ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর মাদ্রিদ ছাড়ার পূর্বাপর : সত্যতা কতটুকু?

কিছুদিন আগেই বের হল খবর, চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী লিওনেল মেসির মত ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোও ট্যাক্স ফাঁকি দেওয়ার অভিযোগে অভিযুক্ত হয়েছেন। ২০১১ থেকে ২০১৪ সাল পর্যন্ত মোট ১৪.৭ মিলিয়ন ইউরো  ট্যাক্স জালিয়াতির অভিযোগ এসেছে ক্রিস্টিয়ানো  রোনালদোর বিরুদ্ধে। তাঁর থেকেও বড় খবর বেরিয়েছে গত শুক্রবার, ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো বলে ছাড়তে চাইছেন খোদ রিয়াল মাদ্রিদই!

১৪.৭ মিলিয়ন ট্যাক্স যদি ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো না পরিশোধ করেন তাহলে সেক্ষেত্রে হতে পারে বড় অংকের জেল জরিমানাও। এর মধ্যেই কাছের মানুষজনের কাছে রিয়াল মাদ্রিদ ছাড়ার ঘোষণা দিয়ে গোটা পরিস্থিতিটাকেই একটু ঘোলাটে করে দিয়েছেন রোনালদো নিজেই। ফলে নড়েচড়ে বসেছে বিশ্বের তাবৎ ধনী সব ক্লাবগুলো। এদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল রোনালদোর সাবেক ক্লাব ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ও প্যারিস সেইন্ট জার্মেই। সাথে চাইনিজ প্রিমিয়ার লিগের টাকার কুমির ক্লাবগুলোও যে রোনালদোর জন্য হাঁ করে বসে আছে সেটা না বললেও চলছে। তবে কিছুদিন আগে চাইনিজরাও নতুন কিছু নিয়ম করেছে তাদের লিগে, বিদেশী কোন খেলোয়াড়কে যে দামে কেনা হবে সেই দামের ১০০% ট্যাক্স উক্ত ক্লাবকে চিনা সরকারকে প্রদান করতে হবে। অর্থাৎ কোন ক্লাব যদি রোনালদোকে ২০০ মিলিয়ন পাউন্ড দিয়ে কিনতে চায়, সেই ক্লাবকে আরো ২০০ মিলিয়ন পাউন্ড ট্যাক্স বাবদ চিনা সরকারের কাছে জমা দিতে হবে। তাই রোনালদোকে পাবার দৌড়ে চিনা ক্লাবগুলো সামর্থ্য থাকা সত্বেও একটু পিছিয়েই থাকবে। এদিকে রোনালদো নিজেও বলে সাবেক ক্লাব ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডে ফেরার ব্যাপারে আগ্রহ প্রকাশ করেছেন।

তবে এখনই রিয়াল মাদ্রিদ সমর্থকদের হা-হতোম্মি করার কোন কারণ আছে বলে মনে হচ্ছেনা। কারণ নিজের দাম দেখানোর জন্য রোনালদোর এরকম ক্লাব ছাড়ার হুমকি দেওয়া আজকের নতুন কিছু না। মাত্রই ক্লাবকে পরপর দুইবার চ্যাম্পিয়নস লিগ জয় করানোর পেছনে রেখেছেন অনন্য ভূমিকা, মাদ্রিদকে জিতিয়েছেন লীগও। গত কয়েক বছরের মধ্যে মাদ্রিদকে জিদানের অধীনে সবচেয়ে বেশী যে এখন শক্তিশালী লাগছে, তার মূল কুশীলব ত এই রোনালদোই! আপাতদৃষ্টিতে যা মনে হচ্ছে, শুধুমাত্রই নিজের বেতন আরো বাড়ানোর জন্যই এরকম ক্লাব ছাড়ার হুমকি দিচ্ছেন রোনালদো। কিন্তু কেন করছেন এরকম তিনি? সম্ভাব্য কারণগুলো একটু দেখে নেওয়া যাক –

১. সদ্য ট্যাক্স জালিয়াতির অভিযোগে অভিযুক্ত রোনালদোকে আজ হোক কাল হোক পুরো ট্যাক্সের টাকা স্পেইন ট্যাক্স অথরিটিকে দিতেই হবে। মাত্রই গত নভেম্বরে রিয়াল মাদ্রিদের হয়ে নতুন চুক্তি করেছেন রোনালদো, ২০২১ সাল পর্যন্ত করা সেই চুক্তিতে প্রতি মৌসুমে রোনালদো পাচ্ছেন ২৪ মিলিয়ন ইউরো করে! অর্থাৎ প্রতি সপ্তাহে রোনালদোর বেতন এখন ৪ লাখ ৫৫ হাজার পাউন্ডের মত। ট্যাক্সের ঝঞ্ঝাটের কারণে এমনিতেই বিশাল একটা অংক গচ্চা দিতে হবে রোনালদোকে। এই অবস্থায় রোনালদো ত চাইবেনই আবারো একটা বেশী বেতনের নতুন চুক্তি করতে যাতে ট্যাক্সের ঝঞ্ঝাট গায়ে একটু হলেও কম লাগে!

