স্মরণে গ্যারিঞ্চা

সর্বকালের সেরা ফুটবলার। “দ্যা ড্রিবল মাষ্টার গারিঞ্চা”-কে নিয়ে বিখ্যাত কিছু উক্তি.. ♥
.
বিঃদ্রঃ- যারা গারিঞ্চাকে চিনেন না, তারা পড়বেন ভালো করে..” kiki emoticon
.
ওয়েলস জাতীয় দলের সাবেক ফুটবলার ম্যাল হপকিন্সের বিখ্যাত উক্তি দিয়েই শুরু করা যেতে পারে- “তিনি ছিলেন এমন এক ফুটবলার, যিনি দারুণ কসরত ও জাদুকরী খেলায় সবাইকে মোহিত করতেন। হয়তো পেলের মতো প্রচার পাননি, তবে ছিলেন পেলের চেয়ে অনেক ভালো ফুটবলার..”

লিওনিডাস দ্যা সিলভা বলেছিলেন- ” পেলে হলো এক ব্যতিক্রমধর্মী প্লেয়ার কিন্তু গারিঞ্চা সে হলো ফুটবলের শিশু ৷ যখন সে বল নিয়ে খেলা করে যেন কোন বাচ্চা বল নিয়ে খেলছে..” kiss emoticon
.
অসামান্য ফুটবল প্রজ্ঞার জন্য যে নিল্টন সান্তোস কে বলা হতো ‘‘এনসাইক্লোপিডিয়া’, গারিঞ্চার বিপক্ষে ট্রায়াল শেষে সে নিল্টন ই ক্লাব বোটাফেগোকে জানিয়ে দেন- “গারিঞ্চা কোন সাধারণ খেলোয়াড় নয়। দ্রুত তাকে দলে নিয়ে নাও। ওর বিপক্ষে খেলার চেয়ে পাশাপাশি খেলাই উত্তম..” wink emoticon ট্রায়াল শেষে নিল্টন আরো বলেন- ” ট্রায়াল দেয়ার আগে অনেকেই বলাবলি করছিলো যে আমি ছেলেটিকে কুপোকাত
করে ফেলব কিন্তু তারা সবাই ভুল ছিলো বরং ছেলেটির পায়ের জাদুতে আমি কুপোকাত হয়ে গিয়েছিলাম..” colonthree emoticon
.
তার সম্পর্কে বিখ্যাত উরুগুইয়ান লেখক গ্যালিয়ানো তার বই Football in the sun and shadow এ লিখেছিলেন,”যখন সে মাঠে প্রবেশ করে,”তখন তা একটি সার্কাসের রিং এ পরিনত হয়,বলটি হয়ে যায় পশু, এবং ম্যাচটি হয়ে যায় একটি শো..! গ্যারিঞ্চা বল নামক তার পশুটিকে বশ করে, এবং দুজনে মিলে এমন সব খেলা দেখায় যে দর্শক বিমোহিত হয়ে যায়। সে এর উপর লাফায়, ছুড়েদেয়, পেছনে ধাওয়া করে আর তা দেখে তার প্রতিপক্ষরা একে অপরের পিছে দৌড়ায়। এইসব কান্ডকারখানা দেখে দর্শকরা হাসিতে ফেটে পড়ত..”
সাংবাদিক আর্মান্ডো নোগুইরা বলেছিলেন,” পেলে একজন এথলেট আর গারিঞ্চা একজন শিল্পী ৷ আপনি তাদেরকে একসাথে নামান আপনি পেয়ে যাবেন এক বিধ্বংসী জুটি.. ”
.
৬২ এর বিশ্বকাপে সেমিফাইনালে চিলির বিরুদ্ধে ২০ গজ দূর থেকে করা গোলটির পর চিলির দৈনিক ‘এল মারকুরিও’ শিরোনাম করেছিলো- “গারিঞ্চা কোন গ্রহের ফুটবলার…?
ইংলিশ মিডিয়া তাকে নিয়ে মন্তব্য করে- “স্যার স্টানলি ম্যাথুস,টম ফিনলে এবং একজন জাদুকর এই তিনজন মিলে সৃষ্টি গ্যারিঞ্চা..”
পেলে বলেছিলেন- ”গারিঞ্চা অসাধারণ এক খেলোয়াড়। ছিলেন সময়ের অন্যতম সেরা। বল পায়ে তিনি যা করতে পারতেন, আর কোনো খেলোয়াড় তা করতে পারত না। গারিঞ্চা না থাকলে আমি কখনোই তিনবার শিরোপা জিততে পারতাম না..’’
.
এলজা সোয়ারেস বলেছিলেন- “সে টাকা-পয়সার প্রতি আকৃষ্ট ছিলেন না ৷ তিনি ছিলেন খুব সাধারন একজন মানুষ এবং তিনি ফুটবল খেলতেন আনন্দের জন্য..”
.
কোন এক ব্রাজিলিয়ান বলেছিলেন- “আজ তার মৃত্যুর ৩১ বছর হয়ে গেলো কিন্তু তার মতো জনপ্রিয় কেউ হতে পারে নি ব্রাজিলিয়ান মানুষদের কাছে সে ছিলো joy of the people. এমন কি অনেকে তার পরে জম্মগ্রহন করে অনেক নাম যশ কামিয়েছে কিন্তু গারিঞ্চার মতো আর কেউ হতে পারবে না ( কেঁদে ফেলেন) ৷ তিনি মানুষের হৃদয়ের সিংহাসন দখল করে নিয়েছিলেন..”

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

two × one =