কেমন বিপিএলটি চাই ??

বিপিএল আসলে আমাদের ক্রিকেটের জন্যে কী ?
এই প্রশ্নের উত্তর দিতে গেলে তার অনেকগুলো দিক বেরিয়ে আসবে । অনেক রকম মত বেরিয়ে আসবে । কেউ বলবে, সাব্বির আহমেদ-আনামুল হক-তাসকিন আহমেদদের মতো সম্ভাবনাময় তরুণদের জাত চেনানোর টুর্নামেন্ট । আমার মতো কেউ কেউ বলবে , মূলত এই একটা টুর্নামেন্টের কারণে আমার প্রাণের খেলা ক্রিকেটের প্রতি আমার ভিতরে এক অবিশ্বাসের দেয়াল গজিয়ে উঠে । ফিক্সিংটা খেলার জন্যে একটা ক্যান্সার । যা শুধুমাত্র একজন খেলোয়াড়কে বা একটা দলকে ছেয়ে ফেলে না, তাতে দর্শকদের বিশ্বাস কমে আর খেলাটা হয়ে যায় সার্কাস । আবার তারই সাথে সাথে আবার কেউ কেউ বলবে, বিপিএলে দলগুলোকে লিড করে আমাদের মধ্য থেকেই আমরা ৪-৫ জন সম্ভাবনাময় ফিউচার ক্যাপ্টেন পেয়েও যেতে পারি যার মধ্যে সেই লিডারের ব্যাপারটা থাকবে । কিছু কিছু লোক আবার মুখস্থ বুলির মত আউড়ে যায় , “বড় বড় ক্রিকেটারের সাথে ড্রেসিংরুম শেয়ার করেও অনেক কিছু শেখা যায় …”

Bangladesh Premier League BPL 2012 HD wallpapers

সবকিছুকে আড়ালে রেখে বিপিএলের ফিউচার প্রসপেক্ট নিয়ে আলাপ করি । শেষবার আমরা যখন বিপিএল অরগানাইজ করি তখন আমাদের ক্রিকেট কোথায় ছিলো ? আর ঠিক এই মুহূর্তে কোথায় আছে? ইনফ্যাক্ট আমাদের ক্রিকেটের মার্কেটের কি অবস্থা এখন ? আর তখন কেমন ছিলো ? আমার দিক থেকে আমি আমাদের মার্কেটের আর পুরো ক্রিকেট ব্যবস্থার একটা বড় পরিবর্তনের কথা আপনাদের হলফ করে বলতে পারি । ২০১৩ সালে লাস্ট বিপিএল যখন মাঠে গড়ায়, তখন আমাদের দেশি স্টারের সংখ্যা খুবই কম ছিলো । সেজন্যে টুর্নামেন্ট জমানোর জন্যে আমাদের গেইল কিংবা আফ্রিদিদের দিকে খুব করে চেয়ে থাকতে হতো । আজ ঠিক ২ বছর পরে আমাদের ক্রিকেট এগিয়ে গিয়েছে অনেক । এখন আপনি আমাদের দেশি ক্রিকেট স্টারদের দিকে তাকান । সৌম্য কিংবা মোস্তাফিজেরা অনেক সিনিয়র বিদেশী ক্রিকেটারদের চাইতে অনেক বেশী ক্রেজ সৃষ্টি করার ক্ষমতা রাখেন । আমাদের তাস্কিন কিংবা রুবেল হোসেন থাকতে পেসের জন্যে আমাদের ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলো কেন ইংল্যান্ড বা অস্ট্রেলিয়া থেকে পেসার নিয়ে আসবে ? আলামিন , রাজ্জাক, নাঈম, সোহাগ গাজী , অলক কাপালি , এনামুল জুনিয়রদের মত কিছু খেলোয়াড় আছেন যারা আসলে দলের উত্থান না ঘটলে অন্ততপক্ষে স্কোয়াডে থাকতে পারতেন সহজে । এসব ক্রিকেটারদের নিজস্ব ফ্যানবেইজ আছে । আমার দিকেই দেখুন, সুযোগ থাকলে কমসে কম ১৬ জনের টীমে আমি আলামিনকে রেখে দিতাম বারবার । এইসব ক্রিকেটারদের অনেক কিছু প্রমাণের জায়গাটাও হবে সামনের বিপিএল । আবার লিটন দাশ, মোসাদ্দেক হোসেন কিংবা অন্যনায় তরুণরাও এখন আগের চাইতে অনেক বেশি মিডিয়া কভারেজ পাচ্ছে । সেদিক থেকে তাদেরকেও মানুষ আগের যেকোনো সময়ের চেয়ে মাঠে বেশি দেখতে চাইবে ।

