সব ওপেনার বাই-বর্ন হয় না

টিমে স্পেশালিস্ট স্ট্রাইকার না থাকলে মেইকশিফট স্ট্রাইকার খেলানো বেটার, আনকোরা নয়া স্ট্রাইকার খেলানোর চেয়ে। বছর আটেক আগে রোমায় স্ট্রাইকার ছিল না, ফ্র্যানসেস্কো টট্টি ট্রেকোয়ার্টিস্টা থেকে উঠে গিয়া সেন্টার ফরোয়ার্ড রোলে গিয়ে খেলসে, তাও আজাইরা মিডো ফিডো এইসব দিয়া দল ভারী করেনাই কোচ। কোপা ইতালিয়া জিতসিলো সেবার টানা দুইবার এএস রোমা। একটুর জন্য সিরি আ ও জিতেনাই।

ওপেনিংয়ে টিমের বেস্ট প্লেয়ার তামিম নাই, আনএক্সপেরিয়েন্সড প্লেয়ার দিয়ে স্কোয়াড বোঝাই করার মানে ছিল না। তার থেকে মুশফিক বা মাহমুদুল্লাহর কেউ কয়েকটা ওভার বেশী খেলত ওপেনিংয়ে গিয়ে। শেষের পাঁচ ওভারে টিমের দুইটা বেস্ট ব্যাটসম্যান আর কি ক্যারিশমা দেখাবে?

রোহিত শর্মা/বীরেন্দর শেবাগ ; এরা ক্যারিয়ার শুরু করসে ৫-৬ নাম্বারে খেলে। আজকের ম্যাচেও প্রথম দশ ওভারে সেট হয়ে তারপর মারা শুরু করসে শর্মা। ক্রিকেটে জ্ঞান নাই আমার, তাও যদ্দুর মনে পড়ে অ্যাডাম গিলক্রিস্টও শুরুতে মিডলঅর্ডারেই খেলত। সব ওপেনার বাই বর্ন ওপেনার হয় না। কাউকে কাউকে এইভাবে খেলায়ে খেলায়ে ওপেনার বানাইতেও হয়। মানুষ এইগুলা দেখেও ত শিখে। আমরা শিখি না।

টিমের বেস্ট প্লেয়ার বেশী বল খেলবে এটাই স্বাভাবিক। আমরা মুশফিকদের এখনো ১৫-১৬ ওভার পরে নামাই।

অন্য কোন টিমের কাছে হারলে জ্বলুনিটা লাগেনা। খালি দুঃখ লাগে। ইন্ডিয়া পাকিস্তান এই দুইটার কাছে হারলে জিদ উঠে দুঃখের সাথে।

যাইহোক। বিক্ষিপ্ত চিন্তাধারা। ব্যক্তিগত মতামত। মাত্র প্রথম ম্যাচ। বাকী ম্যাচগুলায় পুষায় দেওয়া লাগবে…

‪#‎RiseOfTheTigers‬

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

seventeen − three =