র‍্যাশফোর্ডে আস্থা মরিনহোর

মরিনহো যখন ইউনাইটেডে আসলেন, তরুণ প্রতিভা মার্কাস র‍্যাশফোর্ড তখন মাত্র নিজের প্রতিভার কথা জানান দিতে শুরু করেছিলেন বিশ্বকে। মরিনহো আসার পর স্ট্রাইকিং ডিপার্টমেন্টে তাই মরিনহোর অপশান ছিল ওয়েইন রুনি, অ্যান্থনি মার্সিয়াল আর মার্কাস র‍্যাশফোর্ড। তাঁর উপর মরিনহো আসার পর দলে যোগ দেন সুইডিশ সুপারস্টার  জ্লাতান ইব্রাহিমোভিচ, যার ফলে অনেক ইউনাইটেড সমর্থকদের মধ্যে এই চিন্তা ঢুকে গিয়েছিল যে হয়ত ইব্রা আসার ফলে র‍্যাশফোর্ডের উন্নতি ব্যাহত হবে, কারণ তরুণ প্রতিভাকে যথেষ্ট সুযোগ দেওয়ার চাইতে প্রথাগত সুপারস্টার খেলানোতেই মরিনহো বেশী স্বচ্ছন্দ, অন্তত জনমনে সাধারণ ধারণা এটাই। এর আগে কেভিন ডে ব্রুইনিয়া, মার্কো ভ্যান গিঙ্কেলদের দেখে সবার ধারণা এটাই হয়েছিল।

(আরও দেখুন – যেসব খেলোয়াড়দের ইউনাইটেডে আনতে পারিনি -স্যার অ্যালেক্স)

(আরও দেখুন – ফার্গি, ক্লফের পাশে মরিনহো)

মরিনহোর প্রিয় শিষ্য হয়ে উঠছেন র‍্যাশফোর্ড

কিন্তু পরিসংখ্যান ঘাঁটলে দেখা যাচ্ছে, র‍্যাশফোর্ডের ক্ষেত্রে মরিনহো অন্তত সেটা করছেন না। টিনএজার হিসেবে মরিনহোর অধীনে যথেষ্ঠ সুযোগ পাচ্ছেন র‍্যাশফোর্ড। এই মৌসুমে এরই মধ্যে লিগে ১৩৩৪ মিনিট খেলা হয়ে গেছে এই ইংলিশ টিন এজারের, যেটা কিনা লিগে খেলা অন্যান্য টিনএজারদের থেকে অনেক বেশী। তালিকার দ্বিতীয় স্থানে আছেন এভারটনে খেলা, এই মৌসুমেই লাইমলাইটে আসা ইংলিশ সেন্ট্রাল মিডফিল্ডার টম ডেভিস, এই মৌসুমে এই পর্যন্ত ১০২২ মিনিট খেলে ফেলেছেন তিনি লিগে, তিন নাম্বারেও আছেন আরেক এভারটোনিয়ান ডিফেন্ডার মেইসন হোলগেট, যিনি খেলেছেন ২৭০ মিনিট মত।

স্ট্যাটস ডোন্ট লাই! আসলেই র‍্যাশফোর্ডের উপর আস্থা রাখছেন মরিনহো!

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

1 × five =