নতুন স্টারেরা বাড়াবে ক্রেজ
নতুন স্টারেরা বাড়াবে ক্রেজ

তাহলে ঘটনাটা কি দাঁড়ালো ??
২০১৩ সালের লাস্ট বিপিএলের সময়ে মানুষ বিপিএল হবে শুনলেই আফ্রিদি আসবে? গেইল আসবে ? টাইপের প্রশ্নে ভরিয়ে দিতো খবরদাতাকে । সেইদিন এখন অনেকটাই ঝিমিয়ে যাচ্ছে । মুশফিককে আউট করার জন্যে মাশরাফি ছক কষছেন… কিংবা নাসির আকস্মিক এসে অফস্পিনে সাকিবের স্ট্যাম্প তুলে নিলেন কিংবা মোস্তাফিজের কাটারে রানের চাকা বাড়াতে গিয়ে শাব্বির বোল্ড হয়ে যাচ্ছে- এ দৃশ্য দেখার জন্যেই প্রজন্ম মাঠে যেতে রাজি থাকার কথা । দল হিসেবে বাংলাদেশের সফলতা একটা সফল বিপিএলের সম্ভাবনাও অনেকাংশে বাড়িয়ে দিয়েছে । ৯০ এর দশকে শুধু ওয়াসিম কিংবা জয়সুরিয়াকে দেখার জন্যে মানুষ ঢাকার স্টেডিয়ামে ছুটে গিয়েছে শুনেছি । কিন্তু পাকিস্তান আর লংকা তো এখন আর আমাদের হাতে গোণায় ধরার মত দল না । পাকিস্তানে এখন কে খেলে ? চাকার হাফিজ ??? এরোগ্যান্ট ওয়াহাব রিয়াজ যাকে সাকিব আঙুল তুলে ঠান্ডা করে দেয় ? লংকায় এখন কে আছে ?? পাকিস্তান আর লংকার টপ স্টারদেরই গোণায় নেই না । তাহলে টাকা ঢেলে এনে লাভ কী ?? স্টারডমে আমরা পিছিয়ে নেই ভায়া । সাকিব ওয়েস্ট ইন্ডিজ কিংবা লংকায় লীগ খেলতে না গেলে বরং ওসব লীগের গ্ল্যামার কমে যায় …

পাকিস্তানিরা কি খুবই ভাইটাল??
পাকিস্তানিরা কি খুবই ভাইটাল??

এই যদি মুদ্রার একটা পিঠ হয়, তাহলে আয়োজকদের দেখতে হতে পারে অন্য পিঠটাও । শুধুমাত্র এক মীরপুর স্টেডিয়ামে সব ম্যাচ আর হাতে গুণে চার ৫টা ম্যাচ চিটাগাং এ দিয়ে দিলে আপনার টুর্নামেন্ট ফ্লপ খেতে বাধ্য পাপন সাহেব ! টুর্নামেন্টকে ছড়িয়ে দিন । টাকাটা খেলাকে ছড়ানোর কাজে ঢালুন । উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বাপ্পী লাহিড়ীর মতো অচল মাল এনে বিদ্যা বালানের সিনেমার গান গাওয়ানোতে টাকা খরচা না করে জায়গামতো টাকাটা ঢালা শেখেন । খেলাটাকে ছড়াচ্ছেন না কেন ?… জিজ্ঞাসা করলেই আপনারা অর্থনৈতিক সীমাবদ্ধতার কথা শুনিয়ে দেন । কেন ? এইসব থার্ড ক্লাস হিন্দি প্রোগ্রাম আয়োজনে কি টাকা কম খরচা হয় নাকি ? সাফের অনুর্ধ্ব ১৬ চ্যাম্পিয়নশিপের ভেন্যু সিলেটে নিয়ে যাওয়ায় তার রেসপন্স তো হাতেনাতে আয়োজক কমিটি পেয়ে গেল।আমার তো মনে হয় না ঢাকাতে মানুষ এতোটা রেসপন্স দিত এই এইজ লেভেলের ফুটবলের জন্যে । আর কিছু না পারেন গ্রুপ পর্বের ম্যাচগুলো ভালোমতো ছড়িয়ে দিতেই পারেন । ফিকচারটা ওভাবে ডিজাইন করুন । ২০০ টাকা দিয়ে টিকিট কেটে খেলা দেখতে মানুষ কিপ্টেমি করবে না ।

