রোমার মিডফিল্ডে ডি রসির প্রতিযোগী – ম্যাক্সিম গনালন্স

নতুন মৌসুমে এএস রোমা সাজছে নতুন সাজে। দলে এসেছেন নতুন কোচ ইউসেবিও ডি ফ্র্যানসেস্কো, এসেছেন কিংবদন্তী স্পোর্টিং ডিরেক্টর মঞ্চি। এই দুইয়ের সম্মেলনে দলবদলের বাজারে বেশ ভালোই সাড়া ফেলছে তারা। মেক্সিকান অধিনায়ক সেন্টারব্যাক হেক্টর মোরেনো আর ইতালিয়ান তরুণ মিডফিল্ডার লরেঞ্জো পেলেগ্রিনিকে আনার পর কিছুদিন আগে ফেইনুর্দ থেকে ডাচ রাইটব্যাক রিক কার্সডর্পকে এনেছে তারা। তবে এখনই কোচ ইউসেবিও ডি ফ্র্যানসেস্কোর মধ্যে থামার কোন লক্ষণ দেখা যাচ্ছেনা। ধুরন্ধর স্পোর্টিং ডিরেক্টর মঞ্চির সহায়তায় এবার তারা দলে টেনেছে ফরাসী ক্লাব লিওঁর অধিনায়ক, ডিফেন্সিভ মিডফিল্ডার ম্যাক্সিম গনালন্সকে, তাও মাত্র পাঁচ মিলিয়ন ইউরোর বিনিময়ে! না, ভুল পড়েননি, লিওঁর মত ক্লাবে আটবছর খেলে ৩৩৩ ম্যাচ খেলা অভিজ্ঞ এক সেন্ট্রাল মিডফিল্ডারকে তারা পেয়েছে মাত্র পাঁচ মিলিয়ন ইউরোর বিনিময়ে।

গনালন্সের খেলার স্টাইল পর্যালোচনা করলে বোঝা যায়, মূলত ডিফেন্সিভ মিডফিল্ডার তিনি। মিডফিল্ডের মাঝে অনবরতভাবে ট্যাকল আর ইন্টারসেপ্ট করে প্রতিপক্ষের পা থেকে বল কেড়ে নেওয়াই তাঁর খেলার মূল হাইলাইট। যে কাজটা বহু বছর ধরেই করে যাচ্ছেন রোমার পোড় খাওয়া সেনানী ড্যানিয়েলে ডি রসি। রোমার প্রতি চির অনুগত থাকা এই মিডফিল্ডারের বয়স এখন তেত্রিশ, বোঝাই যাচ্ছে আস্তে আস্তে ডি রসিকে বাদ দিয়ে ভবিষ্যতের চিন্তা করতে শুরু করতে শুরু করে দিয়েছে রোমা। ডি রসি চলে গেলে রোমার মিডফিল্ডে যে অভিজ্ঞতা ও দক্ষতার অভাব দেখা দিবে, তাঁর জন্যই মূলত লিওঁর এই অভিজ্ঞ ডিফেন্সিভ মিডফিল্ডারকে দলে আনা হয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে। অত বেশী গতিশীল খেলোয়াড় না গনালন্স, ফলে পজিশনিং এর দিকে গুরুত্ব দিয়ে তাঁকে প্রতিপক্ষের পা থেকে বল কেড়ে নেওয়ার কাজটা করতে হয়, যার কারণে ফাউল করার হারটাও তাঁর খানিক বেশী। সদ্য শেষ হওয়া মৌসুমে লিওঁর হয়ে সাতটা হলুদ কার্ড ও একটা লাল কার্ড পেয়েছেন তিনি। তবে ট্যাকল ইন্টারসেপ্ট করতে পছন্দ করলেও মিডফিল্ডে বেশ ভালো দিয়ে খেলা গড়তে পারেন তিনি, যে গুণটা তাঁর প্রায়ই আড়ালে পড়ে যায়। পাস সফলতার হার তাঁর ৯০ শতাংশ, যেখানে ড্যানিয়েলে ডি রসির সফল পাস দেওয়ার হার ৮৫.৭ শতাংশের মত। মিডফিল্ড থেকে মাঝে মাঝে লং বল দিতে পছন্দ করা এই মিডফিল্ডার প্রতি ম্যাচে গড় পাস দেন ষাটটার মত, প্রায় ড্যানিয়েলে ডি রসির সমান। আপাতত গনালন্সের ভূমিকাটা ড্যানিয়েলে ডি রসির ব্যাকআপেরই, আর লিওঁর মত একটা ক্লাবের অভিজ্ঞ অধিনায়ককে মাত্র ৫ মিলিয়ন ইউরোর বিনিময়ে ব্যাকআপ হিসেবে পাওয়া, মঞ্চি তাঁর জাদু যথারীতি ভালোই দেখাচ্ছেন!

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

eleven + twelve =