যে জিনিস বদলে দেওয়া অসম্ভব

২০১২ এর শেষের দিককার কথা । বাংলাদেশ হোম সিরিজ খেলেছে ওয়েস্ট ইন্ডিজের সাথে । আরো স্পেসিফিকালি যদি মনে করানোর জন্যে বলি, তাহলে বলবো আবুল হাসানের ১০ নম্বরে নেমে সেঞ্চুরি করার সিরিজটা । সেই টেস্টে বাংলাদেশের ৩৮৭ রানের রিপ্লেতে ড্যারেন সামির ওয়েস্ট ইন্ডিজ করে নেয় সাড়ে ৬শ । আর এত বিশাল বোঝা নিয়ে বাংলাদেশ আবার খেলতে নেমে বেশিরভাগ সময় যা করে, তা-ই করলো । ১, ৪৯, ৫১, ৬২, ৮২- এই রানগুলোতে ফাইভ ডাউন । ৮২/৫ থাকার সময় উইকেটে সাকিব আর নাসির । সাকিব আর নাসিরের একটা ১০০ রানের উপরে পার্টনারশিপ হয়ে যায় । সেখান থেকে বাংলাদেশের তখন স্বপ্ন টেস্টটাকে ৫ম দিনে নিয়ে গিয়ে অন্তত ম্যাচের ফলটাকে একটু দেরি করিয়ে দেওয়া । ডে ফোর এর খেলার বাকি তখন কয়েক ওভার । সেগুলোও বেশ কনফিডেন্টলি খেলছিলেন দুজনেই । সাথে সাথে সুপারম্যান সাকিবের সেঞ্চুরিটাও উঁকি দিচ্ছে । ৯০ এর পরে সাকিব এক এক করে আগাচ্ছে আর দুটো মাইলফলকই কাছে আসছে । সাকিবের সেঞ্চুরিটা না হয় কাল হবে , বাংলাদেশের হয়ে কালকে যেন সাকিব আর নাসির আবার নামে । দুইজন মোর দ্যান সেট ব্যাটসম্যান একটা নতুন দিনে নামুক, তা কে না চায় ? কিন্তু দিনের শেষ ওভারেই সাকিব আউট হলেন । দিনের শেষভাগে আউট হওয়াটা কি অপরাধ ? নাহ । এর আগেও টেস্টে অনেক ভালো ভালো পার্টনারশিপ বিকালে গিয়েই ভাঙে এটা বহুবার দেখেছি । কিন্তু আসলে সাকিব আউট হলেন কীভাবে ? ভীরসামি পেরমলের নিরীহ একটা ডেলিভারি ছক্কা মারার জন্যে বেরিয়ে এলেন । একটূ মিসটাইমিং আর বাউন্ডারিতে টিনো বেস্টের হাতে গিয়ে জমে বল । দিনের শেষ ওভার প্লাস দেড়শো রানের কাছাকাছি জুটি প্লাস দল সেকেন্ড ইনিংসে অমন বিশাল বোঝা নয়ে ল্যাঙচাচ্ছে । আর ঐ সময় আপনি টেস্টে ছক্কা মেরে সেঞ্চুরি করতে গিয়ে ম্যাচের সব মজায় মাটি ঢেলে দিলেন ? সাকিবকে সেদিন ক্রিমিনাল বলে নি এমন লোক খুবই কম ছিলো ।

Shakib+Al+Hassan+New+Zealand+v+Bangladesh+4BIxmuzRIJ8l

এবারে যে ঘটনাটার কথা বলবো সেটার দিন তারিখ ঠিকভাবে মনে নেই । বড় ক্রিকেট থেকে এবার একটা ওয়ানডে ইনসিডেন্ট । প্রতিপক্ষ আবারো ওয়েস্ট ইন্ডিজ । বাংলাদেশ তাদের ইতিহাসে সবচেয়ে হরর স্টার্টগুলোর মধ্যে একটা সেদিন পায় । ১০ রান জমতেই থ্রি ডাউন । সাকিব নামলেন । নেমে কি করলেন ? অনেক সংগ্রামী ইনিংস খেলে চেহারা ফেরালেন ? নাহ ! জাস্ট ৩ বলে ৩টা চার মেরে দিলেন । সেদিন হয়তো সবাই সাকিবকে জাতীয় বীর বলে নি । কিন্তু আমি বলেছিলাম, ফিয়ারলেস । ঐ সিচুয়েশনে নেমে টানা ৩টে চার মেরে দেওয়া কোন হাফসেঞ্চুরির চাইতে কম গৌরবের না । সাকিবের ক্রিকেট দর্শনের একটা বড় নলেজ আমি পেয়ে যাই সেদিনই ।

