বুফনের ব্যাটন উঠতে যাচ্ছে শোয়েজনির হাতে?

গত প্রায় ১৭ বছর ধরে গোলবারের নিচে কে দাঁড়াবেন, সেই নিয়ে জুভেন্টাসের কর্তাব্যক্তিদের কোন চিন্তা করতে হয়নি, আসলে করতে দেননি জিয়ানলুইজি বুফন নামের এক মহামানব। যেকোন গলরক্ষকের জন্য বিশ্বরেকর্ড এক ট্রান্সফার ফি তে সেই ২০০১ সালে পারমা থেকে জুভেন্টাসে যোগ দেওয়া এই ইতালিয়ান গোলরক্ষক এই ৩৯ বছর বয়সে এসেও খেলছেন সমান উদ্যমে।

কিন্তু যত ভালোই খেলুন না কেন, বয়স বাড়ছে তাঁর। এটা বুফনও যেরকম জানেন, জানেন জুভেন্টাসের কর্তাব্যক্তিরাও। এককালের সতীর্থ ফ্র্যানসেস্কো টট্টি, অ্যালেসসান্দ্রো দেল পিয়েরো, অ্যান্দ্রেয়া পিরলো, ফ্যাবিও ক্যানাভারো, অ্যালেসসান্দ্রো নেস্তা, জেনারো গাত্তুসো, ক্রিস্টিয়ান ভিয়েরি – সবাই অবসর নিয়ে নিয়েছেন খেলোয়াড়ি জীবন থেকে। খুব সম্ভবত সামনের মৌসুমটাই হতে যাচ্ছে খেলোয়াড় হিসেবে জিয়ানলুইজি বুফনের শেষ মৌসুম। এটা মেনেই ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে নিজেদের জন্য নতুন নাম্বার ওয়ান খোঁজা শুরু করেছে জুভেন্টাস। সে উদ্দেশ্যেই আর্সেনালের পোলিশ গোলরক্ষক ওজিয়েইক শোয়েজনিকে দলে আনার সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করে ফেলেছে তারা। গত দুই মৌসুমে আরেক সিরি আ এর জায়ান্ট এএস রোমায় ধারে খেলা এই গোলরক্ষক জুভেন্টাসে আসছেন ১০ মিলিয়ন পাউন্ডের বিনিময়ে, চার বছরের চুক্তিতে। প্রতি বছর জুভেন্টাসে উপার্জন করবেন ৪.৫ মিলিয়ন ইউরোর মত। আপাতত এই মৌসুমটা বুফনের ব্যাকআপ হিসেবেই কাটাবেন শোয়েজনি, তাঁর পরের মৌসুম থেকে হতে পারেন জুভদের নাম্বার ওয়ান গোলরক্ষক।

গত মৌসুমে ইতালিয়ান সিরি আ তে ওজিয়েইক শোয়েজনির চেয়ে বেশী কেউই ”ক্লিন শিট” রাখতে পারেননি, অর্থাৎ ম্যাচে কোন গোল না খাওয়া। ১৪ ম্যাচে রোমার গোলপোস্ট সুরক্ষিত রেখেছিলেন তিনি। যেখানে বুফন ১২ ম্যাচে জুভেন্টাসের হয়ে কোন গোল খাননি। গোলরক্ষক হিসেবে সফল পাস দেওয়ার হারও অনেক বেশী, ৭৫ শতাংশের উপরে, যেখানে আর্সেনালের বর্তমান গোলরক্ষকের সফল পাসের হার ৫৬ শতাংশ মাত্র। গোটা মৌসুমে শট সেইভ করেছেন ৯৩টা, যেখানে জুভেন্টাসের বর্তমান গোলরক্ষক বুফন সেইভ করেছেন ৬১ বার, প্রতি গোলপিছু শোয়েজনির সেইভ ২.৪৫টা, বুফনের যেখানে ২.৬৫। দুইজনের বল বিতরণের হারেও সেরকম পার্থক্য নেই, শোয়েজনির যেখানে ৮০ শতাংশ, বুফনের সেখানে ৮১।

জুভেন্টাসে বুফন-সাম্রাজ্য শেষ হবার পর তাহলে কি ব্যাটনটা শোয়েজনির হাতেই উঠছে? দেখা যাক।

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

3 × one =