”তাদের দু:খে সেদিন আমিও প্রচন্ড ব্যথিত ছিলাম”

সত্যিই তাদের দু:খ্যে সেদিন আমিও প্রচন্ড ব্যাথিত ছিলাম। হাজার হলেও আমাদের প্রতিবেশি তো।অস্ট্রেলিয়া তে অনুষ্ঠেয় ট্রাই সিরিজে কোন জয়ই তারা পেয়েছিল না। এমনকি একটা ম্যাচেও নুন্যতম প্রতিযোগিতা করতেই সমর্থ হয়নি তাদের দল।
.
আর একারণেই তারা তাদের বিশ্বকাপ স্কোয়াডে, না একাদশে আলীম দার সহ মোট দুজন অতিরিক্ত খেলোয়াড় যুক্ত করেন। পরবর্তীতে তাদের এই দুজন অতিরিক্ত খেলোয়ার এর অসাধারণ পারফর্মেন্স এর বিনিময়ে গংগাপাড়ের সন্তানদের নিয়ে গড়া টীম ইন্ডিয়া সেমিফাইনাল খেলার গৌরব অর্জন করে।
.
তারপর মোটামুটিভাবে এক কথায় সফলভাবে চুরি করাটা কে রীতিমতো একটা আর্ট এর পর্যায়ে নিয়ে যাওয়ার মত বৃহৎ মহৎ কাজ করার গৌরব অর্জন করা এই দলটি বিশ্বকাপ এর পরই বাংলাদেশে বাঘের ডেরায় খেলতে আসেন। কোন এক অজানা কারণবশত তাদের বিশ্বকাপ এর নায়ক আলীম দ্বার রবং ইয়ান গোল্ড কে ছাড়াই।
.
ফলাফল, যা হবার তাই ই, বা আপনি ও ক্রিকেট বিশ্ব যা এক্সপেক্ট করেছিলেন, তাই ই হলো। তাদের মূল ওই দুই খেলোয়ার, আলীমদ্বার এবং মি. গুল সাহেব কে ছাড়া তারা জিতবেন কিভাবে!! আর তাইতো আবারও গংগাপাড়ের ছেলেরা ফিরে এলেন স্বরুপে :p এবং নুন্যতম প্রতিযোগিতা করতে না পেরেই পদ্মাপাড়ের মানুষের প্রাণের ভালোবাসা স্নাত টিম টাইগার্স এর কাছে পুরোপুরিভাবে তাদের মুখোশ ছেড়ে নগ্নভাবে সিরিজ হারলো।
.
এ ঘটনায় তোলপাড় গংগাপাড়ের সমস্ত মানুষের হৃদয় এবং পুরো ভারতবর্ষ। সমস্ত ভারতব্যাপী রব উঠল আসন্ন জিম্বাবুয়ে সফরে ফর্মে না থাকা খেলোয়ার দের দল থেকে ছাটাই করার। এই দাবীতে ভারতমাতার সমস্ত সন্তান সহ উত্তাল পুরো ভারতবর্ষ।
.
