শিরোপার দাবি নিয়ে এসেছে মোহামেডানও!

তবে কি ফিরে এলো সেই স্বর্ণালি সময়ের মোহামেডান? আপাতদৃষ্টিতে প্রথম ম্যাচের স্কোরলাইন দেখে মোহামেডান সমর্থকেরা সেই আশায় বুক বাঁধতেই পারেন! মান্যবর বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে নিজেদের প্রথম ম্যাচে চট্টগ্রাম আবাহনীকে একরকম গোলবন্যায় ভাসিয়েছে যে তারা! জয়টি ৫-০ গোলের।

মোটামুটি আশ্চর্যের একটা বিষয় হল, ম্যাচের প্রথমার্ধে কিন্তু কোন গোলই হয়নি! উলটো খেলা দেখে মনে হয়েছে যে কোন মুহূর্তে গোল করে বরং কোন একটা অঘটনের জন্মই দিতে যাচ্ছে চট্টগ্রাম আবাহনী। মোহামেডানের পাঁচটি গোলের পাঁচটিই হয়েছে দ্বিতীয়ার্ধে। যার ফলে প্রথমার্ধে খেলা দেখে মনে হয়েছে শুধুমাত্র একটা ফিনিশারের অভাবে মোহামেডান ভুগবে। কিন্তু সকাল যে সবসময় দিনের সঠিক পূর্বাভাস দেয়না!

এককালে আবাহনীর পাশাপাশি শুধুমাত্র যে ক্লাবটি ছিল ঢাকার ফুটবলের পরাশক্তি, এবার বলতে গেলে তারা শক্তিশালী কোন দলই গড়তে পারেনি। দলে বর্তমান জাতীয় দলের কোন খেলোয়াড়ই নেই। এক ঝাঁক নবীনদের নিয়ে গড়া এই দল যে মোহামেডানকে প্রায় ভুলতে বসা পাঁচ গোলের জয় এনে দেবে, এটা মনে হয় খোদ কোচ জসীমউদ্দিন জোসিও কল্পনা করতে পারেননি।

৫৯ মিনিট পর্যন্ত মনে হল জানি নাক-মুখ আটকিয়ে দম খিঁচে মোহামেডানকে আটকে গেল চট্টগ্রাম আবাহনী। কিন্তু তারপর আর পারলো না। ভেঙ্গে গেল সব প্রতিরোধের দেয়াল। শেষ ৩০ মিনিটে মোহামেডান ঢাকার দর্শকদের যে রূপ দেখালো তাতে যে কারোরই সেই সোনালি যুগের মোহামেডানের কথা মনে আসতে বাধ্য।

10354087_822006047880465_509061658253080723_n

৫৯ মিনিটে মোবারকের থ্রু পাস ধরে গিনির ইসমাইল বাঙ্গুরা চট্টগ্রাম আবাহনীর জালে বল জড়িয়ে চট্টগ্রাম আবাহনীর প্রতিরোধের দেয়ালে ধরান প্রথম ভাঙ্গন। এরপরই যেন একেবারে তাসের ঘরের মত ভেঙ্গে পড়ে চট্টগ্রাম আবাহনীর ডিফেন্স। ৬৬ মিনিটে জাতীয় দলের সাবেক ফরোয়ার্ড দুর্দান্ত এক ভলিতে স্কোরলাইন দ্বিগুণ করেন। ৬৯ মিনিটে গোল করেন জনি। ৮৬ মিনিটে ইসমাইল বাঙ্গুরা করেন নিজের দ্বিতীয় গোল। এরপর ইনজুরি টাইমে মোহামেডান অধিনায়ক ডিফেন্ডার অরূপ বৈদ্য কাউন্টার অ্যাটাকে উঠে দলের পঞ্চম গোল করে ফেরেন।

এদিকে দিনের দ্বিতীয় ম্যাচে অভিজ্ঞ বিপ্লব-সুজনদের নিয়ে গড়া ব্রাদার্স ইউনিয়ন গোলশূণ্য ড্র করেছে নিজেএমসি’র সাথে।

10438891_822007964546940_4680971758582594670_n

ছবি কৃতজ্ঞতা – GoalBangladesh

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

fourteen + 15 =