আবারো ডাচ-ডঙ্কা বাজবে চ্যাম্পিয়নস লিগে?

আবারো ডাচ-ডঙ্কা বাজবে চ্যাম্পিয়নস লিগে?

নতুন শতাব্দীর শুরুর দিকেও স্প্যানিশ লা লিগা, ইংলিশ প্রিমিয়ার লীগ, ইতালিয়ান সেরিয়ে আ ও জার্মান বুন্দেসলিগার পরেই সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ লীগ ছিল হল্যান্ডের এরেডিভিস লীগ ; আয়াক্স আমস্টারডাম, পিএসভি আইন্দহোভেন এবং ফেয়েনর্ড ছিল রেগুলার অংশগ্রহণকারী দল এবং প্রায় সময়েই অনেক দূর পর্যন্ত তারা যেতেও পারতো। ডাচ ফুটবল ঐতিহাসিক ভাবেই ছিল ইয়ং ট্যালেন্ট তৈরির কারখানা , এখনও আয়াক্সের একাডেমিকে বিশ্বের সেরা ফুটবল একাডেমি হিসেবে মনে করা হয়ে থাকে এবং বর্তমানে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে আমরা যেই ফুটবল একাডেমি গুলো দেখে থাকি সবগুলোই মূলত ডাচ ফুটবল ও বিশেষ করে আয়াক্সকে অনুসরণ করেই নির্মিত হয়েছে। বার্সেলোনার বিখ্যাত লা মাসিয়া তো হুবুহু আয়াক্সের একাডেমিকে অনুসরণ করেই নির্মিত হয়েছে এবং এর পিছনে বিশাল অবদান ছিল ইয়োহান ক্রুইফের।

ফুটবল যখন শুধুমাত্র ব্যবসায় পরিণত হলো তখন ইউরোপিয়ান বড় বড় দল ও লীগের সাথে লড়াই করা কঠিন হয়ে যায় এবং ফুটবল অনেকটা মনোপলাইজড হয়ে যায় সামান্য কিছু সংখক দলের মাঝে। হারিয়ে যায় ঐতিহাসিক ডাচ ক্লাবগুলো ; কারণ তাদের মূল খেলাই ছিল যুবকদের নিয়ে এবং আগে তারা যুবকদের অন্তত ২৪/২৫ বছর বয়স পর্যন্ত দলে রাখতে পারতো যার কারণে খেলোয়াড় বিক্রির আগে সেই খেলোয়াড় ব্যবহার করে তারা নিজেরাও কিছুটা উপকৃত হতে পারতো। কিন্তু বর্তমানে সমস্যা হচ্ছে ভালো মানের খেলোয়াড়দের দাম এতো বেশি যে সবার পক্ষে সেই ব্যয় বহন করা সম্ভব হয়না , সুতরাং কোনো ভালো খেলোয়াড়ের ১৮/১৯ বছর বয়সে পা দিতে না দিতেই তাদেরকে তুলনামূলক সস্তায় দলভুক্ত করার জন্য অধিক বেতনের অফার নিয়ে হাজির হয় অসংখ্য ক্লাব যার কারণে ডাচ ক্লাবগুলোর পক্ষে সম্ভব হয়না তাদেরকে ধরে রাখার। এই ট্রেন্ডের কারণে ডাচ ক্লাবগুলো ইদানিং নিজেদেরকে শক্তিশালী করতে ব্যার্থ হয় কেননা দল গঠনের আগেই খেলোয়াড়রা চলে যায়।

তবে অনেক বছর পর চ্যাম্পিয়ন্স লীগের এই এডিশনে ২ টি ডাচ ক্লাব অংশগ্রহণ করতে যাচ্ছে, যাদের উভয়ই চ্যাম্পিয়নস লীগ ট্রফি জয়ী : আয়াক্স ও পিএসভি এইন্দোভেন। আয়াক্স চ্যাম্পিয়ন্স লীগ জিতেছে ৪ বার ও পিএসভি জয়ী হয়েছে একবার।

লিখেছেন – আরাফাত ইয়াসের

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

14 + two =