লংকান দ্বীপে আবারো ক্রিকেট আনন্দ ফিরুক

মুরালির বলে জয়াবর্ধনের ক্যাচ ৭৭ তম বারের মতো, হয়ে যায় টেস্টে মুরালির ৮০০ তম টেস্ট উইকেট। অনেক বোলার স্বপ্নেও তা চিন্তা করতে পারেনা আর মুরালি ঘটিয়েছিলো বাস্তবে। ক্রিকেটে ব্যাট হাতে সব রেকর্ড যদি শচীনের হয় তবে বল হাতে সব রেকর্ড মুরালির।

ডন তার ক্যারিয়ার শেষ করে ৯৯.৯৪ গড় নিয়ে, শেষ ইনিংসে করতে পারেনি মাত্র চার রান। চার রানের আক্ষেপ ক্রিকেটপ্রেমীদের অনেকদিন পোড়াবে। মুরালিও থেমে যেতে পারবেন ৭৯৯ উইকেটে কিন্তু উপরআলা ডনের মতো তাকে নিরাশ করেনি প্রজ্ঞান ওঝাকে যখন ফেরায় তখন নামের পাশে জ্বলজ্বল করতে থাকে ৮০০ টেস্ট উইকেট। এ লোক অবসর না নিলে হয়তো ক্রিকেট ইতিহাস হাজারখানেক উইকেটও দেখতো! ২০১০ সালের আজকের দিনে ক্রিকেট ইতিহাসের সবচেয়ে সফল বোলার টেস্ট থেকে অবসর নেয় বিজয়ী বেশে। ২৩০ ইনিংসে ৪৪ হাজার বল করে ১৮ হাজার রান দিয়ে দখল করেছে ৮০০ উইকেট। ইনিংসে ৫ উইকেট ৬৭ বার আর ম্যাচে ১০ উইকেট ২২ বার, সব বিশ্বরেকর্ড।

জয়সুরিয়া, সাঙ্গা, মাহেলা, মুরালিদের দেখে আমরা অনেকেই বাংলাদেশের পর শ্রীলংকার ভক্ত হয়েছিলাম। আর সে শ্রীলংকা এখন সব কিংবদন্তীদের একসাথে হারিয়ে ধুঁকছে! মাইরে মাইরে মসলা, নারিকেল খাওয়া লংকান দ্বীপে আবারো ক্রিকেট আনন্দ ফিরুক।

@রিফাত এমিল

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

19 − eighteen =