ওয়াকারের জায়গায় স্পার্সের রাইটব্যাক সার্জ অরিয়ের

ম্যানচেস্টার সিটির কাছে ইংলিশ রাইটব্যাক কাইল ওয়াকারকে ৫৫ মিলিয়ন পাউন্ডে বিক্রি করার পরে মনে হচ্ছিল আরেক ইংলিশ রাইটব্যাক কিয়েরান ট্রিপিয়েরকে দিয়েই পুরো মৌসুমে কাজ চালিয়ে নিতে পারবে টটেনহ্যাম হটস্পার, সাথে একাডেমি গ্র্যাজুয়েট ব্যাকআপ রাইটব্যাক কাইল ওয়াকার-পিটার্স তো আছেই। কিন্তু সব হিসাব ওলট পালট হয়ে গেল কিয়েরান ট্রিপিয়ের ইনজুরিতে পড়ার পর।

শেষ মুহূর্তের নাটকে চেলসিতে নয়, লিভারপুলে চেম্বারলাইন

সেই ২০১১ সাল থেকে তরুণ প্রতিভা হিসেবে আর্সেনালের হয়ে খেলছেন ইংলিশ উইঙ্গার অ্যালেক্স-অক্সলেড চেম্বারলাইন। প্রতিভা অফুরন্ত থাকা সত্বেও এত বছরে আর্সেনালের মূল খেলোয়াড় হিসেবে কখনই প্রতিষ্ঠিত করতে পারেননি নিজেকে। কখনো মেসুত ওজিল, কখনো থিও ওয়ালকট, কখনো অ্যালেক্সিস স্যানচেজের কাছে জায়গা হারাতে হয়েছে মূল একাদশ থেকে। একজন আদর্শ স্কোয়াড প্লেয়ার হয়েই

আবারও ডিফেন্ডার আসলো টটেনহ্যামে – হুয়ান ফয়থ

এই মৌসুমে নতুন কাউকে না আসতে দেখে গত মৌসুমে ইংলিশ লিগের রানার্সআপ টটেনহ্যাম সমর্থকেরা যেরকম বিরক্ত ছিলেন, সেই বিরক্তি কাটানোর জন্যই বোধকরি এবার ডেভিনসন স্যানচেজের সাথে সাথে আরেক ডিফেন্ডারকে দলে আনলো টটেনহ্যাম হটস্পার। আর্জেন্টাইন ক্লাব এস্তুদিয়ান্তেসের এই সেন্টারব্যাকের নাম হুয়ান ফয়থ। পাঁচ বছরের চুক্তিতে মোটামুটি ৮ মিলিয়ন পাউন্ডের বিনিময়ে টটেনহ্যামে

বিবিসি’র এক ‘বি’ এখন ‘বেনেডিক্ট’-বারজাগলি-কিয়েল্লিনি

বেশ হঠাৎ করেই জুভেন্টাসের সাজানো ডিফেন্স ভেঙ্গে গেছে এবার, দানি আলভেস ও লিওনার্দো বোনুচ্চির চলে যাওয়ার কারণে। দানি আলভেস ফ্রি ট্রান্সফারে যোগ দিয়েছেন প্যারিস সেইন্ট জার্মেইয়ে, আর ওদিকে সবাইকে অবাক করে দিয়ে ইতালিয়ান সুপারস্টার সেন্টারব্যাক লিওনার্দো বোনুচ্চি যোগ দিয়েছেন শত্রুশিবির এসি মিলানে। ফলে এ যুগে তিনজন সেন্টারব্যাক নিয়ে ৩-৪-৩ বা

পুরষ্কারটা আগে থেকেই পাওনা!

স্টান্টবাজি করেন ক্রিকেট বোর্ডের বড় কর্তারা, গালি হজম করতে হয় ক্রিকেটারদের... টেস্ট জয়ের পর মিডিয়া-টিডিয়া ডেকে ঘোষণা দেওয়া হলো, ৬ কোটি টাকা পুরস্কার। কোটির অঙ্ক শুনলেই আমাদের চোখ ছানাবড়া, এটা তো ৬ কোটি! অথচ এই ৬ কোটির ৪ কোটি ক্রিকেটারদের আগে থেকেই পাওনা। চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির প্রাইজমানি। বিভিন্ন টুর্নামেন্টের প্রাইজমানির টাকা ক্রিকেটারদেরই দেওয়া

সাকিব কত বড় অলরাউন্ডার?

