উসাইন বোল্ট, বিশ্বকাপ আর প্রোটিয়া…

  • একটা সময় ছিলো যখন বিটিভিতে দুনিয়ার তামাম খেলা দেখাইত। শারজা কাপ দেখাত, পাকিস্তান-ভারত সিরিজ দেখাত, আবার সময় পাইলে মাঝেসাঝে অস্ট্রেলিয়া আর ইংল্যান্ড এর ওয়ানডেও দেখাইত। ওই দিনগুলায় কোন দল ৩০০ করে ফেললে গলির খেলা বা এলাকার স্কুলের মাঠের ম্যাচে যারা খেলতে আসত, তারা খালি ঐ ৩০০ নিয়েই কথা কইত। বিটিভির সেই অনেক খেলা দেখানোর দিন গেছে বাঘের পেটে, আর তার সাথে কি হয়েছে জানেন? ৩০০ নিয়ে কথা বলার দিনও গেছে ভোগে! ভোগে যাবে না? কোন দল বিশ্বকাপে এসে টানা ২ খেলায় আগে ব্যাট করে ৪০০+ করলে ৩০০ নিয়ে মাতামাতি করা বোকাদের দলে আপনি কেন পড়ে থাকবেন।

    আমলা আর ফ্যাফে পিষ্ট আইরিশরা
    আমলা আর ফ্যাফে পিষ্ট আইরিশরা
     বিশ্বকাপে ৩য় বার ৪০০ পেরোনো দলীয় ইনিংস। আগের ম্যাচে দক্ষিণ আফ্রিকাই আরেকবার করেছিলো আর ২০০৭ এ বারমুডার সাথে একবার করেছিল ভারত। বারমুডার সাথে ভারতের ৪১২ রানের ইনিংসটা অবশ্য আর ছোঁয়া হয়ে উঠে নি দক্ষিণ আফ্রিকার। তবে রেকর্ডটা যে খুব বেশিদিন নিরাপদ না, তা জানা সবারই! ৪১১ রানের টিম টোটালে সেঞ্চুরি ২টা আর শেষ ৩ জন নামা ব্যাটসম্যানেরই স্ট্রাইক রেট ২০০ এর উপরে। এর মধ্যে ভিলিয়ার্সের ৯ বলে ২৪, রুশোর ৩০ বলে ৬১ আর কিলার মিলারের ২৩ বলে ৪৬! কম্পোজড সেঞ্চুরি দুইটা আমলা আর ফ্যাফের । চটজলদি ডি কক ফেরার পর এই দুজনের জুটি ২৪৭ রানের। সত্য কথা হলো, দক্ষিণ আফ্রিকানরা এমন লেভেলে যাচ্ছে, ২৪৭ রানের জুটির কথা বলে ফেলি নির্বিকারে। ৪০০ হতে আর কি লাগে?
    দুইটা আনইভেন দলের ম্যাচে বড় দলটা ৪১২ রানের টার্গেট দিলে খেলা কার্যত ঐখানেই খতম। তারপরে অপেক্ষা থাকে অপেক্ষাকৃত ছোট দলটা থেকে কোন চোখে পড়ার মত ইনিংস আসে কিনা!

    আয়ারল্যান্ড অবশ্য সেরকম কিছুও করতে পারলো না । দুই একটা মিডিওকোর জুটি আসলেও সেটা আমলা আর ডু প্লেসির ইনিংস দুটোকেও পাড়ি দেবার মতো ছিলো না । ৩০ বল বাকি থ্যাকতে আয়ারল্যান্ডের ইনিংস যখন ফুরোয় , তখনও তারা ২০১ রান দূরে । এই পর্যন্ত এসে খানিক চিন্তায় পড়ে যেতে হয় লেখার হেডিংটা কি দেওয়া হবে এটা নিয়ে । অন্য খেলায় একটু চোখ ফেরাতেই মাথাটা খুলে যায় । এথলেটিকস এর খুব বড় সমঝদার না হলেও এটা জানি যা উসাইন বোল্ট এমন এমন কাজ করেছেন যা কয়েকবছর আগেও কেউ ভাবে নি যা এটা মানুষের দ্বারা সম্ভব ! দক্ষিণ আফ্রিকাও তো অমনই ! নিয়মিত ওরা এমন এমন কাজ করছে যা কয়েক বছর আগেও মানুষ ভাবে নি এটা কোন ক্রিকেট টীম দ্বারা বাস্তবের খেলায় সম্ভব !

     

    আইরিশদের প্রতিরোধটাও আসে নি
    আইরিশদের প্রতিরোধটাও আসে নি

    চিরকালের চোকার দক্ষিণ আফ্রিকা কি চোকারই রয়ে যাবে ? নাকি উসাইন বোল্টের মতো উপাখ্যানে পরিণত হবে ? সে উপাখ্যান গর্বের ! সে উপাখ্যান বাহবা দেওয়ার মতো ! চোকার হিসেবে মানুষের হাসি ঠাট্টার খেলনায় পরিণত হবার উপাখ্যান নয় ।

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

20 + 14 =