জেলখানার ফুটবল ম্যাচ!

শিরোনাম দেখে ভাবার কোন কারণ নাই যে আমি রূপকথা লিখতে বসছি। পিউর ইতিহাস নিয়ে লিখছি। ঘটনার পটভূমি ল্যাটিন আমেরিকার দেশ কলাম্বিয়া। কলাম্বিয়া বললেই আমাদের সবার আগে একটা নাম মনে আসে- সেটা হচ্ছে ইস্কোবার! আন্দ্রেস ইস্কোবার! আন্দ্রেস ইস্কোবার হলেন একমাত্র ফুটবলার যাকে গুলি করে হত্যা করা হয়েছিল। তার অপরাধ ছিল সে ৯৪ এর বিশ্বকাপে যুক্তরাষ্ট্রের বিপক্ষে একটা ওউন গোল করেছিল যার কারণে বিশ্বকাপ থেকে ছিটকে পড়েছিল কলাম্বিয়া। সে যাই হোক। আন্দ্রেস ইস্কোবারের কথা লেখার শেষে আবার বলব। আপাতত লেখার ফোকাস পয়েন্ট রাখি পাবলো ইস্কোবারের দিকে!

পাবলো ইস্কোবার কে ছিলেন? ১৯৪৯ সালের ১ ডিসেম্বর কলাম্বিয়ার রিওনেগ্রোতে জন্মগ্রহণ করা পাবলো এমিলো ইস্কোবার গাভিরিয়াকে কেউ বলত “ড্রাগ লর্ড অভ কলাম্বিয়া”, কেউ বলত “কিং অভ কোকেইন”! অনেকে তাকে বলে ইতিহাসে সবচেয়ে ধনী ক্রিমিনাল! ১৯৯০ সালের শুরুর দিকে তার বার্ষিক আয় ছিল ৩০ বিলিয়ন ইউএস ডলার! ১৯৮৯ সালের Forbes ম্যাগাজিন ইস্কোবার সম্পর্কে লিখে ইস্কোবার হলে বিশ্বের ২২৭ জন বিলিনিয়নরদের একজন যার ব্যক্তিগত বার্ষিক আয় ৩ বিলিয়ন ডলারের বেশি!

মিফিয়া হলেও ইস্কোবার নিজেকে কলাম্বিয়ার গরিব মানুষের কাছে রবিন হুড হিসেবে প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। তার অনুদানে কলাম্বিয়ায় অনেক হাসপাতাল, স্কুল, কলেজ, চার্চ প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। ফুটবলের প্রতি ইস্কোবারের ছিল বিশেষ আকর্ষণ। ফুটবল সম্পর্কে অনেক ভালো জানা শোনা ছিল তার। সে ছিলেন Atlético Nacional  ফুটবল ক্লাবের এর মূল ফাইন্যান্সার। ২ ডিসেম্বর, ১৯৯৩ সালে মেডেলিওনে কলাম্বিয়ান পুলিশের হাতে গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা যাওয়ার সময়ও ইস্কোবারের পায়ে ফুটবল বুট পড়া ছিল।

ভূমিকা শেষ। এবার মূল কাহিনীতে আসি। কাহিনীর সুত্রপাত হয় ২০ জুলাই ১৯৮৯ সালে। সেদিন ইস্কোবারের নির্দেশে কলাম্বিয়ান প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী লুইজ কার্লোস গালান-কে হত্যা করা হয়। এর পর কলাম্বিয়ান সরকার ইস্কোবারের বিরুদ্ধে কঠোর হয়। কিন্তু ইস্কোবারকে সাইজ করা এত সোজা কথা না। অনেক কাহিনীর পর সরকার ইস্কোবার এর সাথে রফা করে ইস্কোবার যদি সেচ্ছায় কারাবরণ করে এবং আর অপরাদ এর সাথে জড়িত না থাকে তাহলে তার বিচার করা হবে না। ইস্কোবারের শর্ত ছিল তার জন্য আলাদা ভাবে একটা বিলাশবহুল জেলখানা বানাতে হবে। সেই জেলখানার নাম La Catedral! এই লা কেতেড্রালই একমাত্র জেলখানা যেখানে অনুষ্ঠিত হয় দুটি ফুটবল ম্যাচ।

