দ্য গ্রেটেস্ট ম্যানেজার ইংল্যান্ড নেভার হ্যাড

বাবার মৃত্যুর মাস দুয়েক আগে কলামিস্ট ও লেখক জনাথান উইলসন বিখ্যাত ইংলিশ ফুটবলার ও ম্যানেজার ব্রায়ান ক্লফের উপর একটি বই লেখার সিদ্ধান্ত নেন। স্মৃতিশক্তি প্রায় হারিয়ে ফেলা বাবাকে নিজের সিদ্ধান্তের কথা জানিয়ে উইলসন প্রশ্ন করেন, ক্লফের কথা তাঁর মনে আছে কি না।

প্রশ্নটি শুনে উইলসনের বাবা তাঁর ছেলের দিকে এমন ভাবে তাকালেন যেন তাঁর ছেলে একটা বিরাট নির্বোধ!! তিনি উত্তর দেন,“অবশ্যই আমার মনে আছে!” তারপর তিনি ১৯৬২ সালে Grimsbyর বিপক্ষে ব্রায়ান ক্লফের হ্যাট্রিকের কথা বর্ণনা করেন ; অথচ দুপুরে কি খেয়েছেন – সেটাই তাঁর মনে ছিলো না!!


Billingham Synthonia ক্লাবের হয়ে ক্যারিয়ার শুরু করা ব্রায়ান ক্লফ পরবর্তীতে মিডলসবরো আর সান্ডারল্যান্ডের হয়ে ২৭৪ ম্যাচে ২৫১টি গোলকরেন।ম্যাচ প্রতি তাঁর গোলসংখ্যা ছিলো ০.৯১৬টি, যা ইংলিশ লিগ গুলোতে কমপক্ষে ২০০ গোল করেছেন, এমন খেলোয়াড়দের মধ্যে সর্বোচ্চ এবং আজ পর্যন্ত তাঁর এই রেকর্ড কেউ ভাঙতে পারেনি! অথচ ছোটবেলায় কিন্তু ফুটবলার না হয়ে ক্রিকেটারই হতে চেয়েছিলেন তিনি।সেসময় ওয়েম্বলি স্টেডিয়ামে হ্যাট্রিক করা নয়, লর্ডসে সেঞ্চুরি করাই ছিলো তাঁর স্বপ্ন!১৯৬২ সালে এক ম্যাচে প্রতিপক্ষ গোলকিপারের সাথে সংঘর্ষে Anterior Cruciate Ligament ছিঁড়ে যাওয়ায় তাঁর ক্যারিয়ার প্রায় শেষ হয়ে যায়।দুই বছর পর আবার ফিরে এলেও তিন ম্যাচের বেশি খেলতে পারেননি তিনি।

বন্ধু পিটার টেইলরের সাথে

বন্ধু পিটার টেইলরকে সাথে নিয়ে মাত্র ৩০ বছর বয়সে ব্রায়ান ক্লফ হার্টলিপুল ইউনাইটেডের ম্যানেজারের দায়িত্ব নেন।যাত্রা শুরু হয় ফুটবল ইতিহাসের অন্যতম সেরা ম্যানেজার-জুটির। ১৯৬৭ সালে তাঁরা যোগ দেন ডার্বি কাউন্টিতে।সেকেন্ড ডিভিশনের তলানিতে থাকা ডার্বি, ক্লফের অধীনে ১৯৬৮ সালে চ্যাম্পিয়ন হয়ে উঠে আসে ফার্স্ট ডিভিশনে, ১৯৭১-৭২ সিজনে জিতে নেয় ফার্স্ট ডিভিশন শিরোপা ; এমনকি পরের সিজনে খেলে ফেলে ইউরোপিয়ান কাপের (বর্তমান ইউসিএল) সেমিফাইনালেও!ডার্বির ম্যানেজার থাকা অবস্থায় ব্রায়ান ক্লফ এবং তৎকালীন লিডস ইউনাইটেডের ম্যানেজার ডন রেভির মধ্যে গড়ে ওঠে এক বিখ্যাত “রাইভালরি”। রেভির “Rough & Tough” খেলার ধরনের প্রায়ই সমালোচনা করতেন তিনি।নিয়ম-নীতিকে কখনোই খুব একটা তোয়াক্কা না করা ক্লফ, এতো সব সাফল্যের পরও ডার্বির চেয়ারম্যানের সাথে বিবাদে জড়িয়ে ১৯৭৩ সালে পদত্যাগ করেন। এরপর ক্লফ ও টেইলর যোগ দেন Brighton & Hove Albion এ।

