শিরোপা-স্বপ্ন প্রায় শেষ ম্যানচেস্টার সিটির

hi-res-381ae87829ce9d2d1c67d3c18b58b113_crop_north

ম্যাচ জিতলে তারা চলে আসত পয়েন্ট টেবিলের চতুর্থ থেকে দ্বিতীয় স্থানে। যদিও দ্বিতীয় স্থানে চলে আসলেও পরের কয়েকটা ম্যাচে নিজেদের জেতার পাশাপাশি চেলসির পা হড়কানোর জন্যেও প্রার্থনা করতে হত। প্রতিপক্ষ ক্রিস্টাল প্যালেস দেখে বোধহয় জয়ের ব্যাপারে মোটামুটি নিঃসন্দেহই ছিলেন সিটি কোচ ম্যানুয়েল পেলেগ্রিনি।

hi-res-b845154a157b94dd71b251f9db1351aa_crop_north

কিন্তু এ যে এক নতুন ক্রিস্টাল প্যালেস! এই ক্রিস্টাল প্যালেস এখন রেলিগেশানের সাথে যুদ্ধ করেনা, এ ক্রিস্টাল প্যালেস এখন লিগের বড় বড় দলের সহজপাচ্য খাবারও নয়! বিশেষ করে নিজেদের মাঠ সেলহার্স্ট পার্কে ত নয়ই। এর প্রমাণ তারা দিয়েছিল গত মৌসুমেই, যখন লিগের শেষদিকে নিজেদের মাঠে ৩-৩ গোলে ড্র করে ভেস্তে দিয়েছিল ২৩ বছর পরে লিভারপুলের লিগ জয়ের স্বপ্ন, কার্যত কাঁদিয়ে দিয়েছিল লুইস সুয়ারেজকে। এবার একইরকমভাবে এই মৌসুমে আরেক শিরোপার দাবিদার ম্যানচেস্টার সিটিকে নিজেদের মাঠে হারিয়ে একরকম তাদের শিরোপার লড়াই থেকে ছিটকেই দিল ক্রিস্টাল প্যালেস।

2754EA9C00000578-3027888-image-a-45_1428351231690

৩৪ মিনিটে স্ট্রাইকার গ্লেন মারে এগিয়ে দেন ক্রিস্টাল প্যালেসকে। স্কট ডানের শট জ্যো হার্ট ফিরিয়ে দিলে বল চলে যায় মারে’র পায়ে, যেখান থেকে গোল করতে তার কোন সমস্যাই হয়নি। যদিও গোলটি অফসাইড কিনা সে বিষয়ে যথেষ্ট তর্ক-বিতর্কের অবকাশ রয়েছে।

দ্বিতীয়ার্ধে ক্রিস্টাল প্যালেসের ব্যবধান দ্বিগুণ করেন জ্যেসন প্যুনচেওন। ৭৭ মিনিটে ব্যাবধান কমানো সান্ত্বনার গোলটি করেন ম্যানচেস্টার সিটির আর্জেন্টাইন স্ট্রাইকার সার্জিও অ্যাগুয়েরো। যদিও তা ২০১১ সালের পরে টানা তিন অ্যাওয়ে ম্যাচে হার এড়াতে পারেনি ম্যানচেস্টার সিটির।

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

13 − 9 =