সে জিনিয়াস, সে ক্রিকেট ইতিহাসের পাতায় অমর হয়ে থাকবার জন্যই এসেছে, কোন এলাইসিস করেই তার রহস্য বের করা যাবে না কারণ তার রহস্য খুব সিম্পল- অসাধারণ একশনের সাথে নিঁখুত লাইন নিশানা … আর সৌম্য বাংলাদেশের ব্যাটিং এ এনেজে পজেটিভ একটা ফ্লো … ছেলেটা যেদিন ৩০-৪০ রান করে সেদিনও সে প্রতিপক্ষের বোলারদের বুক কাঁপিয়ে দিয়ে যায়!! B|
.
আর পুরো বাংলাদেশ টিমের ফিল্ডিং নাসির আর সাব্বিরের নেতৃত্বে মোটামুটি ওয়ার্ল্ডক্লাস এখন…
.
এসবকিছু মিলিয়েই টানা তিন পরাশক্তির বিরুদ্ধে সিরিজ জয় … বাংলাদেশ সাউথ আফ্রিকাকে সিরিজ হারাবে- ২০১৪ সালে কেউ বললে নির্ঘাত হেসেই উড়িয়ে দিতাম, তাই না?
.
সাকিব মাশরাফির ২০০ উইকেট, রুবেলের স্লগ ওভারে বোলিং, সৌম্যের অসামনেস আর তামিমের পাগলামি বাদ দিয়ে ধরে খেলাটা- সব মিলিয়েই অসাধারণ জয় … মাশরাফি,সাকিব,মুশি,রাজ্জাকের পর তামিমের ১৫০ তম ম্যাচেও জিতে গেলাম আমরা- কি মধুর কাকতালীয় ব্যাপার সেপার!!
.
আজ আমার ডেইল স্টেইনের কথা মনে পড়ছে … তার মনে এই মূহুর্তে ঠিক কি চলছে জানতে বড় ইচ্ছা করছে 😛 😛

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

four × five =