কিছুদিন পর ডন রেভি ইংল্যান্ড জাতীয় দলের দায়িত্ব নিলে লিডস ইউনাইটেডের কোচ হন ব্রায়ান ক্লফ। যদিও তাঁর বন্ধু পিটার টেইলর দীর্ঘদিনের “শত্রু” লিডসে যোগ দিতে অস্বীকৃতি জানান।

সেসময়ের লিগ চ্যাম্পিয়ন এবং খেলার মাঠে মারমুখী আচরণের জন্য সুপরিচিত লিডস এর খেলোয়াড়দের সাথে প্রথম ট্রেইনিং সেশনেই ক্লফ তাদের বলেন, “You can all throw your medals in the bin because they were not won fairly.” রেভির প্রতি অনুগত লিডসের খেলোয়াড়রা কখনোই ক্লফকে ম্যানেজার হিসেবে মেনে নেয়নি। প্রথম ছয় ম্যাচের মধ্যে শুধু একটি জিতে লিডস, মাত্র ৪৪ দিনের মাথায় বরখাস্ত হন ক্লফ।

নিজের ভুল বুঝতে পেরে ব্রায়ান ক্লফ পুনরায় প্রিয় বন্ধু পিটারকে তাঁর কোচিং স্টাফে ফিরিয়ে আনেন এবং যোগ দেন সেকেণ্ড ডিভিশনের ক্লাব নটিংহ্যাম ফরেস্টে।তাঁর জীবনের সেরা সাফল্য আসে এই ক্লাবের হয়েই।তাঁর অধীনে নটিংহ্যাম ফরেস্ট জিতে নেয় একটি লিগ শিরোপা, চারটি লিগ কাপ, দুইটি ইউরোপিয়ান কাপ আর একটি ইউরোপিয়ান সুপার কাপ! এর মধ্যে ইউরোপিয়ান কাপ দুইটি এসেছিলো পরপর দুই সিজনে! ১৯৯৩ সালে নটিংহ্যাম ফরেস্ট রেলিগেটেড হওয়ার পর ক্লফ অবসর নেন।


যেকোনো বিষয়ে ক্লফের সেন্স অফ হিউমার ছিলো অসাধারণ।তাঁর এই গুণের কারণে তিনি হয়ে উঠেছিলেন একজন “সেলিব্রিটি। ইংল্যান্ডের অন্য ক্লাবগুলোর মতো লং পাস- নির্ভর খেলার চেয়ে ছোট-ছোট পাসে সুন্দর ফুটবল খেলাই তিনি বেশি পছন্দ করতেন।এ ব্যাপারে তাঁর বক্তব্য ছিলো এমনঃ If God had wanted us to play football in the clouds, he’d have put grass up there! সেইসময় কার অনেকেই ক্লফকে ইংল্যান্ডের কোচের দায়িত্বে দেখতে চাইলেও প্রায়ই ইংলিশ ফুটবল ফেডারেশনের সমলোচনা করার কারণে নির্বাচকরা তাঁকে সেই দায়িত্বটি দিতে রাজি হননি। আর এই জন্যেই ক্লফকে বলা হয় “The Greatest Manager England Never Had”. ক্লফের জনপ্রিয়তা এতোই ব্যাপক ছিলো যে,২০০৪ সালে তাঁর মৃত্যুর পর চিরবৈরিতা ভুলে ডার্বি এবং নটিংহ্যাম ফরেস্ট তাঁকে একসাথে শ্রদ্ধা জানায়।

সেকেন্ড ডিভিশনে পড়ে থাকা একটি দলকে নিয়ে পরপর দুই বছর ইউরোপিয়ান কাপ জেতার কথা শুনলে আজ রুপকথার মতোই মনে হয়! কিন্তু ব্রায়ান ক্লফের মতো ইতিহাসের অন্যতম সেরা ম্যানেজারের কাছে কিছুই অসম্ভব ছিলো না। কারণ তিনি নিজেই বলতেনঃ I wouldn’t say I was the best manager in the business. But I was in the top one.”

আজ এই দিগ্বিজয়ী ম্যানেজারের জন্মদিন, শুভ জন্মদিন ক্লফ!

@শাহ আকিব সারোয়ার

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

two × 2 =