এমতাবস্থায় এতদিনে টনক নড়ল সেদেশের ক্রিকেট কর্তা-ব্যাক্তিদের। তারা গংগাপাড়ের সমস্ত মানুষের দাবী বিবেচনায় নিয়ে এবং তাদের ক্রিকেটের ভবিশ্যতের কথা ভেবে আসন্ন জিম্বাবুয়ে সফরের জন্য ফর্মে না থাকা বিরাট ভাব-সাব নেয়া কুলি মজুরের মতো স্বভাবের, সদর ঘাটের কুলি হওয়ার আশা ব্যাক্ত করা বিরাট কোহলি , টাইগার দের ধাওয়ায় পলায়ন করা শিখর ধাওয়ান, শিং ছাড়াও মহিষের মতো ঢুস মারা মহেন্দ্র শিং ধনি, বোম্বাই হোটেলের রুই মাছ ও চিকেন শর্মার সমাহারে মোহিত রোহিত শর্মা, কোনরুপ সুরের রেশ না থাকা অধিক বল খেয়েও রান না পাওয়া খেলোয়ার সুরেশ রায়না, নিজস্বতা না থাকায় সুনিল নারিন এর বোলিং অ্যাঁকশান কপি করা ও আষাঢ় মাসে খেলতে আসা কোনরুপ চন্দন না থেকেও চন্দনের নাম নেওয়া রবীচন্দন আশ্বিন, রবিন্দ্রনাথের মতো দাড়ি-গোফ রেখে ও রবী ঠাকুরের নামটিকে চিরতরের জন্য কলংকিত করা রবীন্দ্র জাদেজা এবং আদব-কায়দা না শেখা ওমেশ যাদব দের মত তথাকথিত তারকা খেলোয়ার দের দল থেকে বাদ দিয়ে মুরালি বিজয়, রবিন উথাপ্পা, মনোজ তিয়ারী বা আম্বাতি রাইডু’র মত ফর্মের তুংগে থাকা তরুণদের দলে সুযোগ করে দেন।
.
হায়, তবুও শেষ রক্ষা হলোনা, জিম্বাবুইয়ান তরুণদের জয়ের তীব্রতর প্রতিজ্ঞার কাছেই যেন হেরে বসল গংগাপাড়ের দেশ ভারতমাতার প্রতিভাবান সন্তানদের নিয়ে গড়া টীম ইন্ডিয়া…
.
আমার ক্রিকেটখোর বন্ধু জানান, আইপিএলের সব দলের কিংবদন্তি ক্রিকেটার নিয়ে গঠিত ভারতের এই কিংবদন্তি টি-টুয়েন্টি একাদশ জিম্বাবুয়ের সাথে ২য় টি-টুয়েন্টি ম্যাচে ১০ রানে হেরেছে। আইপিএলের প্রায় সব কিংবদন্তি ক্রিকেটার ভারতের এই দলে ছিলো। মানেশ পান্ডে, সাঞ্জু স্যামসন, আজিঙ্কিয়া রাহানে, মুরালি বিজয়, কেদার যাদব ও রবিন উত্থাপ্পা। দুইজন কিংবদন্তি অলরাউন্ডার স্টুয়ার্ট বিন্নি এবং অক্ষর প্যাটেল ছিলো। সান্দিপ শর্মা নামে এক বিধ্বংসী বোলার ছিলো। চামু চিভাভার ৬৭ রান এবং গ্রায়েম ক্রিমারের ১৮ রানে ৩ উইকেট। এতেই কিংবদন্তি ক্রিকেটাররা ১০ রানে হেরে বসে আছে। জিম্বাবুয়ের ১৪৫ রানের জবাবে তাদের কিংবদন্তি ব্যাটসমানরা মাত্র ১৩৫ রান করতে সমর্থ হইয়েছিলেন।
.
যাহোক, মন খারাপ করোনা গংগাপাড়ের ভাই-বোন কাকা-কাকীরা… বিশ্বাস রাখো, তোমাদের ছেলেদের উপর, একদিন ওরা ঠিকই জিততে শিখবে।

