জুভেন্টাসের মিডফিল্ড আরেকটু শক্তিশালী করতে এবার মাতুইদি

নেইমারের বার্সেলোনা থেকে পিএসজি যাওয়ার ফলে এক ধাক্কায় ২২২ মিলিয়ন ইউরো পকেট থেকে হাওয়া হয়ে গিয়েছে ফরাসী ধনকুবের ক্লাব প্যারিস সেইন্ট জার্মেই। তাই এবার অপ্রয়োজনীয় খেলোয়াড় বাদ দেওয়ার ব্যাপারে মনযোগী হয়েছে তারা, খেলোয়াড় বেচে যতটুকু সম্ভব আয় করে নেওয়া যায় আরকি! ফলে দল ছাড়ার সম্ভাবনা আছে মিডফিল্ডার ব্লেইজ মাতুইদি, গ্রেগর্জ ক্রিচোভিয়াক, রাইটব্যাক সার্জ অরিয়ের, উইঙ্গার হেসে রড্রিগেজ, লুকাস মৌরা, জুলিয়ান ড্র্যাক্সলার, হাতেম বেন আরফা। এর মধ্যেই স্প্যানিশ উইঙ্গার হেসে রড্রিগেজ দল ছেড়ে ধারে পাড়ি জমিয়েছেন ইংলিশ ক্লাব স্টোক সিটিতে, সার্জ অরিয়ের যোগ দিতে পারেন ইন্টার মিলান, টটেনহ্যাম হটস্পার কিংবা ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের মধ্যে যেকোন একটা ক্লাবে। বহুদিনের বিশ্বস্ত ফরাসী সেন্ট্রাল মিডফিল্ডার ব্লেইজ মাতুদিইও আর থাকছেন না। জুভেন্টাসের উদ্দেশ্যে পাড়ি জমাচ্ছেন তিনি।

৩০ বছর বয়সী ফরাসী সেন্ট্রাল মিডফিল্ডার ব্লেইজ মাতুইদি ৩ বছরের চুক্তিতে ১৮ মিলিয়ন পাউন্ডের বিনিময়ে নাম লেখাতে যাচ্ছেন জুভেন্টাসে। পিএসজির হয়ে চারটা লিগ শিরোপা জেতা এই মিডফিল্ডার হুভেন্টাসের মিডফিল্ডে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন বসনিয়ান মিডফিল্ডার মিরালেম পিয়ানিচ, জার্মান মিডফিল্ডার স্যামি খেদিরা, ইতালিয়ান মিডফিল্ডার ক্লদিও মার্কিসিও ও স্টেফানো স্টুরারো, ঘানাইয়ান মিডফিল্ডার কোয়াদো আসামোয়া, উরুগুইয়ান মিডফিল্ডফার রড্রিগো বেনতাঙ্কুর – এদের সাথে।

মূলত ডিফেন্সিভ মিডফিল্ডার হিসেবে খেলা শুরু করলেও বয়সের সাথে সাথে নিজের ভান্ডারকে আরও অস্ত্রসমৃদ্ধ করেছেন মাতুইদি। প্রচণ্ড পরিশ্রমী এই খেলোয়াড় বেশ কড়া ট্যাকলার হিসেবে পরিচিত, অফুরন্ত প্রাণশক্তিতে ভরপুর। ক্যারিয়ারের শুরুর দিকে আর দশটা ফরাসী ডিফেন্সিভ মিডফিল্ডারের মত ক্লদ ম্যাকেলেলে কে আদর্শ মানলেও পরে দেখে গেল তাঁর খেলায় শুধুমাত্র বল কেড়ে নেওয়া ছাড়াও অনেক বৈশিষ্ট্য আছে, প্রায়ই উপরে উঠে গিয়ে আক্রমণভাগে সহায়তা করেন।

গত মৌসুমে লিগে জুভেন্টাসের মূল দুই সেন্ট্রাল মিডফিল্ডার পিয়ানিচ আর খেদিরা ৫টি করে গোল করলেও মাতুইদি করেছেন চারটি, যদিও তাদের থেকে তিন ম্যাচ বেশী খেলেছেন, অ্যাসিস্ট ও করেছেন চারটি, যা কিনা খেদিরার সমান। পুরো মৌসুমে সফল ট্যাকল করেছেন ৪০টার মত, যেটা জুভেন্টাসের বর্তমান যেকোন মিডফিল্ডারের চেয়ে বেশী। সফল পাস প্রসানের হারটাও চমকপ্রদ, ৯১ শতাংশ, এখানে জুভেন্টাসের কোন মিডফিল্ডারের সফল পাস দেওয়ার হার নব্বই ছোঁয়নি গত মৌসুমে। পুরো মৌসুমে আক্রমণভাগে দেওয়া পাস সংখ্যা ৯৪৭টি, যা জুভেন্টাসের অন্যান্য মিডফিল্ডারের তুলনায় বেশী এবং অবশ্যই প্রমাণ করে মাতুইদি একটা প্রথাগত ডিফেন্সিভ মিডফিল্ডারের চেয়েও বেশী কিছু। ছোট ছোট পাসে খেলতে পছন্দ করেন, শুধুমাত্র ট্যাকলিংই তাঁর শেষ কথা নয়।

নতুন এই মিডফিল্ডারের ছোঁয়ায় জুভেন্টাস কি তাদের শিরোপা ধরে রাখতে পারে কি না, দেখা যাক!

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

sixteen + eighteen =