শানাকা ইজ কামিং!

৩৯ বলে সেঞ্চুরি। লঙ্কান রেকর্ড ১৬ ছক্কায় ৪৬ বলে ১২৩। তখনই প্রথম জেনেছিলাম তাঁর নাম। জানতে পারলাম, ২ ম্যাচেই আগেই আরেকটা ইনিংস খেলেছিলেন। সেটিতে সেঞ্চুরি করেছিলেন ৪০ বলে। ১২ ছক্কায় করেছিলেন ৪৮ বলে অপরাজিত ১৩১! শ্রীলঙ্কার প্রিমিয়ার টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্ট সেটি।

আগ্রহ জাগা স্বাভাবিক। প্রোফাইলে দেখি ততদিনে একটা আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি খেলে ফেলেছেন। টি-টোয়েন্টি হয় মুড়ি-মুড়কির মত। কে কোনদিন থেকে খেলে ফেলে, অনেক সময় জানাও হয় না। ঘেটে দেখলাম, আন্তর্জাতিক অভিষেকের আগে ঘরোয়া ক্রিকেটে তেমন কোনো পারফরম্যান্সই নেই। তবু তাকে জাতীয় দলে নেওয়া হয়েছিল, কারণ প্র্যাকটিসে নিয়মিত বড় বড় ছক্কা মারছিলেন। শ্রীলঙ্কায় এটা বিস্ময়র কিছু নয়। রেপুটেশনেই ওরা অনেককে দলে নেয়। তাদের ব্যাক করে দারুণ ভাবে।

যাই হোক, এরপর ওই দুই সেঞ্চুরিতে জায়গা করে নিলেন শ্রীলঙ্কার টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ দলে। শ্রীলঙ্কার হয়ে ব্যাট হাতে এখনও করতে পারেননি তেমন কিছু।

সেই তিনি জায়গা পেলেন ইংল্যান্ড সফরের শ্রীলঙ্কা টেস্ট দলে। সে দেশের ক্রিকেট মহলে বিস্ময়। ফার্স্ট ক্লাস রেকর্ড খুব ভালো না হলেও একদম খারাপ না। তবে সবশেষ মৌসুমে ঘরোয়া ক্রিকেটে সেভাবে লঙ্গার ভার্সন খেলেনইনি। টি-টোয়েন্টি স্পেশালিস্ট, লঙ্গার ভার্সনে ডমেস্টিকেই সুযোগ বেশি পাননি। তিনি টেস্ট দলে। সবার চমকানোরই কথা।

কে জানত, চমকের তখনও বাকি! টেস্টের আগে গা-গরমের ম্যাচে লিস্টারশায়ারের বিপক্ষে আট নম্বরে নেমে সেঞ্চুরি করে অনেকটা নিশ্চিত করে ফেললেন টেস্ট ক্যাপ পাওয়া। টেস্ট ক্রিকেটে নিজের প্রথম সকালে উপহার দিলেন আরও বড় চমক। ব্যাটিংয়ে নয়, বল হাতে!

টেস্ট ক্যারিয়ারে দ্বিতীয় ওভারেই ২ উইকেট। পরের ওভারে আরেকটি। তিনজনই বেশ আঁটসাঁট টেকনিকের ব্যাটসম্যান। অ্যালিস্টার কুক, নিক কম্পটন, জো রুট। দুজন আউট হয়েছেন ড্রাইভ করতে গিয়ে। সবচেয়ে বেশি মজা লেগেছে এটাই। প্রায় হারিয়ে যেতে বসা জেন্টল মিডিয়াম পেস বোলিং। কুম্বলে-আফ্রিদির স্পিনের মত গতিতে পেস বোলিং। লাইন-লেংথ নিঁখুত আ ছোট ছোট সুইং। ইংলিশ কন্ডিশনের আদর্শ এই বোলার একসময় গণ্ডায় গণ্ডায় দেখা মিলত। এখন খুব কম।

টি-টোয়েন্টিতেও এক ম্যাচে ৩ উইকেট পেয়েছিলেন। পুনের সবুজ ঘাসের উইকেটে। সেদিনও দেখেছিলাম। তবে এটা টেস্ট ম্যাচ। ৩টি টেস্ট উইকেট, নট আ ব্লাডি জোক!

নাম…শানাকা। দাসুন শানাকা। শ্রীলঙ্কান হিসাবে নামের প্রথম অংশ একদমই ছোট্ট, কিন্তু ভীষণ খটমটে। পুরো নাম, ‘মাদাগামাগামাগে দাসুন শানাকা!’

ধুমধাড়াক্কা একজন টি-টোয়েন্টি ব্যাটসম্যান, যিনি কাজ চালানোর মিডিয়াম পেস করেন, টেস্ট ক্যারিয়ারের প্রথম ৩ ওভারেই আউট করলেন কম্প্যাক্ট টেকনিকের ৩ ব্যাটসম্যানকে। জেন্টেলমেন, দ্যাটস ক্রিকেট ফর ইউ…কিপ সারপ্রাইজিং ইউ এভরি মোমেন্ট…ইউ নেভার নো, হোয়াটস কামিং!

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

five + 8 =