লিটনের আউটে মনস্তত্ব

ক্রিকেট ইজ সাচ আ সাইকোলজিক্যাল গেম!

লিটন দস যে বলে বোল্ড হলো, বীজটা পোতা হয়েছিল আসলে আগের বলেই। রাবাদার ১৪২ কিমি গতির এক্সট্রা বাউন্স নাড়িয়ে দিল লিটনকে। মনে একটু সংশয় ঢুকে গেল। ফোকাস-মনযোগ একটু নড়ে গেল। পরের বলেই তাই অমনযোগি হয়ে অ্যাক্রস দা লাইন শট!

আরেকটা সাইকোলজিক্যাল ব্যখ্যা আছে। এমনিতে সোজা ব্যাটে এবং অফ সাইডেও বেশ ভালো খেলেন লিটন। ঘরোয়া ক্রিকেটে যা দেখেছি। স্কয়ার ড্রাইভ তো দারুণ খেলেন। আজকে দারুণ ২-৩টা ফ্লিক খেললেন। মাথায় ওটাই গেঁথে ছিল। ফ্লিক খেলার একটা টেন্ডেন্সি ভর করেছিল। রাবাদা অফ স্টাম্প সোজা বলেও ফ্লিক খেলে ফেললেন, উইথ দা ফ্লো। টাইমিং হলে, ব্যাটে লাগলে এইটা আরেকটা দৃষ্টিনন্দন ফ্লিক হতো। লাগেনি, স্টাম্প উড়েছে।

সবই মনস্ত্বাত্বিক ব্যাপার। যদিও এটা বাজে শটের অজুহাত হতে পারে না। বাজে শট বাজে শটই। যাই হোক, লিটনকে এখনই বাতিল করে দেওয়া ঠিক হবে না। একজন ক্রিকেটার ঘরোয়া ক্রিকেটে রেকর্ড রান করেছে, জাতীয় দলে যখন নেওয়াই হয়েছে, যথেষ্ট সময় দেওয়া উচিত। এখনই প্রত্যাশার ভার না চাপিয়ে নিজের মত খেলতে দেওয়া উচিত, আরও বেশ কটি ম্যাচ।

লেখকের ফেইসবুক স্ট্যাটাস অবলম্বনে…

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

5 × 3 =