1297629772309_ORIGINAL

সাকিবের কাছে ব্যাটিং এর সময় তার নিজের স্লটে বল দেখা মানে মারতে হবে । সেটা হোক নাইন্টিজে গিয়ে , কিংবা ব্যাটিং এ নেমে একদম প্রথম ওভারটাতে । আট নয় বছরের ক্যারিয়ারে এই ফিলোসোফির মূল্য যে তাকে দিতে হয় নি তা ঠিক না । বাইরের বল তাড়া করতে গিয়ে কটবিহাইন্ড হয়ে যাওয়া বা পেসের হেরফের না বুঝে বল চার্জ করতে গিয়ে সার্কেলের মধ্যে সফট ডিসমিসাল হয়ে যাওয়া – এগুলো সাকিবের উইকেট পতনের হাইলাইটস । এই সাকিবকে বদলে দেওয়া আপনার আমার কাজ না । বাংলাদেশের ক্রিকেট হিস্ট্রিতে সবমিলিয়ে এখনো পর্যন্ত সেরা ক্রিকেটারটির ফিচারের কী ওয়ার্ড হলো তার পজিটিভনেস । সাকিবের খারাপ দিনে তার এই পজিটিভনেস আপনার কাছে দ্বায়িত্বজ্ঞানহীনতা মনে হয় আর সাকিবের ভালো দিনে মনে হয় ম্যাড জিনিয়াস । ৪০ বলে ৬০ রান লাগা ম্যাচটাতে সাকিব যেদিন স্কুপ মেরে থার্ডম্যান দিয়ে ছক্কা চার মেরে ম্যাচ হাতে নিয়ে আসতে পারে , সেদিন আপনি বলেন “আহ ! সাকিব প্রেশার রিলিজ করে বাঁচিয়ে দিলো”… আবার একই আপনি সেই স্কুপ মারতে গিয়ে সাকিবের বলটা সার্কেলে উঠে গিয়ে সাকিব আউট হলে বলেন , “সিনিয়র প্লেয়ার আরো দ্বায়িত্বশীল হতে হয় । ৪০ বলে ৬০ ই তো ! সিঙ্গেল নিলেই থাকা যেতো …”

Shakib-Al-Hasan-reacts-to-being-bowled

দলের এই স্বর্ণযুগে এই পুরোনো ক্যাঁচাল তোলার ইচ্ছে আমার মোটেই ছিলো না । তবে ভারতের সাথে ৩য় ম্যাচটায় সাকিবের আউটের পরে এত এত সাকিব-কথা দেখে দুই কথা বলতে মনে চাইলো । আগে আপনাকে ঠিক করতে হবে আপনি ওর ফিয়ারলেস ভার্সনটা দেখতে চান ? নাকি ওকে ওর সহজাত খেলার বাইরে ডুয়াল রোলে দেখতে চান ? কোন শট খেলার আগে সাকিব তার পরে কি হবে এটা চিন্তা করে না । মাঠে কোন ডিসিশন নেবার পরে তাকে নিয়ে মিডিয়া কী লিখবে সেটা সাকিব চিন্তা করে না । আসলেই করে না … চিন্তা করলে মাশরাফির আগে বাংলাদেশ ক্রিকেটের সবচেয়ে এক্সাইটিং প্যানডে ক্রিকেটারটাকে আপনি দেখতে পেতেন না । সাকিবকে থাকতে দিন ওর মতই । ধুঁকে ধুঁকে আউট হবার মত লোক সাকিব না । ২০১২ এশিয়া কাপের ভারতের বিপক্ষে জয়ের দিন বা সাকিবের ক্যারিয়ারের একদম শুরুর দিকে শ্রীলংকাকে হারিয়ে জিম্বাবুয়েকে টপকে আমাদের ফাইনাল কনফার্ম করার দিন এই সাকিব আপনার কথা শুনলে কাউন্টার এটাক করে ম্যাচ বের করতে পারত না । এই সাকিব আপনার কথা ভাবলে চাপের মধ্যে নেমে আরো খানিকক্ষণ ব্লক করে তারপরে লেগবিফোর হয়ে ফিরে যেত…

TH26_LEAD_RADHA_GO_1218931g

এ জিনিস বদলে দেওয়া আপনার আমার কাজ না । ফিয়ারলেস ক্রিকেটের যে বীজ সাকিব কাউন্টি খেলে, এত এত ফ্র্যাঞ্চাইজি লিগ খেলে নিয়ে এসে ছড়িয়ে দিচ্ছে সৌম্যের মত নতুনদের মাঝে , তাকে বদলে দেওয়া তো আপনার আমার ক্ষমতার বাইরে । সাকিবের ফিলোসোফিটা থাকুক না সাকিবের মাঝে … তাকে মুশফিক বানানো আপনার আমার হাতের খেল না ।

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

5 + 8 =