সন-কেইন তাণ্ডবে স্পার্সের বড় জয়

সাউদাম্পটনের সেইন্ট মেরিতে ‘হ্যারিকেইন-সন’ তাণ্ডব! প্রথম ম্যাচে ঘরের মাঠে এভারটনের কাছে ১-০ গোলের পরাজয়ে কিছুটা চাপে ছিলেন টটেনহাম কোচ হোসে মরিনহো। সেই চাপ উড়িয়ে দিয়ে কেইন আর সনের দুর্দান্ত পারফরমেন্সে সাউদাম্পটনের বিপক্ষে অ্যাওয়ে ম্যাচে ২-৫ গোলের বিশাল জয় নিয়ে মাঠ ছেড়েছে স্পার্স রা।

ইংসের গোলে অবশ্য এগিয়ে গিয়েছিল সাউদাম্পটনই

সাউদাম্পটনের মাঠ সেইন্ট মেরিতে ৩ মিনিটেই এগিয়ে যেতে পারতো টটেনহাম। কিন্তু হ্যারি কেইনের গোলটি অফসাইডের কারণে বাতিল হয় ভার চেকের পরে। মিনিট সাতেক পর শাই এডামসের শট রুখে দেন স্পার্স গোলরক্ষক হুগো লরিস। এর দুই মিনিট পরই বক্স ছেড়ে এগিয়ে যাওয়া লরিসের করা হেড থেকে বল পেয়ে জালে পাঠান ড্যানি ইংস। কিন্তু ভার চেকের পর বাতিল হয়ে যায় এই গোলটিও। ৩১ মিনিটে বক্সের মধ্যে বল পেয়ে টাফ এঙ্গেল থেকে নিখুঁত শটে লরিস কে ফাঁকি দিয়ে টটেনহামের জালে বল পাঠান ড্যানি ইংস। সাউদাম্পটন এগিয়ে যায় ১-০ গোলে।

এরপরই শুরু হয় হ্যারি কেইন এবং হিউং মিং সনের তাণ্ডব। প্রথমার্ধের অতিরিক্ত সময়ে কেইনের পাস থেকে বল পেয়ে সাউদাম্পটনের ডি বক্সের ডানদিকে থেকে জোরালো শটে গোল দিয়ে টটেনহামকে সমতায় ফেরান সন। দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই ৪৬ মিনিটে আবারো কেইনের পাস থেকে বল পেয়ে যান সন। একাই বল নিয়ে ডিবক্সে ঢুকে পড়ে সাউদাম্পটন গোলরক্ষক ম্যাকার্থির পাশ দিয়ে বল জালে জড়ান সন। ৬৩ মিনিটে মাঝমাঠের একটু সামনে থেকে কেইনের দেওয়া লং পাস থেকে গোল করে নিজের হ্যাটট্রিক পূরণ করেন হিউং মিং সন। ৭২ মিনিটে রাইট উইং থেকে কেইনের দেয়া লং পাস আবারো পেয়ে যান প্রায় অরক্ষিত থাকা সন। ডিবক্সের বাম দিক থেকে সনের নেওয়া জোরালো শটটা গোলরক্ষকের হাতের নিচ দিয়ে চলে যায় জালে।

প্রথম থেকেই সন ছিলেন দুরন্ত

সনের চারটি গোলেই এসিস্টদাতার নাম হ্যারি কেইন। ৮১ মিনিটে টটেনহামের এরিক লামেলার বাম পায়ের শটটি সাউদাম্পটন গোলরক্ষক ম্যাকার্থির হাতে লেগে গোলবারে লেগে ফিরে আসে ডিবক্সে দাঁড়ানো হ্যারি কেইনের পায়ে। ঠাণ্ডা মাথায় ফিনিশিং দিয়ে মৌসুমের প্রথম গোলটি করেন হ্যারি কেইন। ৪ টি এসিস্ট করার পর কেইন নিজে গোল না দিলে যেন পূর্ণতা পাচ্ছিল না তার আজকের পারফরমেন্স। তাই গোলের পরই কেইন কে মাঠ উঠিয়ে নেন কোচ মরিনহো। ৮৮ মিনিটে সাউদাম্পটন ডিবক্সে ডিফেন্ডার ডোহার্টির হাতে বল লাগলে ভার চেকের পর পেনাল্টির সিদ্ধান্ত দেন রেফারি। সাউদাম্পটনের হয়ে পেনাল্টি থেকে দ্বিতীয় গোল করে পরাজয়ের ব্যবধান কমান ড্যানি ইংস।

ম্যাচসেরা সন

উত্তেজনাপূর্ণ এই হাইস্কোরিং ম্যাচ শেষ হয় ২-৫ গোলের স্কোরলাইন নিয়ে। ৪ গোল করে ম্যাচ সেরা হয়েছেন টটেনহামের কোরিয়ান খেলোয়াড় হিউং মিং সন।

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

sixteen + 5 =