ছড়িয়ে যাক সারা দেশে
ছড়িয়ে যাক সারা দেশে

ডিসিশনটা একদমই আপনাদের হাতে । সিদ্ধান্তটা আগেভাগে নিন । ঢাকায় খেলা দিতে দিতে ঢাকার মানুষের হাতের উপর দিয়ে টুর্নামেন্টটাকে বোরিং বানাবেন ?নাকি দ্রুত ভেন্যু সুইচ করে টুর্নামেন্টটাকে সারাটা সময়জুড়ে ফ্রেশ রাখবেন ? ক্রিকেটটা সবার , সব শহরের , সব মানুষের ।

আর সবকিছুর আগে অবশ্যই চাই পেমেন্টে স্বচ্ছতা । ভারতীয়রা আর পাকিস্তানিরা আমাদের এই টুর্নামেন্টের ফুল মিনিং এমন বানিয়ে ফেলেছে Below Poverty League… দারিদ্র্য সীমার নিচের লিগ । ভারতীয়দের প্রতি ঘৃণা আপনার আসতেই পারে । কিন্তু একদম তার পরের মুহূর্তে আয়নার সামনে গিয়ে দাঁড়িয়ে বলেন, “তারা এটা বলার সাহসটা কীভাবে পেলো ??? ”
দোষটা আর ওদের থাকবে না । পেইমেন্টের কারণে খেলোয়াড়েরা মাঠে নামতে চায় না , খেলোয়াড়েরা ম্যাচের আগে ট্যাক্সি নিয়ে এয়ারপোর্টের দিকে রওনা দেয় , মাঝে মাঝে ১১ জন করার জন্যে কোচকেও মাঠে নামার প্রিপারেশন নিয়ে রাখতে হয় – তাহলে আপনার টুর্নামেন্ট নিয়ে মকারি করবে না তো কারটা নিয়ে করবে ? আমাদেরকে গরিব ভিক্ষুক না বললে কাদেরকে বলবে ? ভারতের টুর্নামেন্টের বাজি ফিক্সিং নিয়ে হাজার কথা হলেও দিনের শেষে একটা কথাই একদম সত্য হয়ে দাঁড়িয়ে যায় …
“অর্থের বন্যায় , ভেসে যাবে অন্যায় …”

153645

দুনিয়া দুর্বলের কথা শোনে না । দুনিয়া অস্পষ্ট কথা শোনে না । আপনি ভারতের মত টাকার স্তূপ বসাতে পারেন অথবা একদম স্বচ্ছ থেকে সবাইকে চুপ করিয়ে রাখতে পারেন । দুটোই রাস্তা । আমরা পেমেন্টে স্বচ্ছ না । আবার চুপও করিয়ে রাখতে পারি না । তাহলে আমাদের নিয়ে ঠাট্টা করার জায়গা তো ওদের আমরাই ছেড়ে দিয়েছি ।
আমাদের এসব খবর ছড়িয়ে গেছে সবখানে । দেশের ভাবমূর্তি মাটিতে মিশেছে , আমাদের ক্রিকেটের ভাবমূর্তি মাটিতে মিশেছে আর সবমিলিয়ে জাতি হিসেবে আমরা অনেক নিচে নেমে গেছি । বিডিং এর আগেই পুরো টাকা সিকিউরিটি হিসেবে আয়োজক কমিটিকে নিয়ে নিতে হবে । তারপরে নিলামে দর ডাকা । ফুটো পকেট নিয়ে গেইলের জন্যে কোটি কোটি টাকা দর হাঁকানোর আগে যাতে সেই কোটি কোটি টাকা আয়োজকদের হাতে থাকে … যাতে করে তারা টুর্নামেন্টের শেষে গেইলের হাতে টাকাটা দিয়ে বিদায় দিতে পারে । কারণ গেইলের একটা টুইট আপনার ইমেজ মাটিতে মিশিয়ে দিতে পারে স্যার ! আর সেটা না করতে পারলে নেপালের পরেশ খাড়াকা আর আফগানিস্তানের মোহাম্মদ নবীদের এনেই খুশি থাকুন । বামুন হয়ে চাঁদের দিকে হাত বাড়াতে যাবেন না …

বৃহত্তর অর্থে টুর্নামেন্টের ক্ষতি ছাড়া লাভ হয় না এতে । আমরা চাই , বিপিএলটা আসলেই বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ হোক ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ না হয়ে । আমরা চাই , নাসির তার চাওয়া মতো ২ টাকার খেলোয়াড় হলে পুরো টাকাটাই নিজের হাতে পাক । আমরা চাই , জাতীয় দলের দরজায় কড়া নাড়াদের চোখ ধাঁধিয়ে দেওয়া পারফরম্যান্সে দলে ঢোকার লড়াইটা আরো তীব্র হোক।
সফল বিপিএল চাই ।
স্বচ্ছ বিপিএল চাই ।
সবার বিপিএল চাই ।
প্রতিযোগিতার বিপিএল চাই ।

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

17 + six =