সাম্পাওলি কে দলে চাচ্ছেন না মেসিরা!

সাম্পাওলি কে দলে চাচ্ছেন না মেসিরা!

দুই ম্যাচে এক পয়েন্ট নিয়ে আর গতরাতে ক্রোয়েশিয়ার কাছে ৩-০ গোলে বিধ্বস্ত হয়ে বিশ্বকাপের প্রথম রাউণ্ড থেকেই বাদ পড়ে যাওয়ার শঙ্কা দেখা দিয়েছে আর্জেন্টাইন শিবিরে। নাইজেরিয়ার সাথে শেষ ম্যাচ তো জেতা লাগবেই, সাথে ক্রোয়েশিয়া, আইসল্যান্ডের ম্যাচের ফলের দিকেও নজর রাখতে হবে আর্জেন্টিনাকে। টানা দুই ম্যাচে গড়পড়তা মানের পারফরম্যান্সের কারণে খেলোয়াড়দের মনে মধ্যে সেই আত্মবিশ্বাসটাই চলে গিয়েছে একদম। শেষ ম্যাচে নাইজেরিয়াকে বড় ব্যবধানে না হারালে আর পরের রাউন্ডে যেতে হবে না আর্জেন্টিনাকে, সাথে নিজেদের বাকী দুই ম্যাচে আইসল্যান্ডকে থাকতে হবে জয়হীন। এহেন অবস্থায় শোনা যাচ্ছে আর্জেন্টিনা দলের মধ্যেই কোচকে ঘিরে শুরু হয়েছে অন্তর্কলহ। সাম্পাওলিকে কোচ হিসেবে চাচ্ছেন না মেসি, আগুয়েরোরা। সাম্পাওলির জায়গায় দলে আনতে চাইছেন বিশ্বকাপজয়ী স্ট্রাইকার, ১৯৮৬ বিশ্বকাপের ফাইনালে গোল করা স্ট্রাইকার হোর্হে বুরুচাগাকে।

গত ম্যাচে ক্রোয়েশিয়ার কাছে ৩-০ গোলে বিধ্বস্ত হবার ম্যাচে সবচেয়ে বেশী চোখে পড়েছে সাম্পাওলির বিচিত্র কৌশল আর মেসির নিষ্ক্রিয়তা। জাতীয় সঙ্গীত চলার সময়েই মেসিকে দেখে মনে হয়েছিল রাজ্যের সকল চিন্তা ভর করেছে তার ঘাড়ে। কপালে বারবার হাত চলে যাচ্ছিল তার, ক্যামেরার দিকে তাকাতেই যেন চাচ্ছিলেন না, কেউ তার দিকে তাকিয়ে থাকুক, এটাও চাচ্ছিলেন না। সাম্পাওলির বিচিত্র কৌশলের সাথে মেসি বা আগুয়েরোদের কেউই খাপ খাওয়াতে পারেননি, তার কৌশল পছন্দ করতে পারেননি, এমনটাই শোনা যাচ্ছে এখন। যে কারণে দল থেকে সাম্পাওলির বিদায় চাইছেন তারা, আর নাইজেরিয়ার বিপক্ষে শেষ ম্যাচে দলের কোচ হিসেবে চাইছেন বিশ্বকাপজয়ী স্ট্রাইকার হোর্হে বুরুচাগাকে। ম্যাচ শেষেই দলের খেলোয়াড়েরা বলে নিজেদের মধ্যে মিটিং করে এই সিদ্ধান্তে উপনীত হয়েছেন যে, সাম্পাওলির অধীনে আর খেলতে চান না তারা।

হোর্হে সাম্পাওলিকে এখনই ছাঁটাই করা আর্জেন্টিনা ফেডারেশনের জন্য অনেক বিতর্কিত একটা সিদ্ধান্ত হবে, কেননা সাম্পাওলির সাথে আর্জেন্টিনা দলের দীর্ঘমেয়াদী চুক্তি রয়েছে, সাম্পাওলিকে এখনই যদি ফেডারেশন ছাঁটাই করে তাহলে তাকে ক্ষতিপূরণ বাবদ বিশ মিলিয়ন ডলার প্রদান করতে হবে। আর এটাই সাম্পাওলিকে ছাঁটাই না করার পেছনে সবচেয়ে বড় কারণ হতে পারে।

আর সাম্পাওলি যদি নাইজেরিয়া ম্যাচের আগে ছাঁটাই না হন, সেক্ষেত্রে শোনা যাচ্ছে বিশ্বকাপের পরেই দলের একাধিক খেলোয়াড় অবসরে যেতে পারেন, এদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছেন দলনেতা লিওনেল মেসি, গঞ্জালো হিগুয়াইন, সার্জিও আগুয়েরো, আনহেল ডি মারিয়া, মার্কোস রোহো, হাভিয়ের মাচেরানো, লুকাস বিলিয়া, এভার বানেগা প্রমুখ।

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

17 − nine =