#আর_পদ্মাপাড়ের_দেশটির_মানুষের_পক্ষ_থেকে_অনেক_অনেক_শুভকামনা_রইলো_তোমাদের_প্রতি।
#বেটার_লাক_নেক্সট_টাইম।

কমেন্টস

কমেন্টস

নির্ঝর
প্রথমত, No light, No dark, No you , No me, Know light, Know dark, Know you, Know me. কিছু কথা আছে বাকী.. # সব বাবা-মায়ের মত আমিও আমার বাবা-মায়ের অত্যন্ত আদরের সাধনারই ফল, অন্তত ওনাদের কাছে। ধূলো-বালীতে ভরা এক প্রত্যন্ত গ্রামের প্রচলিত ধারার এক পরিবারে জন্ম এবং সেখানেই বেড়ে ওঠা ও প্রাথমিক শিক্ষার হাতে-খড়ি। পৃথিবীতে আসার আগেই দাদা, দাদী কে হারিয়েছি। এজন্য আম্মুকে মানুষের কাছ থেকে খোটা শুনতে কোন রেহায় হইনি। তবে, পৃথিবীর আলো দেখার পর থেকেই নিজের পরিবার, আত্মীয় এবং পাড়া প্রতিবেশি সবার কাছ থেকেই নিখাদ স্নেহ পেয়েছি। উল্লেখ্য, আজ অবধি সবাই আমাকে ততটাই স্নেহ করেন। # কলেজ জীবনটাকে একটা মফঃস্বল শহরে কাটিয়ে এবং তারপর ইউনিভার্সিটি থেকেই নাগরিক জীবনের অবতারণা। কিছু তথ্য দেয়া এখনও বাকি, # উচ্চতাঃ ৫'৬", ওজনঃ ৬৪+, চোখে চশমা পড়ি। # স্বভাবঃ নীতিতে অবিচল, মুডে চলি, মুহূর্তে মুহূর্তে মুড বদল হয়। সবাই বলে, আমি নাকি অনেক বেশি ইমোশনাল। তাই অনুরোধ, আমাকে একবার দেখে বা কথা বলেই আমার সম্পর্কে কোন সিদ্ধান্ত নিয়ে নেবেন না প্লিজ। # স্মার্টনেস লেভেলঃ 'শুন্য', মানে বলতে পারেন ক্ষ্যাত। গান শুনতে অনেক বেশি ভালবাসি এবং আমি কখনো কখনও অনেক বেশি আত্মবিশ্বাসী ও সরল জীবন-যাপন পছন্দ করি। # ধুমপান কিংবা এই টাইপ বা অন্য কোন প্রকার নেশাই আমার নেই, আগেও কখনও ছিলনা। তবে নেশা বলতে দুইটাঃ ১.বইপড়া, ২.ক্রিকেট। বলতে পারেন আমি একজন সেই লেবেলের 'ক্রিকেটখোর'। সেইরকম লেভেলের কোন ব্যাস্ততা না থাকলে, কোন ক্রিকেট ম্যাচই মিস করিনা, টিভি কিংবা যদি স্টেডিয়ামে যাওয়ার সুযোগ থাকে। টিভিতে পুরাতন কোন খেলা দেখালেও, সেটা দেখাতেই আমার প্রায়োরিটি। তবে, আই পি এল দেখিনা, কেনোনা এটি ক্রিকেট কে ধ্বংস করছে। # মেয়েদের সাথে দোস্তি করতে কিংবা ভাব জমাতে পছন্দ করি (খুব সরাসরিভাবে কথাগুলো বল্লাম), এটাকে লুলামী বলেও সংগায়িত করলেও করতে পারেন। তবে কখনোই কোন মেয়েকে উত্তোক্ত বা বিরক্ত করিনা এবং এগুলি চরমভাবে ঘৃণা করি। আরও বিশেষ কিছু কথা বলাটা জরুরী মনে করছিঃ # স্বাধীনতাবিরোধী অপশক্তির প্রতি জিরো টলারেন্স। ছাগু পেলে সোজা খাসীর লেগ রোস্ট বানিয়ে খাওয়া, তারপর অন্য কথা। পাকিস্তানকে ঘৃণা করি, খেলার সাথে রাজনীতি মিশাই। # প্রচন্ডভাবে