একটা পরিসংখ্যান দেই। ৫০ টেস্ট খেলে ফেলল তো, উল্লেখযোগ্য সংখ্যক টেস্ট। তাই পরিসংখ্যানটা দেওয়া যায়। সর্বকালের সেরা অলরাউন্ডার স্যার গ্যারি সোবার্স বা আধুনিক ক্রিকেটের সেরা জ্যাক ক্যালিস, আশির দশকের চার বিখ্যাত অলরাউন্ডার স্যার ইয়ান বোথাম, ইমরান খান, কপিল দেব, স্যার রিচার্ড হ্যাডলি, ইংল্যান্ডের এই যুগের সেরা ফ্রেডি ফ্লিন্টফ বা অস্ট্রেলিয়ার সর্বকালের

শচীনদের টুইট আরও ভালো হবার প্রত্যাশায়

'২ দিনে ২ টা অঘটন! অনুপ্রেরণাদায়ক পারফর্মেন্স বাংলাদেশ টাইগার্সদের! টেস্ট ক্রিকেট উন্নতিশীল।' প্রায় এটাই ছিলো শচীনের টুইট! ২ দিনে ২ টা অঘটন বলার কারণ আজ আমরা অস্ট্রেলিয়াকে হারাইছি আর গতকাল ওয়েস্টইন্ডিজ ইংল্যান্ডকে। সবাই সমানে শচীনের মুণ্ডপাত করতেছে এই টুইটের কারণে। প্রথম লাইন দেখে মনে হচ্ছে শচীন ভেবেই নিয়েছিলো অস্ট্রেলিয়া জিতবে কিন্তু

কিংবদন্তীর কথা বলতে এসেছি

সমালোচকের তোপের মুখে, পড়েছি হাজারবার ব্যাট আর বলে, মাঠে দিয়েছি কঠোর জবাব তার। বাপ্পা মজুমদারের গানের এই দুটি লাইন যেন তার জন্যই লেখা। পান থেকে চুন খসলেই আমরা আমাদের গালিসাহিত্যে পাণ্ডিত্যের প্রমাণ দেই তাকে উদ্দেশ্য করে। তিনি কিন্তু ভিন্ন ধাতুতে গড়া, ফিরে আসেন আবার। ব্যাট তার হাতে তলোয়ার হয়ে যায়, বল দিয়ে

ক্যাচ মিস তো ম্যাচ মিস?

যখন প্রতিপক্ষের সেরা দুই ব্যাটসম্যান ক্যাচ মিসের কল্যাণে জীবন পেয়ে আবার নতুন করে ইনিংস শুরু করতে পারে তখন জয় চাওয়াটা বোকামো হয়! অজিদের বেশ ভালোভাবেই চেপে ধরেছিলো বাংলাদেশ কিন্তু ক্যাচ মিসের কারণে সুযোগ হারায় বাংলাদেশ। স্মিথ আর ওয়ার্নারের অপরাজিত ৮১ রানের জুটির সুবাধে ভালো অবস্থানে আছে অস্ট্রেলিয়া। 'ক্যাচ মিস তো ম্যাচ

জুভেন্টাস বা ইন্টার নয়, রোমাতে আসলেন প্যাট্রিক শিক

এবারের দলবদলের বাজারে শুরু থেকেই সাম্পদোরিয়ার চেক স্ট্রাইকার প্যাট্রিক শিক কে নিয়ে টানাটানি চলছে সিরি আ এর হেভিওয়েটদের মধ্যে। জুভেন্টাস, ইন্টার মিলান থেকে শুরু করে এএস রোমা - সব ক্লাবই আগ্রহী ছিল এই চেক স্ট্রাইকারকে দলে নেওয়ার ব্যাপারে। বিশেষত চ্যাম্পিয়ন জুভেন্টাস। জুভেন্টাসে মেডিক্যাল পরীক্ষা পর্যন্ত দিয়ে এসেছিলেন শিক, সবাই ধরেই

ইউক্রেইনের সবচেয়ে বড় সুপারস্টার এখন ডর্টমুন্ডে

ফরাসী উইঙ্গার ওসমানে ডেম্বেলেকে রেকর্ড ফি তে বার্সেলোনায় পাঠানোর পর তাঁর পরিবর্ত খেলোয়াড় পেতে বেশীদিন অপেক্ষাই করতে হল না বরুশিয়া ডর্টমুন্ডকে। ডায়নামো কিয়েভের ইউক্রেইনিয়ান সুপারস্টার উইঙ্গার, বর্তমান সময়ে ইউক্রেন ফুটবলের সবচেয়ে বড় বিজ্ঞাপন, অ্যান্দ্রেই শেভচেঙ্কোর পর ইউক্রেইনিয়ান ফুটবলের সবচেয়ে বড় সুপারস্টার ২৭ বছর বয়সী অ্যান্দ্রেই ইয়ারমোলেঙ্কোকে চার বছরের চুক্তিতে মোটামুটি

শত্রুশিবির আর্সেনাল থেকে চেলসিতে চেম্বারলাইন

সেই ২০১১ সাল থেকে তরুণ প্রতিভা হিসেবে আর্সেনালের হয়ে খেলছেন ইংলিশ উইঙ্গার অ্যালেক্স-অক্সলেড চেম্বারলাইন। প্রতিভা অফুরন্ত থাকা সত্বেও এত বছরে আর্সেনালের মূল খেলোয়াড় হিসেবে কখনই প্রতিষ্ঠিত করতে পারেননি নিজেকে। কখনো মেসুত ওজিল, কখনো থিও ওয়ালকট, কখনো অ্যালেক্সিস স্যানচেজের কাছে জায়গা হারাতে হয়েছে মূল একাদশ থেকে। একজন আদর্শ স্কোয়াড প্লেয়ার হয়েই