সানি কাণ্ড এবং কিছু প্রশ্ন

আরাফাত সানি গ্রেফতার। চমকে গেলাম এমন খবর দেখে। কেন গ্রেফতার হলেন বিপিএলে হার্ট উদযাপন করে বিখ্যাত এই ক্রিকেটার? উত্তর হল তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনে এক মেয়ের করা মামলায়, যে নিজেকে সানির স্ত্রী দাবী করছে। মনে রাখুন কথাটা। তাহলে সামনের কথাগুলো বুঝতে সুবিধা হবে। সানির স্ত্রী বলে তিনি দাবী করছেন এবং আশ্চর্যের কথা, স্ত্রী দাবী করে আবার তিনিই মামলা করলেন ফেসবুকে হুমকি দেবার অভিযোগে!?! আর সানি পুরোপুরি অস্বীকার করলেন ব্যাপারটা। ফলে লাল দালানের ভাত কপালে জুটল সানির। তবে একটু গভীরে অনুসন্ধান করতে গিয়েই বের হল চাঞ্চল্যকর তথ্য।

সানির স্ত্রী প্রমাণ করতে গিয়ে ইতি নামের মেয়েটি যে কাবিন নামা জমা দিয়েছেন সেখানে কাজি অফিসের যে ঠিকানা দেওয়া আছে সেখানে আসলে কোন কাজী অফিস নেই, আছে মাংসের দোকান! আর কোন কালেই সেখানে কোন কাজী অফিসের অস্তিত্ব ছিল না। এরপর সানির বয়স নিয়েও অসঙ্গতি আছে ঐ কাবিনে।

মামলা হল, গ্রেফতার হল, রিমান্ড হল। কিন্তু এভাবে মিথ্যা তথ্য দিয়ে মামলা করা কি শাস্তিযোগ্য অপরাধ নয়? যদি হয়, তবে তদন্ত করে ইতির দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তি দেওয়া হোক। আর সানি দোষী হলে অবশ্যই সে যেন শাস্তি পায়।

প্রযুক্তির যুগে অনেক কিছুই তৈরি করা যায়, যা মানুষের মান সম্মানের বারোটা বাজাতে পারে এবং কাউকে ফাঁসানোর জন্য এমন নিকৃষ্ট কাজের উদাহরণ এদেশে অনেক আছে। সে জন্যই বলছি, দোষী হলে ইতির এমন শাস্তি দেওয়া উচিত যাতে ভবিষ্যতে কেউ এমন কাজ করার আগে দশবার ভাবে।

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

seventeen − nine =