স্প্যালেত্তির অধীনে ইন্টারের প্রথম নতুন সেন্টারব্যাক – মিলান স্ক্রিনিয়ার

শহরের আরেক পাশে একের পর এক নতুন নতুন খেলোয়াড় এসে যাচ্ছে ত এসেই যাচ্ছে। চাইনিজ মালিকানার অধীনে এই পর্যন্ত সাতটা খেলোয়াড়কে দলে ভিড়িয়েছে ইন্টার মিলানের নগর-প্রতিদ্বন্দ্বী এসি মিলান। সে তুলনায় এবারের দলবদলের বাজারে মোটামুটি চুপচাপই ছিল ইন্টার, কিন্তু এবার আস্তে আস্তে নিজেদের শক্তিশালী করা শুরু করেছে তারা। নতুন কোচ লুসিয়ানো স্প্যালেত্তির অধীনে সেন্ট্রাল ডিফেন্সের নতুন নাম হিসেবে দলে আরেক ইতালিয়ান ক্লাব সাম্পদোরিয়া থেকে আগমন ঘটেছে স্লোভাকিয়ান ডিফেন্ডার মিলান স্ক্রিনিয়ারের। বাইশ বছর বয়সী এই ডিফেন্ডারের জন্য প্রায় ২৩ মিলিয়ন ইউরোর মত খরচ করেছে ইন্টার, আর চুক্তিটা পাঁচ বছরের। স্লোভাকিয়ান কোন খেলোয়াড়ের জন্য এত বেশী পয়সা খরচ করার নজির নেই।

গত মৌসুমে সাম্পদোরিয়ার হয়ে লিগে ৩৫ ম্যাচ খেলেছেন স্ক্রিনিয়ার, যেটা কিনা সিরি আ তে একটি রেকর্ড, কেউ এত কম বয়সে সিরি আ তে এক মৌসুমে এত বেশী ম্যাচ খেলেনি। অনূর্ধ্ব ২১ ইউরোতেও দুর্দান্ত খেলেছেন, জায়গা করে নিয়েছেন টিম অফ দ্য টুর্নামেন্টে। ছয় ফুট এক ইঞ্চির দীর্ঘদেহী এই সেন্টারব্যাক খেলতে পারেন সেন্ট্রাল মিডফিল্ডেও। ছোট ছোট পাসে খেলা গড়ে দেওয়ার দিকে আগ্রহী তিনি, তাঁর সফল পাসের হার ৯২ শতাংশ সে কথাই বলে, যেটা কিনা সিরি আ ডিফেন্ডারদের মধ্যে তৃতীয় সর্বোচ্চ। মিলান স্ক্রিনিয়ার প্রয়োজন ছাড়া ডাইভিং ট্যাকলে যান না সাধারণত, দীর্ঘদেহী সেন্ট্রাল ডিফেন্ডার হিসেবে বেশ গতিশীল তিনি। ড্রিবল করাটাও তাঁর বেশ পছন্দের, আগের থেকে অনেক উন্নত হয়েছে তাঁর সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষমতা ও পজিশানিং সেন্স। গত মৌসুমে ইন্টারের বিপক্ষে দুটো ম্যাচে ইন্টারের সুপারস্টার স্ট্রাইকার মাউরো ইকার্দিকে এই স্ক্রিনিয়ারই একেবারে অকেজো রেখেছিলেন। একটা তথ্য জানিয়ে রাখা যাক, গত মৌসুমে স্ক্রিনিয়ার সফল পাস দেওয়ার হার জুভেন্টাসের সুপারস্টার সেন্ট্রাল ডিফেন্ডার লিওনার্দো বোনুচ্চির চেয়েও বেশি, যে বোনুচ্চিকে “ডিফেন্সিভ পিরলো” বলা হয়!

এখন আসলেই ইন্টারের হয়ে স্ক্রিনিয়ারের ডিফেন্সিভ পিরলো হবার পালা।

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

3 − 3 =