গোলশিকারী এক ডিফেন্ডারের কথা

হিসাব, ডিফেন্ডারের কাজ হল ডিফেন্ড করা, প্রতিপক্ষের আক্রমণ ঠেকানো। কিন্তু গোল করা যখন কোনো ডিফেন্ডারের নিত্যনৈমিত্তিক কাজ হয়ে দাঁড়ায়, তখন আর যাই হোক তাকে তো আলাদা ভাবে দেখাই উচিত। গোল করতেও, গোল ঠেকাতেও সমান পারদর্শী খুব কম ডিফেন্ডারই ছিলেন ফুটবল বিশ্বে। যাদের মধ্যে অন্যতম বিখ্যাত ফুটবলার ড্যানিয়েল আলবার্তো প্যাসারেলা। আর্জেন্টাইন বিশ্বকাপজয়ী এই ফুটবলারের জম্ম চাকাবুকো শহরে। তার হাত ধরেই ১৯৭৮ সালে প্রথম বিশ্বকাপ ঘরে তোলে আলবিসেলস্তিরা। ফুটবল ক্যারিয়ার শুরু করেন স্থানীয় ক্লাব সারমিয়েন্তোর হয়ে। আর্জেন্টাইন বিখ্যাত ক্লাব রিভার প্লেট লিজেন্ড এই খেলোয়াড় আর্জেন্টিনার বাইরে শুধু খেলেছিলেন ইতালিয়ান জায়ান্টস ফিওরেন্টিনা আর ইন্টার মিলানের হয়ে। রিভার প্লেটের হয়ে ২৫৮ ম্যাচ খেলেন। ক্লাব ক্যারিয়ারে মোট ম্যাচের সংখ্যা ৪৪৭। সবচেয়ে মজার বিষয় হল সর্বকালের অন্যতম এই সেরা ডিফেন্ডারের ক্লাবের হয়ে গোলও আছে ১৩৪ টি। যা অনেকদিন কোনো ডিফেন্ডারের সর্বোচ্চ গোলের রেকর্ড ছিল। জাতীয় দলের হয়ে ১৯৭৮-৮৬ এই সময়ে খেলেছেন ৭০ ম্যাচ, গোল ২২ টি। কোনো ডিফেন্ডারের এই প্রোলিফিক গোল স্কোরিং যে কাউকেই তাক লাগিয়ে দিবার মতো। ডাকনাম ছিল এল গ্রান কাপিতান (দ্যি গ্রেট ক্যাপ্টেন). এল কাইজার নামেও ডাকতেন (বেকেনবাওয়ারের সাথে তুলনায়) ৫’৮” উচ্চতার এই ডিফেন্ডার এরিয়াল ডুয়েলে ছিলেন অন্যতম সেরা। পাওয়ারফুল হেডার ছিল, নিতেন ভালো পেনাল্টি আর ফ্রি-কিকও। সাউথ আমেরিকান হিস্ট্রিতে সর্বকালের সেরা ডিফেন্ডার। আর্জেন্টাইন ফুটবলের স্তম্ভ ছিলেন। জিতিয়েছেন ৭৮ সালের বিশ্বকাপ। ৮৬ বিশ্বকাপের বাছাইপর্বে তার পাস থেকে গোল করে আর্জেন্টিনার বিশ্বকাপ খেলা নিশ্চিত করেন রিকার্ডো গ্যারেকা। যদিও খেলতে পারেননি বিশ্বকাপ। স্টার ম্যারাডোনা আর ততকালীন কোচ কার্লোস বিলার্দোর সাথে ঝামেলায় জড়িয়ে পড়েন। কোচিং করিয়েছন আর্জেন্টিনা, উরুগুয়েকে ক্লাবের কোচ ছিলেন রিভার প্লেট, পার্মা, করিন্থিয়াসেরও। আজকে এই লিজেন্ডারি ডিফেন্ডারের ৬৩তম জন্মদিন। গোল্লাছুট পরিবারের পক্ষ থেকে অনেক শুভেচ্ছা আর ভালোবাসা।

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

six + 2 =