১৯৯১ সালের  এক দুপুর বেলা কলাম্বিয়ার ক্লাব Independiente Medellin এর ক্যাপ্টেইন ওস্কার পেরেজা একটা ম্যাসেজ পেলেন। সেখানে লেখা ছিল ইস্কোবার খুশি হবেন যদি পেরেজা নিজে এবং তার ৬ জন টিমম্যাটকে নিয়ে লা কেতেড্রাল প্রিজনে আসে এবং সেখানে একটা ফুটবল ম্যাচ খেলে। ম্যাসেজে আরো জানানো হয় যে ওই ম্যাচে ইস্কোবার খেলা দেখবেন না বরং নিজে খেলবেন।

পেরেজা গিয়েছিলেন। তাকে যেতে হয়েছিল। কারণ ইস্কোবারের আমন্ত্রণ ফিরিয়ে দেয়া মানে নিজের মৃত্যুদন্ডাদেশে নিজে সই করা। ইস্কোবার হাজার হাজার লোককে হত্যা করেছেন। তার মাঝে পুলিশ অফিসার ছিল, ব্যবসায়ী ছিল, বিচারক ছিল এমন কি কয়েকজন প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থীও ছিল। কয়েকজন ফুটবলার হত্যা করতে তার বেগ পাওয়ার কথা না।

লা কেতেড্রালে পৌঁছানোর পর পেরেজাদের বেশ আদর আপ্যায়ণ করা হয়। ইস্কোবার পেরেজার পাশের একটা চেয়ারে বসে অনেকক্ষণ ফুটবল নিয়ে কথা বলেন। পেরেজার ভাষায় ইস্কোবারকে মনে হচ্ছিল ইশ্বরের মত যে দয়া করে দেখা দিয়েছেন। ইস্কোবার তাকে তার ডাক নাম এল গাউপো বলে সম্বোদন করলেন। তাকে জিজ্ঞেস করলেন, গাউপো! তুমি রেফারিদের সাথে এমন চিৎকার চ্যাঁচামেচি কর কেন? আমরা রেফারিদের পে করি। এটা মোটেই ভালো কাজ না!

এরপর শুরু হল জেলখানার প্রথম ফুটবল ম্যাচ। ইস্কোবার লেফট মিডফিল্ডার হিসেবে নামলেন যদিও সে ছিল রাইট ফুটেড। পেরেজার টিমম্যাট কার্লোস আলভারেজ এর দায়িত্ব ছিল ইস্কোবারকে গার্ড দেয়া। বুঝাই যাচ্ছে তখন তার মানসিক অবস্থা কেমন ছিল। কারণ কম গার্ড দিলে ইস্কোবার অপমানিত হবেন, বেশি গার্ড দিলেও অপমানিত হবেন। দুটার ফলাফলই হচ্ছে নিশ্চিত মৃত্যু! তার উপর ইস্কোবার আলভারেজকে বললেন, তুমি যদি আমাকে লাথি মারো তাহলে তোমাকে লা কেতেড্রালে থেকে যেতে হবে! আলভারেজ পুরা ম্যাচে শুধু ইস্কোবারকে গার্ড দেয়ার অভিনয় করে গেলেন। আর হ্যাঁ, ম্যাচে কোন রেফারি ছিল না। ইস্কোবারই ছিলেন রেফারি। সে যা বলেছে সেটাই ছিল সিদ্ধান্ত!

১ ঘন্টা ৩০ মিনিটের ম্যাচটা স্বাভাবিক ভাবেই জিতেছিল ইস্কোবার আর তার গার্ডেরা। ইস্কোবার তাদেরকে আসার জন্য ধন্যবাদ জানান এবং পরে আরো একটি ম্যাচ খেলার আমন্ত্রণ জানান। পেরেজারা সেই ম্যাচ খেলতেও গিয়েছিলেন। এবং সেদিনও ইস্কোবার এন্ড গং -ই জিতে।

যদিও ৯৩ সালেই ইস্কোবার মারা যায়, কিন্তু তার ভূত কলাম্বিয়ান ফুটবলকে ছেড়ে যায় নিই। তার প্রমাণ ৯৪ এর বিশ্বকাপে ওন গোল করে কলাম্বিয়ার এবং সেই সাথে নিজের কপাল পোড়ানো আন্দ্রেস ইস্কোবার। যাকে নির্মম ভাবে গুলি করে হত্যা করা হয়। পেরেজার বলেছিলেন, তারা যখনই কোন ম্যাচ জিততেন তখন অগ্যাত স্থান থেকে তাদের জন্য ৮০০০ ডলারের বোনাস আসত।

কে দিত সেই বোনাস?

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

fifteen − one =