আফসোস শব্দটা কি দূর হবেনা বাংলাদেশের ক্রিকেট থেকে???

একটা সময় ছিল যখন বাংলাদেশ টীমের ব্যাটিং বোলিং কোনটাই ভাল ছিল না। স্পেসিফিকলি বলতে গেলে ২০০৩ সাল পর্যন্ত। প্রাপ্তি বলতে গেলে ১৯৯৯ এ পাকিস্তানের সাথে ও পরবর্তীতে কিছু ছোট দলের সাথে জয় এবং বড় দলগুলোর বিপক্ষে কিছু ৫০ পার হওয়া ইনিংস ও কিছু ভাল বোলিং ফিগার। তখন আফসোস করতাম এই ভেবে, কবে বাংলাদেশ ভাল খেলবে।

২০০৪ এর পর বাংলাদেশের উন্নতি শুরু করে। উন্নতিটা ধীরে হলেও চোখে পড়ার মত। আর এই উন্নতির বেশিরভাগই ছিল বোলিং ডিপার্টমেন্টে। মাশরাফি, নাজমুল, রাজ্জাক, এনামুল হক জুনিওর, আর অভিজ্ঞ রফিক; ২০০৫ এ আসল সৈয়দ রাসেল, পার্টটাইম অলক-আফতাব। ২০০৬ এ সাকিবের ঘূর্ণী দেখার পর মনে হল আমাদের বোলিং ডিপার্টমেন্ট যথেষ্ট শক্তিশালী। তখন শুধু একটাই আফসোস, উইকেট গুলো কেন বিলিয়ে দিয়ে আসে!!! আহারে, ব্যাটিং টা যদি একটু ভাল হত!!!

২০০৭ থেকেই মূলত শুরু সাকিব-তামিম তান্ডব। ২০০৫ সালে খালেদ মাসুদ পাইলটের বিকল্প হিসেবে মুশফিকের অভিষেক হলেও ব্যাটিং এ ধাতব্য হতে সময় নিলেন বেশ কিছুদিন। ব্যাটিং এ সাকিব-তামিম-মুশফিক হয়ে গেল এক নির্ভরতার নাম। সাথে আছে মি. ডিপেন্ডেবল মাহমুদুল্লাহ আর মি. ফিনিশার নাসির। তাছাড়া উঠতি প্রতিভার আনাগোনা তো ছিলই। মেরুদন্ড সোজা করে দাঁড়ানো ব্যাটিং লাইনআপেও রয়ে গেল একটা আফসোস, ওপেনিং এ তামিমের যোগ্য সঙ্গী কে হবে? ওয়ান ডাউনটাই বা কে সামলাবে?? আহ! আফসোস, আমাদেরও যদি মারমুখি দুইটা ওপেনার থাকত!

এখন ব্যাটিং টা ভাল। কিন্তু বোলিং টা আবার পেছন দিকে হাঁটা শুরু করল। আহ, আফসোস! ব্যাটিং বোলিং কখনো একসাথে ভাল হলনা। যেদিন এই দুই টাই ভাল ছিল বেশিরভাগ সময়ই আমারা জয়ী হয়েছি।

এই দলে শফিউল এল, রুবেল এল, তাসকিনও এল, শুধু আরেকটা পাগলা মাশরাফি এল না। এই দলে সোহাগ গাজী এল, ইলিয়াস সানি এল, তাইজুল, জুবায়ের এল শুধু আরেকটা রফিক এল না।
টেস্ট বোলিং এর এই দুর্দিনে মাশরাফি আর রফিকের শূন্যতা অনুভব করছি। মাশরাফির ইঞ্জুরির সবচেয়ে আফসোস জনক দিক হল পাগলা টেস্ট খেলতে পারবে না। সুইং দিয়ে প্রতিপক্ষকে এটাক করবে এমন বোলার সে ছাড়া তো আর নাই। যেখানে তাকে বেশী দরকার ছিল সেখানেই সে নাই। শুদুই আফসোস!!!!

শেষমেশ একটাই কথা, ভাল হোক বাংলাদেশ  ক্রিকেটের, ভাল থাকুক ক্রিকেট।

কমেন্টস

কমেন্টস

One thought on “আফসোস শব্দটা কি দূর হবেনা বাংলাদেশের ক্রিকেট থেকে???

  1. বাঙ্গালদেশ ক্রিকেট দল আগের থাকে অনেক উন্নতি করেছে ইনশাল্লাহ ভবিষ্যতে আরো এগিয়ে যাবে … দরকার একটু সময়ের …

মন্তব্য করুন

4 × two =