নেলসন সেমেদো কি পারবেন বার্সায় দানি আলভেসের অভাব ঘোচাতে?

ক্লাবের কিংবদন্তী ব্রাজিলিয়ান রাইটব্যাক দানি আলভেস চলে যাওয়ার পর থেকেই রাইটব্যাক পজিশানটায় অনেক ঝামেলা পোহাতে হয়েছে বার্সাকে গত মৌসুমে। দানি আলভেস থাকাকালীন সময়ে সান্তোস থেকে দলে আসা ব্রাজিলিয়ান রাইটব্যাক ডগলাস কিংবা সেভিয়ার স্প্যানিশ রাইটব্যাক অ্যালেইক্স ভিদাল, কেউই পারেননি বার্সার সাবেক কোচ লুইস এনরিকের মনঃপূত পারফরম্যান্স দিতে। ফলে মিডফিল্ড থেকে স্প্যানিশ তরুণ তারকা সার্জি রবার্তোকে এনেই রাইটব্যাকের কাজটা চালিয়েছেন এনরিকে গত প্রায় পুরোটা মৌসুম, আবার কখনো কখনো তিনজনের ডিফেন্সে দলকে খেলিয়েছেন যাতে কোন রাইটব্যাকের প্রয়োজনই না পড়ে। ফলে এর মাশুলও গুণতে হয়েছে বার্সেলোনাকে, চ্যাম্পিয়নস লিগে জুভেন্টাসের কাছ থেকে হেরে বিদায় নিতে হয়েছে, লিগ হয়েছে হাতছাড়া। তবে এবার বার্সেলোনার নতুন কোচ আর্নেস্তো ভালভার্দে আর মিডফিল্ডার সার্জি রবার্তোকে তাঁর নিজের পজিশানের বাইরে খেলাতে রাজী নন। তাই এবার দলবদলের বাজারে একজন রাইটব্যাক আনতে আর দেরি করল না বার্সা। বেনফিকা থেকে তরুণ পর্তুগিজ রাইটব্যাক নেলসন সেমেদোকে দলে আনলো তারা, পাঁচ বছরের চুক্তিতে, মোটামুটি ৩১ মিলিয়ন পাউন্ডের বিনিময়ে। ফলে নবম পর্তুগিজ হিসেবে বার্সার শার্ট গায়ে জড়াতে দেখা যাবে এই রাইটব্যাককে। সেমেদোর আগে বার্সায় খেলা পর্তুগিজরা হলেন লুইস ফিগো, অ্যান্দ্রে গোমেস, সিমাও সাব্রোসা, ফার্নান্দো কউতো, ভিতর বাইয়া, ডেকো ও রিকার্ডো ক্যুয়ারেজমা।

টানা দুই মৌসুম বেনফিকাকে পর্তুগিজ লিগ জিততে সাহায্য করা নেলসন সেমেদোকে এরই মধ্যে বার্সার কিংবদন্তী রাইটব্যাক দানি আলভেসের সাথে তুলনা করা শুরু হয়ে গিয়েছে, মূলত তাদের একই খেলার স্টাইলের জন্য। দানি আলভেসের মত সেমেদোও শুধুমাত্র ডিফেন্স করতে পছন্দ করেন না, উপরে উঠে রাইট উইঙ্গারকে ওভারল্যাপ করে প্রায়ই তাঁকে দেখা যায় আক্রমণে অংশ নিতে। গত মৌসুমের চ্যাম্পিয়নস লিগে বরুশিয়া ডর্টমুন্ডের সাথে বেনফিকার ম্যাচটা দেখলেই বোঝা যায়, প্রায় সময়ই ডর্টমুন্ডের লেফট উইঙ্গার মার্কো রইসকে দৌড়ে হারিয়ে দিয়ে ক্রমাগত ওভারল্যাপ করছিলেন এই নেলসন সেমেদো। গত মৌসুমের প্রায় প্রত্যেকটা ম্যাচে বেনফিকার বল দখল ছিল ষাট শতাংশের উপরে, আর এটার পিছনে অনেক বড় কৃতিত্ব এই সেমেদোর। শর্ট পাসে খেলতে খুব পছন্দ করেন, যেটা কিনা বার্সার দর্শনের সাথে বেশ ভালো যায়, সাথে ডিফেন্ডার হিসেবে তাঁর ড্রিবল করার ক্ষমতাটাও বেশ প্রশংসনীয়। ২৩ বছর বয়সী এই রাইটব্যাক গত দুই মৌসুমে বেনফিকার হয়ে খেলেছেন ৬৩টার মত ম্যাচ। নিজের দল খেলার নিয়ন্ত্রণে থাকলে সেমেদোও অসাধারণ পারফর্ম করেন, কিন্তু নিজ থেকে খেলার দায়িত্ব সেভাবে নিতে পারেন না, খেলার যে দিকটা বার্সায় আসার ফলে অবশ্যই তাঁর উন্নত হবে। আক্রমণ করতে গিয়ে বা প্রতিপক্ষ উইঙ্গারকে মার্ক করতে গিয়ে কখনো কখনো নিজের পজিশান থেকে বেশ দূরে সরে আসেন তিনি, ফলে দলের রাইট সেন্টারব্যাক যিনি থাকেন (লুইসাও) তাঁর তখন ঝামেলা হয়ে যায় অতিরিক্ত জায়গা কভার করতে গিয়ে।

নিজের এসব ছোটখাট ভুলগুলো সামলে নিয়ে দানি আলভেসের একজন যোগ্য উত্তরসুরি হিসেবে ‘নেলসিনহো’ নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করতে পারবেন, এটাই কামনা!

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

eighteen + 12 =