ক্রিকেট ব্যস্ততার ২০১৭!

২০১৬ তে টি২০ বিশ্বকাপের পর একটা বড়সড় বিরতি ছিল টাইগারদের। সেপ্টেম্বর-অক্টোবরে আফগানিস্থান ও ইংল্যান্ডের সাথে পিঠেপিঠি দু’টো সিরিজ দিয়ে ব্যস্ততার শুরু হয়েছিল, সেই ব্যস্ততা চলবে পুরো ২০১৭ জুড়েই।

 

নিউজিল্যান্ড থেকে কিছুদিন আগেই দেশে ফিরেছে জাতীয় দল, সেখান থেকে ফিরেই আবার ভারতে একটি টেস্ট খেলার জন্য ইতিমধ্যে ভারত পৌঁছেছে টাইগাররা। আগামী ৯-১৩ ফেব্রুয়ারি হায়দ্রাবাদের হবে একমাত্র টেস্ট ম্যাচটি। এর আগে একটি প্রস্তুতি ম্যাচও খেলবে টাইগাররা। ভারত থেকে ফিরেও দম ফেলার সময় নেই, আগামী ২৭ ফেব্রুয়ারি শ্রীলংকার উদ্দেশ্যে রওনা দিতে হবে যে! মার্চ-এপ্রিল মিলে হবে দুই টেস্ট, দুই টি-টোয়েন্টি ও তিন ওয়ানডের সিরিজ।  

২০১৬ এর অন্যতম সেরা মুহূর্ত, অব্যাহত থাকুক ২০১৭ তেও!

 

শ্রীলংকা থেকে ফিরে কিছুদিনের ছুটি কাটিয়ে আবার খেলা। এবার ইংল্যান্ডে অনুষ্ঠেয় চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির প্রস্তুতি হিসেবে আয়ারল্যান্ড ও নিউজিল্যান্ডের সাথে একটি ত্রিদেশীয় সিরিজ খেলবে টাইগাররা। ১২-২৪ মে অনুষ্ঠিত হবে এই ত্রিদেশীয় সিরিজটি। সিরিজটি হবে আয়ারল্যান্ডে।

আয়ারল্যান্ড ও নিউজিল্যান্ডের সাথে ত্রিদেশীয় সিরিজ খেলেই উড়াল দিতে হবে ইংল্যান্ডে। বছরের মূল আকর্ষণ সেখানেই, চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি! ১লা জুন ইংল্যান্ডের সাথে ম্যাচ দিয়ে শুরু হবে টাইগারদের চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি যাত্রা। গ্রুপ-এ এর বাকি দল দু’টো হলো অস্ট্রেলিয়া এবং নিউজিল্যান্ড।

বছরজুড়ে এমন উড়তে থাকা তামিমকেই চাই টাইগারদের!

চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি শেষ করে দেশে ফিরেই আবার পাকিস্তানের সাথে হোম সিরিজ হওয়ার কথা, এরপর আগস্টে আসার কথা অস্ট্রেলিয়ারও যেখানে তারা তাদের বকেয়া টেস্ট সিরিজটি খেলবে। দেশের মাটিতে হোম সিরিজ এই বছর এই দু’টিই। যদিও পাকিস্তান সিরিজ এখনো নিশ্চিত নয়।

বছরের শেষ এওয়ে সিরিজ দক্ষিন আফ্রিকায়, সেপ্টেম্বর-অক্টোবরে।  সেখানে টাইগাররা খেলবে দুই টেস্ট, তিন ওয়ানডে ও দুই টি-টোয়েন্টি।

এই দুজনের পার্ফরমেন্সের উপর অনেকটাই নির্ভর করে টাইগারদের সাফল্য

                        

 

এত ব্যস্ত আন্তর্জাতিক সূচী শেষ করেই আবার নভেম্বর-ডিসেম্বরে অনুষ্ঠিত হবে বিপিএল এর পরবর্তী আসর।

 

