এখন সমান সমান

কেউ বাংলাদেশকে এগিয়ে রাখবেন, কেউবা আবার আমার মত সমান সমান বলবেন ।
বাংলাদেশকে যারা এগিয়ে রাখছেন তাদের হাতে লজিক আছে , আবার যারা আমার মত সমান সমান রাখতে চাইবেন তাদের হাতেও লজিক আছে ।
একদম সমানে সমান বলার কারণ মূলত আমার কাছে দুইটা ।
প্রথমত, আমাদের টীমের লোয়ার অর্ডারটা দেখেন । তাইজুল-জোবায়ের-মোস্তাফিজ-শহীদ । এদের মধ্যে ফার্স্ট ক্লাস সেঞ্চুরি আছে কেবল শহীদের তাও একটা মোটে । এভারেজ তার ১৬ এর আশেপাশে। তাইজুলের এভারেজও ১৪ এর আশেপাশে । বাকি দুজনের অবস্থা আরো করুণ । মুস্তাফিজ আর জোবায়ের কারোই গড় দুই অঙ্কে না । সে হিসাবে বলাই যায় , একবার টেইল বেরিয়ে গেলে আমাদের একদম ফিনিশ করতে ওদের সময় লাগবে না । কোন মাশরাফি নেই , কোন রাজ্জাক নেই , কোন সানি নেই ওপাশে সাকিব বা মুশি দাঁড়িয়ে গেলে তাকে ভালোভাবে সাপোর্ট দেওয়ার মতো । এইটা অবশ্যই একটা বড় দুর্বলতা । এমন লো স্কোরিং ম্যাচে ১৫-২০ রানের দুটো ক্যামিও হলে সেগুলোও দারুন কাজে দেয় । সেসব ছোট ইনিংস আসার সুযোগ কম । অবশ্য লোয়ার অর্ডারের ভালো ইনিংস বলে কয়ে আসে না ।
আবার, সাকিব-মুশি-লিটনের মধ্যে সাকিব আর লিটন শট খেলতে ভালোবাসে । সাকিবের টেস্টের আউট হবার ধরনকে মাঝে মাঝে মনে হয় হঠকারিতাও । খেলা অফ হবার আগে রিয়াদটা আউট না হলে বাংলাদেশকে এগিয়ে রাখা যেত অনায়াসেই । তবে ৭০ রান এসে যেতে পারে অনেক দ্রুত , আবার স্টেইন বা মর্কেলের তিনটা ভালো ডেলিভারি গুটিয়েও দিতে পারে দ্রুত । তবে সেই কথাই বলবো, যত আশা সব মুশফিকের উপরে । শব্দটা ঠিক আশা নয় । হবে ‘নির্ভরযোগ্যতা …’ যেটা এখানে বসে সাকিবের উপরে বা লিটনের উপরে করা কঠিন ।

দুর্বল লেজ আর আর দিনের শেষে রিয়াদ চলে গেলো । সব মিলিয়ে সমানে সমানই বলবো ।
এক সেশনের খেলা ভাসলো । রেজাল্ট আসবেই ।

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

1 × 1 =