থমাস টুখেল : প্যারিস সেইন্ট জার্মেইয়ের নতুন ম্যানেজার?

থমাস টুখেল : প্যারিস সেইন্ট জার্মেইয়ের নতুন ম্যানেজার?

ফরাসী পাওয়ারহাউজ প্যারিস সেইন্ট জার্মেইয়ে কোচ উনাই এমেরির ভবিষ্যত আর বেশীদিন নেই, সেটা মোটামুটি সবারই জানার কথা। গতবছর মোনাকোর কাছে লিগ হারানোর পর এই সন্দেহটা আরও বেশী ঘনীভূত হয়েছে। উনাই এমেরি সেভিয়ার হয়ে ইউরোপিয়ান প্রতিযোগিতায় যেরকম অপ্রতিরোধ্য ছিলেন, প্যারিস সেইন্ট জার্মেইয়ের হয়ে সেই ইউরোপীয়ান সাফল্যের পুনরাবৃত্তি করতে পারেননি। ফলে পিএসজির

জিম্বাবুয়ে ক্রিকেটে আবারও বিপদ সংকেত : কোচিং স্টাফের সবাইকে ছাঁটাই

জিম্বাবুয়ে ক্রিকেটে আবারও বিপদ সংকেত - প্রথম পর্ব

এবারের বিশ্বকাপে খেলা হচ্ছেনা জিম্বাবুয়ে এর। এটা জানা কথা। এককালে গ্র্যান্ট ফ্লাওয়ার, অ্যান্ডি ফ্লাওয়ার, হিথ স্ট্রিক, নিল জনসনদের মত প্রতিভা পয়দা করা জিম্বাবুয়ের ক্রিকেটের নিশানা থাকছেনা এবারের আইসিসি ক্রিকেট বিশ্বকাপে। বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে সংযুক্ত আরব আমিরাতের কাছে পরাজিত হয়ে বিশ্বকাপ থেকে ছিটকে পড়েছে তারা। জিম্বাবুয়ের ক্রিকেটের এই দুর্দিনে আপনি যদি তাদের

আর্সেনিও এরিকো : দুই দেশের চোখের মণি যিনি

আর্সেনিও এরিকো : দুই দেশের চোখের মণি যিনি

ইন্দিপেন্দিয়েন্তে তখন আর্জেন্টিনার ক্লাব ফুটবলে এক অপ্রতিরোধ্য শক্তি। লিগ জেতার পথে দুর্দমনীয় গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে তারা, আর লিগজয়ের এই মিশনের সর্বাগ্রে রয়েছেন এক প্যারাগুইয়ান স্ট্রাইকার, আর্সেনিও এরিকো। লিগে চল্লিশটা মত গোল করা হয়ে গিয়েছে তাঁর, শিরোপা হাতের মুঠোতেই বলা যায়। এই সময়ে বিখ্যাত সিগারেট কোম্পানি “সিগারিইও ৪৩” ঘোষণা দিলো লিগে

লিওনেল মেসি আর পাওলো ডিবালা : একসাথে খেললে সমস্যা যেখানে

লিওনেল মেসি আর পাওলো ডিবালা : একসাথে খেললে সমস্যা যেখানে

ম্যারাডোনা যুগ শেষ হবার পর থেকে প্রত্যেকটা প্রতিশ্রুতিশীল আর্জেন্টাইন আক্রমণভাগের খেলোয়াড়কে একটা অবশ্যম্ভাবী তুলনার মধ্যে দিয়ে যেতে হত। পাবলো আইমার থেকে শুরু করে আরিয়েল ওর্তেগা, হুয়ান রোমান রিকেলমে থেকে শুরু করে কার্লোস তেভেজ, ডিয়েগো ল্যাতোরে থেকে শুরু করে অ্যান্দ্রেস ডি'অ্যালেসান্দ্রো, মার্সেলো গ্যালার্দো থেকে শুরু করে হ্যাভিয়ের সাভিওলা, কার্লোস ম্যারিনেয়ি থেকে

আর্জেন্টিনার ডিফেন্স : সাম্পাওলি হতে পারবেন আরেকজন সাবেলা হতে?

আর্জেন্টিনার ডিফেন্স : সাম্পাওলি হতে পারবেন আরেকজন সাবেলা হতে?

বিশ্বকাপের আর বেশী দেরি নেই। আর মাত্র মাস দুয়েকের চেয়ে একটু বেশি। তারপরই শুরু হবে ফুটবলের সবচেয়ে সম্মানজনক প্রতিযোগিতাটি। শিরোপা প্রত্যাশী প্রায় সব দলই নিজেদের গুছিয়ে নিচ্ছে। এমনকি আন্ডারডগরাও যেন পিছিয়ে নেই। একমাত্র হোর্হে সাম্পাওলি এর অধীনে থাকা আর্জেন্টিনারই যেন অনেক কিছু করা বাকী। সিলেবাসের ছিটেফোঁটাও এখনো ছোঁয়া হয়নি। স্পেনের

মার্ক ওভারমার্স : আর্সেনালের চতুর গতিমানব

মার্ক ওভারমার্স : আর্সেনালের চতুর গতিমানব

সময়টা ১৯৯৭ এর গ্রীষ্ম..ইউরোপীয় ফুটবল বোদ্ধাদের অনেকের চোখই কপালে উঠেছিল যখন আর্সেনে ওয়েঙ্গার আয়াক্স থেকে মার্ক ওভারমার্স কে দলে ভেড়ালেন। কেউ এই প্রতিভাবান ডাচ উইঙ্গারের সামর্থ্য নিয়ে প্রশ্ন না তুললেও চরম ইনজুরিপ্রবণ এই খেলোয়াড়কে নেওয়ায় আর্সেনের দুরদর্শীতা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছিল। ১৯৯৫ ইউরোপীয়ান কাপ ফাইনালে শক্তিশালী এসি মিলানকে হারানো আয়াক্স দলের গতিমানব

ক্রিকেট স্পিরিটের আদৌ কোন অস্তিত্ব আছে কি?