২. এদিকে নতুন চুক্তিতে বার্সেলোনাতে আরো চার বছরের জন্য থেকে যাচ্ছেন রোনালদোর চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী লিওনেল মেসিও। বহুদিন ধরেই নতুন চুক্তি করার ব্যাপারে গড়িমসি করা লিওনেল মেসি সামনের কয়েকদিনের মধ্যেই বার্সার সাথে চুক্তি নবায়ন করবেন বলে শোনা যাচ্ছে। আর নির্ভরযোগ্য সূত্রের খবর যদি সত্যি হয়, তবে নতুন চুক্তির অধীনে লিওনেল মেসি হতে যাচ্ছেন বিশ্বের সবচেয়ে বেশী বেতন পাওয়া খেলোয়াড়। এখন প্রতি মৌসুমে প্রায় ৩ লাখ ৬৫ হাজার পাউন্ড করে বেতন পাওয়া লিওনেল মেসির বেতন চুক্তি নবায়ন করার পর প্রায় ৮ লাখ পাউন্ডে গিয়ে দাঁড়াবে বলে শোনা যাচ্ছে! এদিকে বিভিন্ন পারফরম্যান্স বোনাস বাবদ রোনালদো প্রতি মৌসুমে বর্তমান চুক্তিতে পাচ্ছেন ১.৩ মিলিয়ন পাউন্ডের মত, যেখানে মেসি নতুন চুক্তির অধীনে বার্সেলোনার কাছ থেকে বিভিন্ন পারফরম্যান্স বোনাস বাবদ বাগাবেন ১৩.২ মিলিয়ন পাউন্ডের মত! নিজের প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী পাবেন প্রতি সপ্তাহে ৮ লক্ষ পাউন্ডের মত, আর রোনালদো ৪ লাখ ৫৫ পাউন্ডেই সন্তুষ্ট থাকবেন? এত সস্তা?

মাত্রই নভেম্বরে রিয়ালের সাথে চুক্তি নবায়ন করেছেন রোনালদো

৩. সদ্য জিতেছেন চ্যাম্পিয়নস লিগ, তাও আবার পরপর দুইবার, সাথে বহু বছর পর মাদ্রিদে এসেছে লিগটাও। এ অবস্থায় নিজের দাম বাড়ানো না গেলে আর কখন বাড়ানো হবে?

৪. এই মৌসুমেই ক্লাব ছাড়ছেন পর্তুগাল সতীর্থ ও প্রিয়বন্ধু পেপে। যার কারণে রোনালদো বেশ নাখোশ, প্রিয়বন্ধুকে রিয়াল মাদ্রিদ নতুন চুক্তির প্রস্তাব দেয়নি দেখে।

৫. রোনালদো এজেন্ট হোর্হে মেন্ডেজের সাথে এমনিতেই মাদ্রিদের সম্পর্ক সেরকম ভালো না। মেন্ডেজের কোন মক্কেলকেই রিয়াল মাদ্রিদ বেশীদিন রাখেনি ক্লাবে – অ্যানহেল ডি মারিয়া থেকে শুরু করে ফাবিও কোয়েন্ত্রাও, হোসে মরিনিও, পেপে, রিকার্ডো কারভালহো কেউই এখন নেই ক্লাবে আর। ক্লাব ছাড়তে যাচ্ছেন হামেস রড্রিগেজ ও পেপেও। ফলে মাদ্রিদকে এই সুযোগে কলুর বলদ বানিয়ে রোনালদোর জন্য নতুন চুক্তি আদায় করার পাঁয়তারা হোর্হে মেন্ডেজের মত ঘাঘু সুপার এজেন্ট করতেই পারেন!

কিছুদিন আগেই যেই রোনালদো বলেছিলেন বয়স ৪১ হয়ে গেলেও মাদ্রিদ ছাড়বেন না, শুধুমাত্র এই ট্যাক্সের যন্ত্রণার জন্য তার মনটা এতটাই পালটে গেল যে পাততাড়ি মাদ্রিদ ছাড়তে চাইবেন তিনি? ঠিক বিশ্বাস হচ্ছেনা! তার ওপরে মাদ্রিদ ছাড়া বর্তমানে অন্য যে ক্লাবেই তিনি যান না কেন, সে ক্লাব অবশ্যই বর্তমানে মাদ্রিদের মত এতটা শক্তিশালী হবেনা। আর শক্তিশালী না হওয়া মানে বার্সেলোনার সাথে, আরো স্পষ্ট করে বললে চিরশত্রু মেসির সাথে রোনালদোর না পেরে ওঠা! এটা কি কস্মিনকালেও চাইবেন রোনালদো? বিশ্বাস হয় আপনার?

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

5 × 5 =