এমএসএন থেকে এমএসডি : নেইমারের ভার কাঁধে নিয়ে বার্সায় ডেম্বেলে

গত মৌসুম থেকেই মোটামুটি শোনা যাচ্ছিলো বরুশিয়া ডর্টমুন্ডের ফরাসী উইঙ্গার ওসমানে ডেম্বেলের ব্যাপারে আগ্রহী স্প্যানিশ ক্লাব বার্সেলোনা। কিন্তু দলে মেসি, নেইমার সুয়ারেজ থাকার কারণে ডেম্বেলের ব্যাপারে তাই বার্সা কখনো অত বেশী সিরিয়াস হয়নি। কিন্তু এ মৌসুমে অপ্রত্যাশিতভাবে নেইমার পিএসজিতে পাড়ি জমানোর ফলে তাঁর দরুন দলে যে বিশাল এক শূণ্যতা সৃষ্টি হয়েছে, সেটা পূরণের উদ্দেশ্যে এবার ডেম্বেলের দিকে ভালোভাবেই হাত বাড়িয়েছে বার্সা। যদিও ডেম্বেলে বার্সার প্রথম পছন্দ ছিল না, কিন্তু অন্যান্য টার্গেট যেমন – জুভেন্টাসের আর্জেন্টাইন স্ট্রাইকার পাওলো ডিবালা, অ্যাটলেটিকোর আতোয়াঁ গ্রিজম্যানের দাম অতিরিক্ত বেশী হওয়ায় ও খেলোয়াড়েরা ক্লাব না ছাড়তে চাওয়ায় তাই ডেম্বেলের দিকেই নজর দিতে হয়েছে বার্সাকে। মোটামুটি ১৪৫ মিলিয়ন ইউরোর বিনিময়ে বার্সায় আসছেন ডেম্বেলে, অর্থাৎ বিশ্বের ইতিহাসের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ দামী খেলোয়াড় হয়ে গেলেন তিনি, এর মধ্যে ১০৫ মিলিয়ন ইউরো প্রথমেই ডর্টমুন্ডকে দিয়ে দেবে বার্সা, বাকী ৪০ মিলিয়ন ইউরো বিভিন্ন শর্ত পূরণ হলেই কেবলমাত্র দিবে যেমন – বার্সার চ্যাম্পিয়নস লিগ জিততে হবে, ডেম্বেলের ব্যালন ডি’অর জিততে হবে ইত্যাদি। ২০ বছর বয়সী এই তরুণের সাথে বার্সার চুক্তি ৫ বছরের, তাঁর বাইআউট ক্লজ ধরা হয়েছে ৪০০ মিলিয়ন ইউরো বা ৩৬৮ মিলিয়ন পাউন্ড।

ডেম্বেলের খেলার সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য দিক হল দুই পায়েই সমান ভাবে দক্ষ তিনি। দুনিয়ার প্রায় প্রত্যেকটা খেলোয়াড়কেই ডান পায়ের খেলোয়াড় কিংবা বাম পায়ের খেলোয়াড় হিসেবে শ্রেণীভুক্ত করা যায়, কিন্তু এই ডেম্বেলেকে করা যায় না। ফলে আক্রমণভাগের যেকোন পজিশানেই স্বচ্ছন্দে খেলতে পারেন তিনি, কি রাইট উইং, কি লেফট উইং কি সেন্ট্রাল অ্যাটাকিং মিডফিল্ড – সবদিকেই ডেম্বেলে দক্ষ। গত দুই মৌসুমে বাম পায়ে গোল করেছেন ৬টি, গোলসহায়তা করেছেন ১০টি, আর ওদিকে ডান পা দিয়ে গোল করেছেন ১১টি আর গোলসহায়তা করেছেন ৭টি! তাঁর বয়সী খেলোয়াড়দের মধ্যে ড্রিবলিংয়ে ডেম্বেলের চেয়ে ভালো কেউ নেই, গত মৌসুমে একাই সফল ড্রিবল করেছিলেন ১০৫টি, যা জার্মান বুন্দেসলিগার মধ্যে সর্বোচ্চ ছিল, আর গোটা ইউরোপ হিসাব করলে নবম। বার্সেলোনার আক্রমণের অবিসংবাদিত অংশ হচ্ছে এই ড্রিবলিং – মেসি নেইমার সুয়ারেজরা এই ড্রিবলিংয়ের সাহায্যেই প্রতিপক্ষের রক্ষণ চূর্ণ করেন তাই বার্সার স্টাইলের সাথে ডেম্বেলের এই স্টাইলটা খুব মানানসই। সাথে ডেম্বেলের বিধ্বংসী গতির কথা আর নাই বা বললাম। শুধু বিধ্বংসী গতি আর ড্রিবলিংই নয়, আক্রমণভাগে থ্রু পাস দিয়ে প্রয়োজনীয় গোলসহায়তাও করতে পারেন তিনি অনেক বেশী। সফল পাস দেওয়ার হার বেশ কম, ৬৫% এর মত, তাই বার্সার মত দলে খেলার জন্য নিজের সফল পাস দেওয়ার হারটা আরেকটু বাড়াতে হবে ডেম্বেলেকে। সফল শট নেওয়ার হার ৫০ শতাংশ, অর্থাৎ প্রতি একটা শট পরপর তিনি গোলপোস্টে শট করতে পারেন, প্রতি ছয় শটের বিপরীতে গোল করতে পারেন একটা করে।

ফ্রান্সের এই এক খেলোয়াড়ই সামনের যেকোন মৌসুমে ব্যালন ডি অর জিততে পারেন বলে মনে করা হচ্ছে, চোখ রাখুন বার্সা সমর্থকেরা!

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

19 + six =