ক্রিকেট স্পিরিটের আদৌ কোন অস্তিত্ব আছে কি?

ক্রিকেট এর স্পিরিট ব্যাপারটি আমার কাছে বরাবরই বিভ্রান্তিকর। ‘মানকাডিং’-এর কথাই ধরুন। নন-স্ট্রাইক প্রান্তের ব্যাটসম্যান এগিয়ে গেলে রান আউট করার নিয়ম আছে। আইনই এটা। অথচ রান আউট করলে স্পিরিট নিয়ে টানাটানি পড়ে। যেটা আইনে আছে, সেটা কিভাবে স্পিরিট বিরুদ্ধ হয়! বিশেষ করে এই যুগে, যেখানে টিভি রিপ্লেতে রান আউট নির্ধারিত হয় মিলিমিটারের

হেক্সা জিতবে তিতের ব্রাজিল?

হেক্সা জিতবে তিতের ব্রাজিল?

আজকে টিম ব্রাজিলকে নিয়ে কথা হবে। কোয়ালিফাইং রাউন্ডের প্রাথমিক পর্যায়ের বাজে পারফরম্যান্সের পর ব্রাজিল ফুটবল ফেডারেশনের বোধোদয় হয় যে, দুংগা র একগুঁয়েমি থেকে দলকে উদ্ধার করা জরুরী, নাহয় হেক্সা জয় হবেনা। কৌটিনহো, ফিরমিনো, কাসেমিরো, গ্যাব্রিয়েল জেসুস এর মত প্রমাণিত পারফর্মারকে ম্যাচের পর ম্যাচ বিবেচনা না করে এলিয়াস, দিয়েগো তারদেল্লি, এভারটন রিবেইরো র

মেসি-ডিবালার না থাকা নয়, আর্জেন্টিনার সমস্যা আরও গভীরে

মেসি-ডিবালার না থাকা নয়, আর্জেন্টিনার সমস্যা আরও গভীরে

ইটালির বিপক্ষে ২-০ গোলের জয়ে আর্জেন্টাইন সমর্থকদের মনে যা একটু আশার সঞ্চার হয়েছিল বিশ্বকাপ নিয়ে, স্পেইনের কাছে ৬-১ গোলে উড়ে যাওয়ার পর সেই আশাটুকু আবারও কর্পূরের মত উবে গেছে। নিজেদের ইতিহাসের সবচেয়ে বাজে পরাজয়ের পর (চেকোস্লোভাকিয়া আর বলিভিয়ার কাছেও এর আগে একই ব্যবধানে হেরেছিল আর্জেন্টাইনরা) আবারও নতুন করে হিসাব মেলাতে

ব্রাজিল বনাম জার্মানি প্রীতি ম্যাচ দিয়ে যা যা বুঝলাম

ব্রাজিল বনাম জার্মানি প্রীতি ম্যাচ দিয়ে যা যা বুঝলাম

ব্রাজিল ল্যাটিন আমেরিকায় বিশ্বকাপ কোয়ালিফাই করলো সবার আগে। সেই দিক থেকে বিবেচনা করলে স্কোয়াড নিয়ে নেড়েচেড়ে দেখার সবচেয়ে ভালো সুযোগ তিতের হাতেই ছিলো। কিন্তু অবাক হয়ে তাকে ম্যাচের পরে ম্যাচ রেনাতো অগাস্টোকে মিডফিল্ডে সেঁটে দিতে দেখেছি । ফের্নান্দিনহো এমনকি সিটির হয়ে সবচেয়ে ভালো সময়টা কাটানোর পরেও স্টার্ট করার সৌভাগ্য তেমন

ম্যানুয়েল নয়্যার : সুইপার কিপারের সার্থক রূপকার

ম্যানুয়েল নয়্যার : সুইপার কিপারের সার্থক রূপকার

আমরা যখন ছোট ছিলাম, ফুটবল খেলার সময়ে একটা thumb rule অনুসরণ করতাম, আমার শোনামতে, অনেকেই সেটা করতেন। সেটা হল টিমের সবচেয়ে স্বাস্থ্যবান, নড়াচড়া করতে অনাগ্রহী ছেলেটাকে গোলকিপিং করতে দেওয়া। এরপর আমরা বড় হই, আমাদের ধারণারও পরিবর্তন হয়। কালেভদ্রে একটা ভাল গোলকিপার পেলে সেই স্থায়ী হয়ে যেত। আর না হলে চটপটে

স্টিভেন স্মিথ যদি নিজের বা নিজেদের দায় স্বীকার না করতেন?

স্টিভেন স্মিথ যদি নিজের বা নিজেদের দায় স্বীকার না করতেন?

স্টিভেন স্মিথ যদি নিজের বা নিজেদের দায় স্বীকার না করতেন? স্বীকার না করলে শাস্তি-নিষেধাজ্ঞা তাকে পেতে হতো না নিশ্চিত ভাবেই। যা যাওয়ার, ক্যামেরন ব্যানক্রফটের ওপর দিয়েই যেত। টেম্পারিংয়ের সিদ্ধান্ত সবসময় দলগত ভাবেই হয়। সবাই মিলেই পরিকল্পনা করা হয়। এক্সপার্ট দু-একজন মাঠে সেটার বাস্তবায়ন করেন। যুগ যুগ ধরে এভাবেই চলে আসছে। একজন করা