চার ম্যাচ নিষিদ্ধ মেসি

ঘটনার শুরু আর্জেন্টিনার বিশ্বকাপ বাছাইপর্বের গত ম্যাচেই, চিলির বিপক্ষে ম্যাচটায়। গত বৃহস্পতিবারে অনুষ্ঠিত হওয়া হাড্ডাহাড্ডি এই লড়াইয়ে সুপারস্টার লিওনেল মেসির একমাত্র পেনাল্টি গোলে ১-০ গোলে জিতে আর্জেন্টিনা। ত যাই হোক, লাতিন আমেরিকার আরেক পরাশক্তির বিপক্ষে জয় পেয়ে হয়তবা একটু ফুরফুরে মেজাজেই ছিল মেসি বাহিনী, কিন্তু সেই আনন্দ আর থাকলো কই? ফুটবল-বিশ্বের ‘গুডবয়’ ইমেজ ধরে রাখা এই আর্জেন্টাইন সুপারস্টার এই ম্যাচে ধরা পড়ে গেছেন লাইনসম্যানকে গালিগালাজ করতে গিয়ে। যেই গালিগালাজের ফুটেজ বিশ্লেষণ করে ফিফা আর্জেন্টিনার এই সুপারস্টারকে নিষিদ্ধ করেছে চার ম্যাচ, অর্থাৎ রাশিয়া বিশ্বকাপের টিকেট পাওয়ার লড়াইয়ে বাছাইপর্বের পাঁচ ম্যাচের চারটাতেই মেসিকে পাচ্ছেনা আর্জেন্টিনা। খুব খারাপ সময়ে এই নিষেধাজ্ঞাটা আসলো, কারণ আর মাত্র কয়েক ঘন্টা পরেই বলিভিয়ার সাথে বিশ্বকাপ বাছাইপর্বের অ্যাওয়ে ম্যাচে লা পাজ স্টেডিয়ামে মুখোমুখি হচ্ছে আর্জেন্টিনা। আর এই ম্যাচ থেকেই শুরু হবে মেসির নিষেধাজ্ঞা।

“লা কঞ্চা দে তু মাদ্রে” ইংরেজি করলে যা দাঁড়ায়  ”f*** off, your mother’s ****” – আর্জেন্টিনার অতি প্রচলিত একটি খিস্তি। লাইনসম্যান মার্সেল ভ্যান গ্যাসে কে এই গালি দিতে গিয়েই মেসি ধরা পড়ে গেছেন ক্যামেরায়। শুধু চার ম্যাচ নিষেধাজ্ঞাই নয়, সাথে জরিমানা হিসেবে ৮,১০০ ব্রিটিশ পাউন্ডও জরিমানা দিতে হবে মেসিকে।

স্বাভাবিকভাবেই চিন্তায় পড়ে গেছে আর্জেন্টিনা। টিম সেক্রেটারি হোর্হে মিয়াদোস্কির কথা মানলে এই রায়ের বিরুদ্ধে আপীল করতে যাচ্ছে আলবিসেলেস্তিরা, যাতে সাজার পরিমাণ কিছুটা হলেও কমানো যায়। আর্জেন্টিনা চিন্তিত হবেনাই বা কেন? দলে অ্যাগুয়েরো, হিগুয়াইন, ডি মারিয়া, ডাইবালা, লামেলা, পাস্তোরে, লাভেজ্জির মত সুপারস্টারেরা থাকলেও ম্যাচের পর ম্যাচ সেই মেসিকেই টেনে তুলতে হয় দলকে, মেসিই একের পর এক ম্যাচ নতুন লাইফলাইন দিয়ে চলেছেন, চলছেন আর্জেন্টিনাকে। আর বিশ্বকাপ বাছাইপর্বের দক্ষিণ আমেরিকান কনমেবল গ্রুপেও সুবিধাজনক অবস্থায় নেই আর্জেন্টিনা। দশ দলের গ্রুপে তৃতীয় অবস্থানে আছে আর্জেন্টিনা, ২২ পয়েন্ট নিয়ে। এই গ্রুপের দশ দল থেকে চারটি দল সরাসরি রাশিয়া বিশ্বকাপ খেলার সুযোগ পাবে। অর্থাৎ একটু পা হড়কালেই বিশ্বকাপ স্বপ্ন বিসর্জন দিতে হবে আর্জেন্টিনাকে। শীর্ষে থাকা চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ব্রাজিলের পয়েন্ট ১০ ম্যাচে ৩০।

এই নিষেধাজ্ঞার ফলে বলিভিয়া ও সুয়ারেজ-কাভানির উরুগুয়ের সাথে অ্যাওয়ে ম্যাচ, ভেনিজুয়েলা ও পেরুর সাথের হোম ম্যাচ খেলতে পারবেন না মেসি। বলিভিয়ার সাথে ম্যাচটি হবে আজকে রাতেই, উরুগুয়ে-ভেনিজুয়েলা ও পেরুর সাথে ম্যাচগুলি হবে যথাক্রমে আগস্ট ২৮, সেপ্টেম্বর ৫ ও অক্টোবর ২ তারিখে।

আজকে রাতে মেসিকে ছাড়াই তাই বলিভিয়া অভিযান দিয়ে শুরু হচ্ছে আর্জেন্টিনার আপাত মেসিহীন জীবন, যে বলিভিয়া বাছাইপর্বের গ্রুপের পয়েন্ট তালিকার নয় নম্বরে অবস্থান করছে। সমস্যা সেটা না, সমস্যা হল বলিভিয়ার মাঠে খেলা হচ্ছে যে, সেটা। বলিভিয়ার মাঠ লা পাজ সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ৪ হাজার মিটার উপরে অবস্থিত, যেখানে যেকোন দলই খেলতে গেলে হাঁসফাঁস করে। ম্যারাডোনা যখন আর্জেন্টিনার কোচ ছিলেন, সেই ২০১০ বিশ্বকাপের বাছাইপর্বে বলিভিয়ার মাঠে খেলতে গিয়ে ৬-১ গোলে হেরে নাকানিচুবানি খেয়েছিল আর্জেন্টাইনরা। ২০১৩ সালে বলিভিয়ার এই মাঠেই খেলতে গিয়ে মেসি বমি করে দিয়েছিলেন। তাই এই ম্যাচে যে আর্জেন্টিনা জিতবেই সেটা বলা যাচ্ছেনা, তাঁর উপর মেসি নেই।

মেসিহীন আর্জেন্টিনা বিশ্বকাপে না থাকলেও তাই আশ্চর্যের কিছুই থাকবেনা, কেননা এতটাই মেসি-নির্ভর হয়ে গেছে দলটা।

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

eighteen − 11 =