শেষ মূহুর্তে সিসোকো-নাটক

এবারের পুরো ট্রান্সফার উইন্ডো জুড়েই নিউক্যাসল ইউনাইটেডের ফরাসী মিডফিল্ডার মুসা সিসোকো ছিলেন আলোচনায়। ফ্রান্সের হয়ে দুর্দান্ত ইউরো কাটানোর পর, ফাইনালে পর্তুগালের কাছে হেরে গেলেও সেই ম্যাচের ম্যান অফ দ্য ম্যাচ মুসা সিসোকো যে আর বর্তমানে ইংল্যান্ডের দ্বিতীয় বিভাগে থাকা ক্লাব নিউক্যাসল ইউনাইটেডে থাকছেন না সেটা বোঝাই যাচ্ছিলো। তাঁর প্রতি আগ্রহী হয়েছিল রিয়াল মাদ্রিদের মত ক্লাবও। বলা হচ্ছিল, মাদ্রিদের প্রেসিডেন্ট ফ্লোরেন্তিনো পেরেজ নিজেই আগ্রহী সিসোকোকে দলে নিয়ে আসার জন্য। তা যাই হোক যে কারণেই হোক, রিয়াল মাদ্রিদে আর যাওয়া হয়নি তাঁর। তাই বলে তাঁকে নিয়ে গুঞ্জন থামেনি দলবদলের বাজারে।

মুসা সিসোকো নিজেই তাঁকে ঘিরে জ্বলতে থাকা এই আগুনে সলতে দেন আর্সেনালে যোগ দেবার ইচ্ছার কথা প্রকাশ করে। “সবাই জানে, আমি ছোটবেলা থেকেই প্রায়ই বলে এসেছি, আমি আর্সেনালকে পছন্দ করি। আর্সেনাল আমার হৃদয়ের ক্লাব। কারণ সেখানে আমার পছন্দের বেশ কিছু ফরাসী খেলোয়াড় খেলে গেছেন। যেমন – থিয়েরি অঁরি, রবার্ট পিরেস, সিলভাইন উইলটোর্ড, কিংবা আমার আইডল প্যাট্রিক ভিয়েইরা। সেই সুন্দর আর্সেনাল। কিন্তু এখন আমি ইউরো এবং আমার জাতীয় দলের দিকেই আমার মনযোগটা ধরে রাখতে চাই। আর্সেনালে যোগ দিতে পারি কি না পারি সেটা পরের বিবেচনা…”

মুসা সিসোকো
মুসা সিসোকো

এভাবে রিয়াল মাদ্রিদ থেকে শুরু করে আর্সেনাল, লিভারপুল, চেলসি, এভারটন, এসি মিলান, ইন্টার মিলান, জুভেন্টাস, টটেনহ্যাম হটস্পার, সেভিয়া – সবাই মূলত সিসোকোকে দলে টানার জন্য মুখিয়ে ছিল এবারের গোটা ট্রান্সফার উইন্ডো জুড়ে। শেষ পর্যন্ত কালকে শেষ মুহুর্তে, ডেডলাইন ডে বন্ধ হবার মাত্র দুই মিনিট আগে মিউক্যাসল ইউনাইটেড থেকে ৩০ মিলিয়ন পাউন্ডের বিনিময়ে নিজের “হৃদয়ের ক্লাব” আর্সেনালের চিরশত্রু ও নগরপ্রতিদ্বন্দ্বী টটেনহ্যাম হটস্পারে যোগ দিয়েছেন তিনি!

শুধু তাই নয়। শেষ দিনে সিসোকো কে নিয়ে মঞ্চস্থ হয়েছে চূড়ান্ত নাটক। অনেক ক্লাব আগ্রহী থাকলেও শেষ পর্যন্ত দেখা যায় সিসোকোকে দলে নেওয়ার ব্যাপারে সবচেয়ে বেশী আগ্রহী ক্লাব তিনটি হল টটেনহ্যাম হটস্পার, চেলসি ও এভারটন। শুরুতে টটেনহ্যাম ও এভারটন দুই দলই সিসোকোর জন্য ১৮ মিলিয়ন পাউন্ডের প্রস্তাব দেয়, যেটা নিউক্যাসল ম্যানেজার রাফা বেনিতেজ সরাসরি প্রত্যাখ্যান করেন। নিউক্যাসল সিসোকোর দাম বেঁধে দেয় ৩০ মিলিয়ন পাউন্ড, এক এক পাউন্ড কমেও দিতে রাজী নয় তাঁরা। তবে কোন ক্লাব যদি এই ৩০ মিলিয়ন পাউন্ড ইনস্টলমেন্ট এ দিতে চায় সেক্ষেত্রেও রাজী আছে নিউক্যাসল ইউনাইটেড। শেষ পর্যন্ত দেখা গেল সিসোকোর জন্য ৩০ মিলিয়ন পাউন্ড দিতে রাজী নয় চেলসি। সুতরাং, তাঁরা বাদ। বাকী থাকে টটেনহ্যাম ও এভারটন।

