সম্মান, শ্রদ্ধা, ভালোবাসা, গর্বের অধিনায়ক….

প্রায় ২৬ মিনিটের সংবাদ সম্মেলনের প্রায় পুরো সময়টাই কণ্ঠ বাস্পরুদ্ধ। চোখে ছলছল করছিল জল, ধরে আসছিল গলা। কান্নার দমকে কথা আটকে যাচ্ছিল বারবার।
সংবাদ সম্মেলন থেকে বের হয়ে ধরে রাখতে পারেননি নিজেকে। হাত দিয়ে মুছেছেন চোখের জল। সংবাদকর্মীদের সবার চোখও তখন ছলছল, এক ভারতীয় সাংবাদিক তো প্রকাশ্যেই কাঁদলেন….

খানিক পর হোটেলে ফেরার গাড়িতে ওঠার আগেও অশ্রুসিক্ত অধিনায়ক। কান্না জড়িত কণ্ঠে তিনি বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বললেন, “আমার ক্যারিয়ার নিয়ে ভাবি না। হয়ত অনেক শক্ত কথা বলেছি। কিন্তু আমার দেশকে আগামী ১০-১৫ বছর সার্ভিস দেবে যে ছেলেটি, এখন তার পাশে না দাড়াতে পারলে আর কিসের অধিনায়ক হলাম! এই অবিচার মানতে পারছি না।”

২০১১ সালের ১৯ জানুয়ারি, দেশের মাটিতে বিশ্বকাপ দল থেকে বাদ দেওয়া পর অশ্রুসিক্ত মাশরাফিকে দেখেছিলাম খুব কাছে থেকেই। আজ তিনি ছাড়িয়ে গেছেন সেবারের নিজেকেও। এই মাশরাফিকে আগে কখনো দেখিনি। কান্নার দমকে কম্পিত কণ্ঠ, কিন্ত কথাগুলো ভীষণ দৃঢ়, প্রতিবাদী। আইসিসি বিশ্বকাপের সংবাদ সম্মেলনে বারবার বলার দু:সাহস দেখালেন যে “তাসকিনের প্রতি, আমাদের প্রতি ন্যায় বিচার করা হয়নি”….

সম্মান, শ্রদ্ধা, ভালোবাসা, গর্বের অধিনায়ক….

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

4 × 1 =