শেষ পর্যন্ত রাস্তায় দাঁড়িয়ে মূত্র ত্যাগ করলেন রোনাল্ডো!

মূল লেখায় যাওয়ার আগে কিছু তথ্য দিয়ে দিই। বিশ্ব টয়লেট দিবস- ২০১৩ উপলক্ষ্যে Unicef কর্তৃক প্রকাশিত স্যানিটেশন ফ্যাক্টশিট অনুযায়ী এখন বিশ্বের ১ বিলিয়ন মানুষ খোলা জায়গায় মলমুত্র ত্যাগ করে। এই সংখ্যাটা পৃথিবীর মোট জনসংখ্যার ১৫%! তবে একটা ব্যাপার পরিষ্কার এই ১ বিলিয়ন মানুষ এর বেশির ভাগই অনুন্তত দেশের রুরাল সাইডে বাস করে।

Unicef এর তথ্য অনুযায়ী খোলা জায়গায় মলমুত্র ত্যাগ করাই হল শিশু মৃত্যুর অন্যতম কারণ ডাইরিয়া রোগের উৎপত্তির কারণ। বর্তমানে প্রতিদিন ১,৬০০ জন করে প্রতি বছর সারা বিশ্বে ৬০০,০০০ জন শিশু ডাইরিয়ায় ভুগে মারা যায়। এই মৃত্যু হার ১০ বছর আগেও দ্বিগুন ছিল। উন্নত স্যানিটেশন ব্যবস্থায় মানুষকে উৎসাহিত করার কারণে অর্ধেকে নেমে এসেছে এখন। আপনাদের সবার নিশ্চয়ই মিনা কার্টুনের কথা মনে আছে?

এখন কথা হল ক্রিস্টিয়ানো রোনাল্ডো এটা কি করলেন? গতকাল বিভিন্ন পত্র পত্রিকায় ছবি সহ খবর এসেছে যে তিনি ট্রোপাজের এক রাস্তায় দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে মূত্র ত্যাগ করছেন!

বর্তমান বিশ্বে তিনি সবচেয়ে বড় দুই জন গ্লোবার স্টারের একজন। মানুষ সারাদিন তাকে নিয়ে আলোচনা সমালোচনা করে। তার খুটিনাটি ফলো করে। উনি যদি খোলা জায়গায় পশ্রাব করেন তাহলে উনার কাছ থেকে মানুষ শিখবে কি? অথচ উনার উচিত ছিল উনার মিডিয়া ইমেজ কাজে লাগিয়ে উন্নত স্যানিটেশন এর জন্য সচেতনতা বাড়াতে কাজ করা। কিন্তু তিনি করলেন সম্পূর্ণ উল্টা কাজ। উনার কাজ দেখে যদি উনার ফ্যানরা অনুপ্রাণিত হয়ে উনার মত খোলা রাস্তায় পশ্রাব করা শুরু করে তাহলে দায়টা কি উনার উপর পড়বে না? আর এই কাজের জন্য যদি শিশু মৃত্যুর হার বেড়ে যায় সে দায়ও কি উনার উপর পড়বে না? অবশ্যই পড়বে। আমি আপনি যা ইচ্ছা করতে পারি। কারণ আমরা গ্লোবাল স্টার না। মিডিয়ার ক্যামেরা আমাদের চুল থেকে নখ সব কিছু ফলো করে না। কিন্তু ক্রিস্টিয়ানো রোনাল্ডোদের ফলো করে। এবং এই জন্যই রোনাল্ডোদের কান্ডজ্ঞানহীন কাজ থেকে দূরে থাকা উচিত নয়, কর্তব্য।

লিওনেল মেসি রোনাল্ডোর চাইতে দুই বছরের ছোট হলেও রোনাল্ডোর উচিত মেসির কাছ থেকে শিক্ষা নেয়া। মেসি কিভাবে বাচ্চাদের নিয়ে কাজ করে সেটা ফলো করা। এতে মানবতারই লাভ হবে।

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

nineteen − seven =