জুভেন্টাসের উইংয়ে আরেক নতুন মুখ : ফেদেরিকো বার্নার্দেসকি

এই মৌসুমে জুভেন্টাস ছেড়ে ফরাসী ক্লাব পিএসজিতে নাম লিখিয়েছেন দানি আলভেস। ক্লাব ছাড়তে পারেন হুয়ান কুয়াড্রাডোও। তাই জুভেন্টাস এবার ক্লাবে নতুন উইঙ্গার হিসেবে নিয়ে আসছে বেশ কয়েকজনকে। এদের মধ্যে কিছুদিন আগে জুভেন্টাসে এসেছেন বায়ার্ন মিউনিখের ব্রাজিলিয়ান উইঙ্গার ডগলাস কস্টা। এই উইঙ্গারের অভাবে গত মৌসুমে মারিও মান্দজুকিচের মত সেন্টার ফরোয়ার্ডকে লেফট উইঙ্গার হিসেবে খেলিয়েছিলেন জুভেন্টাস কোচ মাসিমিলিয়ানো অ্যালেগ্রি। এবার স্ট্রাইকার গঞ্জালো হিগুয়াইনকে আরও ভালো সার্ভিস দেওয়ার জন্য অ্যালেগ্রি জুভেন্টাসকে উইংনির্ভর খেলা খেলাতে পারেন বলে মনে করা হচ্ছে, আর সে জন্যই দলে উইঙ্গারের প্রয়োজন, যার জন্যই দলে উইঙ্গার আনছেন অ্যালেগ্রি। এবার ফিওরেন্টিনা থেকে ইতালিয়ান তরুণ রাইট উইঙ্গার ফেদেরিকো বার্নার্দেসকিকে দলে ভেড়ালো তারা। বার্নার্দেসকিকে দলে আনতে জুভেন্টাসের খরচ পড়ছে ৪০ মিলিয়ন ইউরোর মত, চুক্তিটি ৫ বছরের। সাথে পরবর্তীতে যদি বার্নার্দেসকিকে বিক্রি করে জুভেন্টাস, সেই বিক্রি থেকে পাওয়া অর্থের ১০% ও পাবে ফিওরেন্টিনা। সাথে পাঁচ বছরের চুক্তিতে বাৎসরিক ৪ মিলিয়ন ইউরো করে বেতন পাবেন বার্নার্দেসকি।

এবারে অনুষ্ঠিত অনূর্ধ্ব-২১ ইউরোতে ৪ ম্যাচে দুই গোল করেছেন বার্নার্দেসকি, কেড়েছেন অনেকের নজর। গত মৌসুমে লিগে ফিওরেন্টিনার হয়ে ৩২ ম্যাচ খেলে ১১ গোল আর ৪ অ্যাসিস্ট করেছেন উইং থেকে। তরুণ এই উইঙ্গার বাম পায়ের খেলোয়াড় হলেও খেলেন রাইট উইঙ্গার হিসেবে, যা তাঁকে প্রায়ই উইং থেকে কাট-ইন করে ভেতরে ঢোকার ক্ষেত্রে সহায়তা করে। ৪-৩-৩ কিংবা ৪-২-৩-১ ফর্মেশানে বার্নার্দেসকি পজিশানটা রাইট উইঙ্গারের। ডেড বল স্পেশালিস্টও বলা যেতে পারে তাঁকে, গত মৌসুমে ইউরোপা লিগে জার্মান ক্লাব বরিশিয়া মনশেনগ্ল্যাডবাখের বিপক্ষে অসাধারণ ফ্রি-কিকটা তাঁর ফ্রি-কিক পারদর্শিতারই প্রমাণ। ক্রসও করতে পারেন দুর্দান্ত। অ্যাটাকিং মিডফিল্ডার হিসেবে ক্যারিয়ার শুরু করা বার্নার্দেসকি খেলতে পারেন অ্যাটাকিং মিডফিল্ডার কিংবা সহযোগী স্ট্রাইকার হিসেবেও। অনেকের মতেই ইতালিয়ান তরুণ প্রজন্মের খেলোয়াড়দের মধ্যে সবচেয়ে ভালো ড্রিবলার তিনি, যার ফলে দেখা যায় ডিবক্সের মধ্যে বা বাইরে শট করার অবস্থানে থাকলেও শট না করে ড্রিবল করছেন, যেটা কিনা তাঁর খেলার একটা নেতিবাচক দিক। ডিবক্সের মধ্যে ঢুকে শট করবেন নাকি করবেন না এই দ্বিধায় থাকেন প্রায়ই। বল নিয়ে কারিকুরি করার পাশাপাশি রক্ষণাত্মক দিকেও যথেষ্ট ভালো হবার কারণে ৩-৪-৩ বা ৩-৫-২ ফর্মেশানে তাঁকে রাইট উইংব্যাক হিসেবেও খেলানো যায়। রোমান সম্রাট ফ্র্যানসেসকো টট্টিকে আইডল মানা এই তরুণ সফল পাস প্রদানে একটু দুর্বল, সফল পাস প্রদানের হার তাঁর ৭৮ শতাংশের মত। তবে গোলের সুযোগ সৃষ্টি করেছেন আবার ৫৭ বার। আক্রমণভাগে ”কি পাস” প্রদান করেছেন ৫৩টার মত।

অর্থাৎ এ কথা নিঃসন্দেহে বলা যেতে পারে যে, ৪-৩-৩ ফর্মেশান হোক বা ৪-২-৩-১, ৩-৪-৩ হোক কিংবা ৩-৪-২-১ কিংবা ৩-৫-২, অ্যালেগ্রি যে ফর্মেশানই সামনের মৌসুমে জুভেন্টাসকে খেলান না কেন, বার্নার্দেসকি হতে যাচ্ছেন তাঁর গুরুত্বপূর্ণ একটি অস্ত্র।

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

three × three =