কোথায় যাবেন ক্লপ?

ইয়ুর্গেন ক্লপ – বর্তমান ফুটবল বিশ্বের এক রূপকথার নাম। বরুশিয়া ডর্টমুন্ডের বুন্দেসলিগায় মোটামুটি মধ্যমশক্তির এক দল থেকে পরাশক্তি হয়ে ওঠা এই জার্মান কোচের হাত ধরেই। ২০০৮ সালে ডর্টমুন্ডের দায়িত্ব নেওয়ার পর বলতে গেলে জার্মানিতে বায়ার্ন মিউনিখের একাধিপত্ব খর্ব করার মত দুঃসাহস তিনিই দেখিয়েছেন, তাও আবার বায়ার্নের মত কাঁড়ি কাঁড়ি টাকা খরচ করে না, বরং তরুণ খেলোয়াড়দের পটেনশিয়াল সম্পূর্ণরূপে ব্যবহার করে।

BzacM5hCAAATGyG

রোমান ভাইডেনফেলার-লুকাস পিশচেক-নেভেন সুবোটিচ-ম্যাটস হামেলস-মার্সেল শ্মেলতজারের ডিফেন্সের বজ্রআঁটুনি, নুরি সাহিন-সভেন বেন্ডারদের মত মিডফিল্ডারদের অখ্যাত থেকে বিখ্যাত হয়ে ওঠা, প্যারাগুইয়ান লুকাস ব্যারিওসের সুপারস্টার হয়ে ওঠা, মারিও গোতসা’র বিশ্বসেরা হওয়া, কিংবা ট্রান্সফার মার্কেটে পাকা জহুরির পরিচয় দিয়ে সেরেজো ওসাকা-নুর্নবার্গ-লেচ পোজনান-বরুশিয়া মনশেনগ্ল্যাডবাখের মত অখ্যাত সব ক্লাব থেকে ক্লাব থেকে যথাক্রমে শিনজি কাগাওয়া-ইলকায় গুন্ডোগান-রবার্ট লেওয়ান্ডোউস্কি-মার্কো রয়েস কে খুঁজে বের করে নিয়ে আসা – এ ক’বছরে সবদিকে ক্লপের সাফল্যের কথা বলে শেষ করা যাবেনা। ক্লপের কোচিংয়েই এরা একেকজন হয়েছেন বিশ্বসেরা। কে চিনত আগে এদের?

ক্লপ, ডর্টমুন্ড - পথ হয়ে যাচ্ছে আলাদা
ক্লপ, ডর্টমুন্ড – পথ হয়ে যাচ্ছে আলাদা

সাত বছরে এই ডর্টমুন্ডকে নিয়ে ফুটবল রোমান্টিকদের হাজারো গল্পের খোরাক যোগানো এই ক্লপ দু’দিন আগে ঘোষণা দিলেন – মৌসুম শেষে ছাড়ছেন বরুশিয়া ডর্টমুন্ড। বুঝতে পেরেছিলেন হয়ত, ডর্টমুন্ডকে আর বেশি কিছু দেওয়ার নেই তাঁর। এই মৌসুমে ডর্টমুন্ড অত ভালোও করছিল না। ডর্টমুন্ডে থাকতেই ক্লাবের অন্যান্য খেলোয়াড়দের মত ক্লপ নিজেও ছিলেন বিশ্বখ্যাত বিভিন্ন ক্লাবের নজরে, অনেক বড় বড় ক্লাব চেয়েছে তাঁকে কোচ হিসেবে। মৌসুম শেষে ডর্টমুন্ডের দায়িত্ব ছাড়ার পর কোন কোন ক্লাব হতে পারে ক্লপের নতুন ঠিকানা, তা নিয়ে খানিক কাটাছেঁড়া করাই এই লেখার উদ্দেশ্য!

=> ম্যানচেস্টার সিটি

ক্লপের পরবর্তী ঠিকানা হবার ক্ষেত্রে সর্বাগ্রে রয়েছে ইংলিশ জায়ান্ট ম্যানচেস্টার সিটি। বর্তমানে চিলিয়ান ম্যানুয়েল পেলেগ্রিনি’র অধীনে থাকা এই ক্লাব এই মৌসুম বলতে গেলে খালি হাতেই শেষ করছে, ইংলিশ লিগ জেতার আশা শেষ বলতে গেলে, চ্যাম্পিয়নস লিগ থেকে বিদায় হয়েছে বার্সেলোনার হাতে। মৌসুমের শুরুতে কমিউনিটি শিল্ডে আর্সেনালের কাছে হার, নিউক্যাসল ইউনাইটেড-মিডলসব্রো’র কাছে লিগ কাপ-এফএ কাপে হার যোগ হয়েছে মড়ার উপর খাঁড়ার ঘা’এর মত। এই মৌসুমেও বর্তমানে সিটির যে ফর্ম, পরের মৌসুমে চ্যাম্পিয়নস লিগে জায়গা হওয়া নিয়েও আছে যথেষ্ট সন্দেহ। মৌসুম শেষে পেলেগ্রিনির ছাঁটাই হওয়া শুধু সময়ের ব্যাপার মাত্র। আর ছাঁটাই হলে সেক্ষেত্রে তাঁকে রিপ্লেইস করার জন্য সবার আগে আসবে ইয়ুর্গেন ক্লপের নাম।

যেকোন মুহূর্তে ছাঁটাই হতে পারেন পেলেগ্রিনি
যেকোন মুহূর্তে ছাঁটাই হতে পারেন পেলেগ্রিনি

