হেরাথ-কাব্য

প্রথম ১৫ টেস্টে কোনো ৫ উইকেট ছিল না হেরাথের। পরের ৫৮ টেস্টে ৫ উইকেট নিয়েছেন ২৬ বার। বাঁহাতি স্পিনে এত বেশি বার ৫ উইকেট ক্রিকেট ইতিহাসে কেউ পায়নি। সব ধরণের বোলার মিলিয়েও এর বেশি পেয়েছেন মাত্র ৬ জন।

প্রথম ৩৫ টেস্টে ছিল না ম্যাচে কোনো ১০ উইকেট। পরের ৩৮ টেস্টে ১০ উইকেট নিলেন ৬ বার। ৬টিই ভিন্ন প্রতিপক্ষের বিপক্ষে। মুত্তিয়া মুরালিধরন ছাড়া এত বেশি দলের বিপক্ষে ১০ উইকেট নিতে পারেননি ক্রিকেট ইতিহাসে আর কেউ!

৯টি টেস্ট খেলুড়ে দেশের বিপক্ষেই ১০ উইকেট নেওয়ার স্বাদ পেয়েছেন মুরালি। স্যার রিচার্ড হ্যাডলি, ইমরান খান ও অনিল কুম্বলে নিয়েছিলেন ৫টি ভিন্ন প্রতিপক্ষর বিপক্ষে।

২০১২ সালের আগে কোনো ১০ উইকেট ছিল না হেরাথের। সাড়ে ৪ বছরেই হয়ে গেল ৬ বার। সে বছরের মার্চে গলে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে পেলেন ১২ উইকেট, নভেম্বরে নিউ জিল্যান্ডের বিপক্ষে ১২টি। পরের বছর মার্চে বাংলাদেশের বিপক্ষে ১২ উইকেট। ২০১৪ সালে পাকিস্তানের বিপক্ষে ১৪ উইকেট। গত অক্টোবরে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ১০ উইকেট। এবার অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ১৩টি।

শেষ টেস্টে ১৪৫ রানে ১৩ উইকেট অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে শ্রীলঙ্কার সেরা বোলিং। আগের সেরা ছিল ২০০৪ সালে মুরালিধরনের ২১২ রানে ১১ উইকেট।

এই সিরিজে ৩ টেস্টে ২৮ উইকেট নিয়েছেন হেরাথ। শ্রীলঙ্কার হয়ে এক সিরিজে বেশি উইকেট নিয়েছেন কেবল মুরালিধরন। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ২০০১-০২ সিরিজে ৩ টেস্টে ৩০ উইকেট।

৭৩ টেস্ট শেষে এখন ৩৩২ উইকেট হেরাথের। মুরালির ছিল ৪১২, কুম্বলের ৩৩৩। বাকি সব স্পিনারের চেয়ে এগিয়ে হেরাথ। ওয়ার্নির ছিল ৩২৫, হরভজন সিংয়ের ৩১০, ল্যান্স গিবসের ২৯৩, ডেরেক আন্ডারউড ২৬৪, ড্যানিয়েল ভেট্টোরির ২২৯।

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

9 − 3 =