চেলসি’র দৃষ্টিকোণ থেকে : এখনই মাতিচ কে নিয়ে মাতামাতিটা ঠিক হচ্ছে?

ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে সার্বিয়ান সেন্ট্রাল মিডফিল্ডার নেমানিয়া মাতিচ খেলছে গত তিন-চার বছর ধরে, বেনফিকায় যাওয়ার আগের হিসাবটা ধরলে আরও বছরখানেক লম্বা হবে সময়টা। এই মৌসুমেই চেলসি থেকে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডে ৪০ মিলিয়ন পাউন্ডের বিনিময়ে মাতিচকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে, আর লিগের প্রথম ম্যাচেই ওয়েস্টহ্যামের বিরুদ্ধে মাতিচ অসাধারণ পারফর্ম করে সবার নজর কেড়েছে। কিন্তু তাই বলে এখনই মাতিচকে লিগের সবচেয়ে ভালো ডিফেন্সিভ মিডফিল্ডার হিসেবে আখ্যা দেওয়াটা একটু বাড়াবাড়ি নয় কি?

ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ভক্তদের বিষয়টা বুঝতে পারি, বেশ কয়েক বছর ধরেই আদর্শ কোন সেন্ট্রাল ডিফেন্সিভ মিডফিল্ডারের খেলা তারা দেখেননি নিজেদের দলে, হিসেব করলে সেই আইরিশ মিডফিল্ডার রয় কিন যাওয়ার পর থেকে বিশ্বমানের সেন্ট্রাল ডিফেন্সিভ মিডফিল্ডার ইউনাইটেডে বলতে গেলে খেলেননি, যেখানে চেলসিতে ঐ সময়ে খেলে গেছেন ও যাচ্ছেন ক্লদ ম্যাকেলেলে, জন ওবি মিকেল, মাইকেল এসিয়েন, রামিরেস, নেমানিয়া মাতিচ, এনগোলো কান্তের মত খেলোয়াড়েরা, এ মৌসুম থেকে খেলবেন তিমুইয়ে বাকায়োকোও। বলা বাহুল্য, এই মানের সেন্ট্রাল ডিফেন্সিভ মিডফিল্ডার সেই কিন যাওয়ার পর থেকে ইউনাইটেডে কখনো আসেননি। মাইকেল ক্যারিক, পল স্কোলস, অ্যান্ডারসন, পল পগবা, অ্যান্ডার হেরেরা, হুয়ান ভেরন, ড্যারেন ফ্লেচার – সবাই ভালো সেন্ট্রাল মিডফিল্ডার হতে পারেন, কিন্তু তাদেরকে আদর্শ ডিফেন্সিভ মিডফিল্ডার বলা যাবেনা কোনভাবেই।

অনেকেই ইউনাইটেড বনাম ওয়েস্টহ্যাম ম্যাচে নেমানিয়া মাতিচের পারফরম্যান্স দেখার পর প্রশ্ন তুলছেন – কেন চেলসি মাতিচের মত একটা খেলোয়াড়কে মাত্র (এখনকার হিসাবে মাত্রই) ৪০ মিলিয়ন পাউন্ডের বিনিময়ে ছেড়ে দিল? তাও আবার অন্য কোন ক্লাবের কাছে না, খোদ তাদেরই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের হাতে?

একজন চেলসি সমর্থক হিসেবে আমি বলব, নেমানিয়া মাতিচ সব মৌসুমেই শুরুর দিকে এরকম অসাধারণ পারফর্ম করে, তখন তাকে বিনাবাক্যব্যয়েই বিশ্বের সেরা ডিফেন্সিভ মিডফিল্ডার আখ্যা দেওয়া যায়। কিন্তু ৭-৮ ম্যাচ, কখনওবা কোন কোন ক্ষেত্রে শুরুর ৯ ম্যাচ শেষ হয়ে যাবার পর থেকেই মাতিচের পারফরম্যান্সের গ্রাফটা আস্তে আস্তে নিচের দিকে নামতে থাকে। সবসময় মৌসুমের শুরুতে অনবদ্য খেলে মৌসুমের শেষের দিকে তাঁর ঔজ্বল্য কমতে থাকে। খুব সম্ভবত সাবেক সতীর্থ সেস ফ্যাব্রিগাসের কাছ থেকে এই ‘গুণ’ টা পেয়েছেন তিনি!

মৌসুমের প্রথম ৭-৮-৯ ম্যাচ এভাবে খুব অসাধারণ খেলবেন মাতিচ, তারপর থেকে শুরু করবেন বাজে খেলা, এর মধ্যে সেই ৭-৮-৯ ম্যাচের মধ্যে দুই ম্যাচ খেলে ফেলেছেন তিনি ইউনাইটেডের জার্সি গায়ে, ভালো খেলার দিন ফুরিয়ে আসল বলে! কখনো কখনো মেশিনের মত খেলবেন তিনি, কিন্তু ডিসেম্বর জানুয়ারি চলে আসলেই মৌসুম শুরু সেই মাতিচকে আর খুঁজে পাওয়া যায় না!

চেলসি মালিক রোমান আব্রামোভিচ মাতিচকে ইউনাইটেডে যেতে দিয়েছেন কেবলমাত্র একটা কারণে, তিনি মনে করেন মাতিচ চেলসির একজন আদর্শ অনুগত সৈনিক ছিলেন, ঠিক গোলরক্ষক পিওতর চেক এর মত। পিওতর চেকের নিয়মিত ম্যাচ খেলার ইচ্ছাকে সম্মান জানিয়ে যেরকম আর্সেনালের কাছে বিক্রি করা হয়েছিল, ঠিক একইভাবে একই কারণে মাতিচকেও ইউনাইটেডের কাছে বিক্রি করা হয়েছে, কেননা মাতিচ চেলসিতে থাকলে কান্তে, বাকায়োকো আর ফ্যাব্রিগাসের জন্য হয়তোবা ম্যাচই পেতেন না তিনি।

তাই এখনই মাতিচকে বিশ্বের সেরা ডিফেন্সিভ মিডফিল্ডার বলার সময় আসেনি, এখনই নয়!

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

4 × 1 =