=> বার্সেলোনা

হ্যাঁ। তালিকায় বার্সেলোনাকেও রাখতে হচ্ছে। দুইদিন আগেই খবর বের হয়েছিল ক্লাবের বর্তমান কোচ লুইস এনরিকে’র সাথে ক্লাবের সুপারস্টার লিওনেল মেসি’র দ্বন্দ্বের খবর। খবরটা আমনই ডালপালা গজিয়েছিল যে অনেকে মেসিকে ট্রান্সফার লিস্টেও তুলে দিয়েছিলেন। কিন্তু এখন সেই গুজব অনেকটাই স্তিমিত, বার্সেলোনাও লা লিগার পয়েন্ট তালিকার এক নম্বরে অবস্থান করছে বর্তমানে। কিন্তু ঐ যে, যা রটে, তা কিছু হলেও বটে! তাই মৌসুম শেষে জাঁদরেল হেডমাস্টার লুইস এনরিকে যদি ছাঁটাইও হন, সেক্ষেত্রে বলার থাকবে না কিছুই। আর সেই দৃশ্যকল্পে ইয়ুর্গেন ক্লপ খুব ভালোভাবেই মানিয়ে যান!

নিশ্চিত নয় বার্সেলোনায় এনরিকের জায়গাটাও
নিশ্চিত নয় বার্সেলোনায় এনরিকের জায়গাটাও

=> প্যারিস সেইন্ট জার্মেই

ম্যানচেস্টার সিটির মত আরেক ক্লাব, যারা কিনা সাফল্য গড়তে না, বরং সাফল্য কিনতেই আগ্রহী। প্রতি মৌসুমে কাঁড়ি কাঁড়ি টাকা খরচ করা প্যারিস সেইন্ট জার্মেই এখন ফ্রেঞ্চ লিগ ওয়ানের পয়েন্ট তালিকার দুইয়ে, চ্যাম্পিয়নস লিগে বার্সেলোনার কাছে প্রথম লেগে ৩-১ গোলে হেরে চ্যাম্পিয়নস লিগ থেকেও বিদায়ের দ্বারপ্রান্তে। কোচ লঁরা ব্লাঁ এর সময়টা যে খুব ভালো যাচ্ছেনা, তা বলাই যায়। মৌসুম শেষে তাই প্যারিস সেইন্ট জার্মেই ব্লাঁ কে ছাঁটাই করে ইয়ুর্গেন ক্লপের জন্য একটা চেষ্টা করতেই পারে!

লঁরা ব্লাঁ
লঁরা ব্লাঁ

=> রিয়াল মাদ্রিদ

তালিকায় রিয়াল মাদ্রিদ নামটা অতটাও অবশ্যম্ভাবী নয়। কারণ গত মৌসুমের চ্যাম্পিয়নস লিগের শিরোপাজয়ীদের সামনে এই মৌসুমেও চ্যাম্পিয়নস লিগ জয়ের হাতছানি রয়েছে, বার্সেলোনাকে টপকে লা লিগা চ্যাম্পিয়ন হয়ে যাওয়াটাও অস্বাভাবিক কিছু না। কিন্তু ঐ যে, দলটা ত রিয়াল মাদ্রিদ! এরা ইয়াপ হেংকেসের মত কোচকেও চ্যাম্পিয়নস লিগ জয়ের ঠিক পরের সপ্তাহেই যেহেতু ছাঁটাই করতে পারে,সেহেতু লিগ বা চ্যাম্পিয়নস লিগের কোন একটা যদি জিততে অ্যানচেলত্তি অসমর্থ হন, তাহলে অ্যানচেলত্তিকে যে ছাঁটাই করা হবেনা, তাঁর গ্যারান্টি কি? আর সেক্ষেত্রে ইয়ুর্গেন ক্লপ হতে পারেন একটা ইন্টেরেস্টিং সলিউশান।

দলটা রিয়াল মাদ্রিদ বলে নিশ্চিতভাবে বলা যাচ্ছেনা অ্যানচেলত্তির ভবিষ্যৎটাও
দলটা রিয়াল মাদ্রিদ বলে নিশ্চিতভাবে বলা যাচ্ছেনা অ্যানচেলত্তির ভবিষ্যৎটাও

=> এসি মিলান

তালিকায় এসি মিলানের নামটা খানিক চমক জাগানিয়া। টাকা পয়সার অভাব, ক্লাবের দৈন্যদশা – মাঠে ও মাঠের বাইরে, বারংবার কোচের পরিবর্তন – মিলানের এখন প্রয়োজন একজন শক্ত কোচ, যিনি কিনা ঝঞ্ঝাবিক্ষুব্ধ এই ক্লাবকে দিতে পারেন এক সঠিক দিকনির্দেশনা। এ কয়বছরে লিওনার্দো, ম্যাসিমিলিয়ানো অ্যালেগ্রি, ক্ল্যারেন্স সিডর্ফ, ফিলিপ্পো ইনজাঘি – মিলানের কোচ পরিবর্তন হয়েছে অনেকবার। কিন্তু কেউই ফিরিয়ে আনতে পারেননি মিলানের সেই সোনালী সময়। সেক্ষেত্রে এসি মিলানকে নিজের পরবর্তী লক্ষ্য হিসেবে ভাবতেই পারেন ক্লপ।

পিপ্পো ইনজাঘি পারেননি খেলোয়াড়ি জীবনের মত মিলানের একজন সফল ম্যানেজার হতে
পিপ্পো ইনজাঘি পারেননি খেলোয়াড়ি জীবনের মত মিলানের একজন সফল ম্যানেজার হতে

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

six + 4 =