ব্যক্তিস্বাধীনতায় বিশ্বাস করি। সমাজ ছাড়া মানুষ চলতে পারেনা স্বীকার করি, কিন্তু অন্য কারো সরাসরি ক্ষতি না করে যতক্ষণ পর্যন্ত নিজের ইচ্ছেঘুড়ি আকাশে মেলছি, ততক্ষণ সে ঘুড়ির নাটাই ধরে টান দেবার অধিকার আমি সমাজকে দিতে রাজী নই। আমার চরম বিপদে সমাজের তথাকথিত বিবেকের দল পরম পুলকে হেসেছে এবং ভবিষ্যতেও হাসবে। হোয়াই বদার দেন?! # কোপ খাওয়া থেকে বাঁচার জন্যে নয়, অনেকের প্রশ্নের উত্তরে বলছি, আমি আস্তিক লোক। অতি দুর্বল মানের মুসলিম, বিপদ আপদ ছাড়া আর বিপদ কেটে গেলে শুকরিয়া আদায়ের সময় ছাড়া আল্লাহকে ডাকিনা| ধর্মকে একান্ত ব্যক্তিগত বিষয় বলে মানি এবং বিজ্ঞান দিয়ে ধর্মকে যাস্টিফাই করার চেষ্টাকে হাস্যকর বলে মনে করি। মাঝে মাঝে ইস্যুভিত্তিক মত দিলেও কাউকে ধর্মজ্ঞান দেবার ধৃষ্টতা আমার নেই, এই একই ধৃষ্টতা আমাকেও না দেখালে খুশি হব। আমার জবাবদিহিতা আল্লাহর কাছে, মানুষের কাছে না। # বই আমার কাছে ক্ষুধার খাদ্য। আপনি বই ভালোবাসেন ? উই আর বেস্ট ফ্রেন্ডস ফ্রম নাও! # ভন্ডামিমূলক ট্যাবুগুলোকে হিপোক্রেসি বলে মনে হয়। শিশুদের যৌনশিক্ষা স্কুলে দেখতে চাই, পারস্পরিক সম্মতিতে প্রেমিক প্রেমিকার ঘনিষ্টতা সমর্থন করি, চুম্বনে অশ্লীলতা দেখিনা। # ভুল কে সঠিক বলে চালানোটা আমি খুব বেশি ঘৃণা করি। নিজেকে সহজ সরল কমুনা, তবে পার্ট জিনিষটা আমার মধ্যে নাই(পরিচিত কাউকে কোথাও দেখসি,কিন্তু ডাক দিয়া কথা বলিনাই এমন কথা কেউ বলতে পারবেনা কোনদিন, অবশ্য মাঝে মাঝে এক্সসেপশন হয়, সেটা অন্য কারণে)। তাই আমি পার্টবিহীন মানুষ পছন্দ করি, সেই সাথে সহজ সরল ও ফ্রেন্ডলি মানুষদেরও পছন্দ করি। # সব সময় যে কথাগুলো ইম্পলিমেন্ট এর ইচ্ছা পোষন করি, যেখানে দেখিবে কোন অন্যায় অত্যাচার, সেইখানে শোনাতে চাই হুংকার, সময় এসেছে বন্ধুরা সব অন্যায়ের বিরুদ্ধে আবার নতুন করে গর্জে উঠার...., আহবান ঐক্যবধ্য হবার, রুখে দাঁড়াবার... # নিজের দোষগুলাকে 'আমি এমনই, সমস্যা থাকলে দূরে যা' ডায়লগ দিয়ে ঢাকার চেষ্টা করিনা(যারা এইগুলো করে তাদেরকেও আমার খুব অপছন্দ)।কোন আচরণ খারাপ লাগলে নির্দিধায় কোন প্রকার সংকোচ ছাড়াই বলতে পারেন.... আমি শুধরানোর চেষ্টা করব। # সর্বোপরি, একজন মাইক্রোস্কোপিক প্রানী ব্যাতিত কিছুই নয়। এবার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কথা, আপনি কোনরকম "কিন্তু/তবে/যদি" ছাড়া মুক্তিযুদ্ধ এর আলোয় উদ্ভাসিত মানুষ?? বুকে আসুন..

মন্তব্য করুন

4 + six =