২০১৭ তে টাইগারদের নিঃশ্বাস ফেলার সময়ই নেই। প্রায় সবখেলাই হবে দেশের বাইরে এবং বিভিন্ন কন্ডিশনে। নিউজিল্যান্ড, ভারত, শ্রীলংকা, ইংল্যান্ড, দক্ষিন আফ্রিকা- টাইগাররা এবছর খেলবে প্রায় সবধরনের কন্ডিশনেই। বলা যায় এবছরের মত এমন ব্যস্ত সময় আগে কাটাননি ক্রিকেটাররা। আর এবছর টেস্ট খেলতে না পারার আক্ষেপ অনেকটাই ঘুচবে তামিম-সাকিবদের। তাই সুযোগ নিজেদের বিদেশের মাটিতে প্রমানের।

টেস্ট না খেলার আক্ষেপ ঘুচবে এবছর, টাইগারদের সুযোগ নিজেদের প্রমানের!

এত খেলার মাঝে ফলাফলের পাশাপাশি গুরুত্বপুর্ন হবে টাইগারদের ফিটনেসের ব্যাপার। সাম্প্রতিক টাইগারদের ইঞ্জুরি সমস্যাটাও ভাবাচ্ছে সবাইকে। তবে এ ব্যাপারে বিসিবির চিকিৎসক দেবাশিস চৌধুরী অবশ্য অভয় দিলেন, খেলার মাঠে কেউ চোটে না পড়লে অন্য কোনো সমস্যার আশঙ্কা কম, ‘আমাদের বেশির ভাগ ক্রিকেটারের বয়স ২২ থেকে ২৯ বছরের মধ্যে। এই বয়সেই সামর্থ্যের সবটুকু ঢেলে দেওয়া যায়। নিয়মিত যেসব ফিটনেস টেস্ট হচ্ছে, সেগুলোতেও সবাই ভালোভাবে পাস করছে। বলতে পারেন বাংলাদেশের সবচেয়ে ফিট খেলোয়াড় তারা। আকস্মিক কিছু না ঘটলে খেলোয়াড়দের ফিটনেস নিয়ে তেমন চিন্তার কিছু নেই।’

 

এক নজরে ২০১৭ সালে বাংলাদেশের ক্রিকেট সূচি-

 

ভারত সফর

৯-১৩ ফেব্রুয়ারি একমাত্র টেস্ট হায়দরাবাদ

শ্রীলংকা সফর 

মার্চ-এপ্রিল

আয়ারল্যান্ডে ত্রিদেশীয় সিরিজ
১২ মে বাংলাদেশ-আয়ারল্যান্ড
১৭ মে বাংলাদেশ-নিউজিল্যান্ড
১৯ মে বাংলাদেশ-আয়ারল্যান্ড
২৪ মে বাংলাদেশ-নিউজিল্যান্ড
চ্যাম্পিয়নস ট্রফি
গ্রুপ পর্ব
১ জুন বাংলাদেশ-ইংল্যান্ড কেনিংটন ওভাল
৫ জুন বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়া কেনিংটন ওভাল
৯ জুন বাংলাদেশ-নিউজিল্যান্ড কার্ডিফ

অস্ট্রেলিয়া সিরিজ আগস্ট
দক্ষিণ আফ্রিকা সফর
২৮ সেপ্টে.-২ অক্টো. ১ম টেস্ট পচেফস্ট্রুম
৬-১০ অক্টোবর ২য় টেস্ট ব্লুমফন্টেইন
১৫ অক্টোবর ১ম ওয়ানডে কিম্বার্লি
১৮ অক্টোবর ২য় ওয়ানডে পার্ল
২২ অক্টোবর ৩য় ওয়ানডে ইস্ট লন্ডন
২৬ অক্টোবর ১ম টি-টোয়েন্টি ব্লুমফন্টেইন
২৯ অক্টোবর ২য় টি-টোয়েন্টি পচেফস্ট্রুম

 

বছরজুড়ে ক্রিকেট, বছরজুড়ে আনন্দ-হতাশা। শুভকামনা টাইগারদের।

 

দৌড়া বাঘ আইলো

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

1 × two =