আসল নাটকের শুরু এখান থেকেই। সিসোকোর ব্যাপারে এবার সবচাইতে বেশী আগ্রহ দেখায় রোনাল্ড ক্যোম্যানের এভারটন। ৩০ মিলিয়ন পাউন্ড দিতে প্রস্তুত তাঁরা। নিউক্যাসলের সাথে সবধরণের আলোচনা, কথাবার্তা শেষ, চুক্তিপত্র প্রস্তুত করাও শেষ। খেলোয়াড় আনার জন্য এভারটনের শহর লিভারপুল থেকে একটা প্রাইভেট জেট প্লেনও চলে যায় নিউক্যাসলে। মেডিক্যাল বোর্ডও প্রস্তুত যাতে সিসোকো আসার সাথে সাথেই মেডিক্যাল সম্পন্ন করে তাঁর ট্রান্সফার সম্পন্ন করা যায় যত তাড়াতাড়ি সম্ভব, কারণ সময় চলে যাচ্ছে।

এবার নাটকের সূচনা করলেন মুসা সিসোকো নিজে। নিজের ক্লাবের নতুন খেলোয়াড় মুসা সিসোকোকে ক্লাবে স্বাগত জানানোর জন্য কোচ রোনাল্ড ক্যোমান নিজেই সিসোকোকে ফোন দিলেন। ফোন ধরলেন না সিসোকো, বার বার বন্ধ করে দিচ্ছিলেন তিনি ফোন। এদিকে নিউক্যাসল থেকে খবর এলো যে প্রাইভেট জেট প্লেনটি পাঠানো হয়েছিল সেখানে সিসোকোকে আনার জন্য, সিসোকো তাতে চাপেননি। এদিকে টানা দুই ঘন্টা সিসোকোর সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করে ব্যর্থ হয় এভারটন। ইঙ্গিত পরিষ্কার, এভারটনে রোনাল্ড ক্যোম্যানের ডাচ রেভোল্যুশানের সৈনিক হতে চান না এই ফরাসী মিডফিল্ডার। সিসোকোর এজেন্ট ও এভারটনকে জানিয়ে দেন, এভারটনে যেতে চান না সিসোকো। এভারটনের থেকে এবার চ্যাম্পিয়নস লিগ খেলতে যাওয়া টটেনহ্যামে যোগ দেওয়ার ব্যাপারেই আগ্রহ বেশী সিসোকোর।

শত চেষ্টা করেও সিসোকোকে দলে আনতে পারেননি রোনাল্ড ক্যোম্যান
শত চেষ্টা করেও সিসোকোকে দলে আনতে পারেননি রোনাল্ড ক্যোম্যান

এবার দৃশ্যপটে আগমন টটেনহ্যাম হটস্পারের। এভারটনের মত ৩০ মিলিয়ন পাউন্ডের প্রস্তাব দেয় তারাও। সামনের পাঁচ বছর পাঁচ ইনস্টলমেন্টে ছয় মিলিয়ন পাউন্ড করে মোট ৩০ মিলিয়ন পাউন্ড দেওয়ার ব্যাপারে সম্মত হয় নিউক্যাসল ও টটেনহ্যাম। এদিকে এতদিন সাধারণত ২৫ বছরের বেশী বয়সী খেলোয়াড়দের জন্য ১৫ মিলিয়ন পাউন্ডের উর্ধ্বে খরচ না করার নীতিতে থাকা টটেনহ্যামের চেয়ারম্যান ড্যানিয়েল লেভী ও কোচ মরিসিও পচেত্তিনো ২৭ বছর বয়সী মুসা সিসোকোর জন্য তাঁদের নীতি থেকে সরে আসার সিদ্ধান্ত নেন, কারণ পচেত্তিনো আর লেভী দুইজনই সম্মত হন এই শেষমুহূর্তে সিসোকোর চেয়ে ভালো কোন খেলোয়াড় পাবে না টটেনহ্যাম।

দ্রুত মেডিক্যালের ব্যবস্থা করা হয় সিসোকোর জন্য। নিউক্যাসল থেকে লণ্ডনে উড়ে আসেন সিসোকো। ডেডলাইন ডে শেষ হবার ঠিক দুই মিনিট আগে নিজের অফিসিয়াল টুইটার অ্যাকাউন্টে নতুন ক্লাবে যোগ দেওয়ার ঘোষণা দেন মুসা সিসোকো নিজেই। নতুন ক্লাবটি আর কেউই না, তাঁর “হৃদয়ের ক্লাব” আর্সেনালের চিরশত্রু টটেনহ্যাম!

এদিকে, সিসোকোকে না পেয়ে ওয়েস্টহ্যামের একুয়েডোরিয়ান স্ট্রাইকার এনার ভ্যালেন্সিয়াকে ধারে দলে এনেছে এভারটন।

কমেন্টস

কমেন্টস

2 thoughts on “শেষ মূহুর্তে সিসোকো-নাটক

মন্তব্য করুন

eight − six =