তবে কি ফিফায় ফ্রাংকোর ভূত?

শাষকের বিরুদ্ধে, শোষণের বিরুদ্ধে বার্সেলোনার লড়াইয়ের ইতিহাস নতুন নয়। সেই কুখ্যাত ফ্রাংকোর কথা নিশ্চয়ই কেউ ভুলে যান নি? পদে পদে দলিত করেছি বার্সাকে সেই জেনারেল ফ্রাংকো। সেসব শোষণ, অপশাসন এর বাঁধা ডিঙ্গিয়ে বার্সা আজকের বার্সা হয়েছে। কিন্তু একবিংশ শতাব্দিতে সেই সাম্রাজবাদ পুঁজিবাদের নতুন খোলস ধারণ করলেও শোষণ করার মানসিকতা কিন্তু ছাড়ে নাই। সে রকমই এক শাষক হল ফিফা যাদের মটো হল ফর দ্য গেইম, ফর দ্য ওয়ার্ল্ড! কিন্তু আসলে তারা খেলাটার কতটুকু ভালো করতেছে? উত্তর খুব হতাশাজনক। ফিফার মাঝেই বিলিয়ন ডলারের দুর্নীতি, আর্থিক কেলেঙ্কারি- এই সর্ষের মাঝেই ভূত।

বার্সেলোনাকে যে অপরাধে ট্রান্সফার ব্যান দিল সেটাকে কি অপরাধ বলা চলে? একাডেমির জন্য ক্ষুদে প্লেয়ার সাইন করাটা কি অন্যায়? লা মাসিয়া কি অন্যায় কোন আইডিওলজি? মোটেই না। ঠিক একই কাজগুলো স্পেইন এবং ইংল্যান্ডের আরো অনেক ক্লাব করে থাকে। কিন্তু তাদের দিকে ফিফার কোন মাথা ব্যথাই নেই। যখনই ব্যাপারটা বার্সার বিষয়ে তখনই ফিফা উঠে পড়ে লাগল। কারণ লা মাসিয়া দিয়েই বার্সা বিশ্ব শাসন করছে। লা মাসিয়া ধ্বংস করে দিতে পারলে বার্সার ভিত নাড়িয়ে দেয়া যাবে।

এরপর আসি সম্প্রতি ঘটে যাওয়া নেইমারের ঘটনায়। নেইমারের সাবেক ক্লাব সান্তোস দাবী করেছে নেইমারের ট্রান্সফারে অনিয়ম হয়েছে। এই জন্য তারা নেইমারের ছয় মাসের ব্যানও চেয়েছে। ফিফা সাথে সাথে সেই দাবী আমলে নিয়ে নেইমারের বিরুদ্ধে তদন্তের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। অন্য দিকে রাফিনহা ইঞ্জুরড হওয়ার পর ওর রিপ্লেসমেন্ট হিসেবে তুরানকে রেজিস্টার্ড করার জন্য গত এক মাসে বার্সা থেকে ফিফায় ৩ দফা আবেদন করা হয়েছে। সেই আবেদনের রিভিউ করার সময়টুকুও ফিফার হয় নি।

ফিফা যদি সত্যিকার অর্থেই ‘ফর দ্য গেইম, ফর দ্য ওয়ার্ল্ড’ মটোতে বিশ্বাস করত তাহলে একটা নির্দিষ্ট ক্লাবের প্রতি এমন বিমাতাসুলভ আচরণ করত না। ফিফার আচরণ আমাদের ফ্রাংকোর কথাই মনে করিয়ে দেয়।

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

5 × 5 =