খুশী, আনন্দ, হর্ষ , উৎকর্ষ

আজকের দিনে বাংলাদেশের সবচেয়ে খুশি মানুষটি কে ? আপনি সৌম্যের কথা বলবেন? মাশরাফির কথা বলবেন ? সাকিবের কথা বলবেন ২০০ উইকেটের ল্যান্ডমার্ক পুরো করার জন্য ? নাকি তামিম ইকবালের কথা বলবেন সাময়িক অফফর্মকে নিজের ডেরায় ঝেঁটিয়ে বিদায় করার জন্যে ? তবে আজ তো আবেগের দিন । হিসেব করে আর অর্জন মিলিয়ে আজ খুশি হওয়া যাবে না । কারো ব্যক্তিগত অর্জন কম হবে , খুশী হবে বেশি । আবার কারো ব্যক্তিগত অর্জন বেশি হবে , খুশী হবে তার চাইতেও বেশী ।

তবে পোড় খাওয়া ক্লাসের সাপোর্টার হওয়াতে দক্ষিণ আফ্রিকার সাথে সিরিজ জেতার সময় আমার সবচেয়ে বেশি মনে পড়ছে খালেদ মাহমুদ আর তাপশ বৈশ্যদের । একটা সময় ছিলো যখন আমরা দেড়শ-দুশো করতাম। গ্রায়েম স্মিথ নেমে জোরে কয়েকটা মেরে ৭০-৮০ রান করে সেঞ্চুরি না পাওয়ার আফসোস নিয়ে আস্তে আস্তে আমাদের খেলোয়াড়দের সাথে হ্যান্ডশেক করে ছোট করে “ওয়েল প্লেইড ” বলে গর্বিত ভঙ্গিতে মাঠ ছাড়ত । আর মাঠ থেকে আমাদের দলের এগারো জন তখন খুব আস্তে আস্তে মাঠ থেকে বেরিয়ে আসত । ততক্ষণে আমাদের হাতে রিমোট । চ্যানেল বদলাও । অথবা বেশিরভাগই হতাশার চোটে রিমোটের পাওয়ার বাটনে । আজ কি আমাদের সেই দলের প্রতিনিধিদের গর্বিত হবার দিন না ? তারাই বা সৌম্য-মোস্তাফিজের চাইতে কম খুশি হবে কেনো ?
আতাহার আলী খান বা শামীম চৌধুরির মত যাদেরকে কমেন্ট্রি বক্সে অনেকটা সময় শুধু অন্যের গুণকীর্তন করেই কাটাতে হয়েছে , তাদের খুশিটাই কম পড়বে কেন ? যেই চট্টলাবাসীর এত আশার ম্যাচ বৃষ্টিতে ভেসে যাচ্ছিলো , তারাই ম্যাচ শেষে জয়ের পরে কম খুশি হবে কেন ? মাঠের খেলা ১১ জনের আর খুশি অনেক জনের । সৌম্য মারছে আর দলের বাইরে থাকা আনামুল পানি দিতে এসে প্রতি সেকেন্ডে সেকেন্ডে যেভাবে হাসছে … সারাদেশের আসল ছবিটা বোঝাতে এর চাইতে আর বেশি কিছু লাগে না ।

এসব দিনে আসলে খেলা নিয়ে কথা বলার জায়গা খুব কম । সবকিছুই মুহূর্তে মুহূর্তে চোখে মায়াঞ্জন বুলিয়ে যায় । রাতে ঘুমানোর সময় এক কাঁতে মর্কেলকে মারা সৌম্যের বেসবল হিটের কথা মাথায় আসবে … আবার অন্যদিকে ঘুরলে সাব্বিরের উড়ে ক্যাচটাও চোখ থেকে সরে না । দুইদিন আগের বড়লোক বোলার ক্যাগিসো রাবাদাকে ফকির বানিয়ে দেওয়ার মজাটাও তো পৈশাচিক । আবার ক্রিকেটের ট্রল পেইজে পাকিস্তানি আর ভারতের ছাগলগুলোকে চুপসে যেতে দেখাটাও কম মজার কীসে ? একসময়ের চানাচুর বিক্রেতা জসীম পরিশ্রম করে বড় ব্যবসায়ী হয়ে যাখন আহমেদ শরীফকে টপকে বাংলা ফিল্মে বিজনেস এসোসিয়েশনের হেড নির্বাচিত হয়; এই আনন্দটা সেই আনন্দের মত ।

খুশির রেণু আজ সবখানে ।

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

5 × 3 =